বুধবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

ঢাকা সিএমএইচে সফলভাবে কিডনি প্রতিস্থাপন

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা সিএমএইচে সফলভাবে কিডনি প্রতিস্থাপন

ঢাকা সিএমএইচে সোমবার একজন সেনাসদস্যের কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয় -বাংলাদেশ প্রতিদিন

ঢাকা সিএমএইচে সোমবার একজন সেনা সদস্যের কিডনি প্রতিস্থাপন কার্যক্রম সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে। আইএসপিআর গতকাল জানায়, সেন্টার ফর কিডনি ডিজিজ অ্যান্ড ইউরোলজি ঢাকার স্বনামধন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক অধ্যাপক কামরুল হাসানের তত্ত্বাবধানে সিএমএইচ ঢাকার নেফ্রোলজি ও ইউরোলজি বিভাগের সিনিয়র বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের সমন্বয়ে গঠিত একটি মেডিকেল টিম ওই কিডনি প্রতিস্থাপন কার্যক্রম সম্পন্ন করে। কার্যক্রমে সামরিক চিকিৎসা সার্ভিস মহাপরিদফতরের মহাপরিচালক, কনসালট্যান্ট সার্জন জেনারেল, কনসালট্যান্ট ফিজিশিয়ান জেনারেল, কমান্ড্যান্ট সিএমএইচ ঢাকা, চিফ ফিজিশিয়ান জেনারেল ও চিফ সার্জন জেনারেল সার্বিক সহযোগিতা করেন। উল্লেখ্য, ১৯৮২ সালে দেশে প্রথম কিডনি প্রতিস্থাপন ঢাকা সিএমএইচে শুরু হয়।

এরই ধারাবাহিকতায় ৬ ডিসেম্বর অবসরপ্রাপ্ত ল্যান্স করপোরাল জহিরুল হকের কিডনি প্রতিস্থাপন কার্যক্রম সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে। তাঁর ফুপাতো ভাই মো. আবদুর রশিদ তাঁকে কিডনি দান করেন।

অন্তিম পর্যায়ে কিডনি রোগ একটি জটিল দুরারোগ্য ও ব্যয়বহুল স্বাস্থ্য সমস্যা। এ রোগে নিয়মিত ডায়ালাইসিস অথবা কিডনি প্রতিস্থাপন করে রোগীকে বাঁচিয়ে রাখা হয়। প্রতি বছর বাংলাদেশে নতুন করে প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ হাজার এ ধরনের রোগী যুক্ত হচ্ছেন এবং বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীতেও এ রোগীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। এসব রোগীর ৮০ শতাংশের বেশি যথাযথ চিকিৎসার অভাবে মারা যাচ্ছেন। কিডনি প্রতিস্থাপনই হচ্ছে কিডনি অকেজো রোগীর সর্বোত্তম চিকিৎসা। বর্তমানে বাংলাদেশে মাত্র আটটি সেন্টারের মাধ্যমে কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয় যা বিপুলসংখ্যক রোগীর তুলনায় খুবই অপ্রতুল। এ প্রেক্ষাপটে সাধারণ মানুষের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে প্রধানমন্ত্রীর অঙ্গীকারের অংশ হিসেবে এবং সেনাবাহিনী প্রধানের সার্বিক সহযোগিতায় ঢাকা সিএমএইচে কিডনি প্রতিস্থাপন সেন্টারের কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

সর্বশেষ খবর