শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩১ ডিসেম্বর, ২০২০ ২৩:২৮

বায়ুদূষণের শীর্ষে বাংলাদেশ

রোধে তদারকি বাড়াতে হবে

ঢাকার বায়ুমান আবারও চরম অস্বাস্থ্যকর মাত্রায় পৌঁছেছে। মারাত্মক বায়ুদূষণের কারণে বিশ্বের দূষিত বাতাসের শহরের তালিকায় সবচেয়ে খারাপ অবস্থানে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা। এয়ার ভিজুয়ালের তথ্যানুযায়ী ঢাকার বায়ুমান ছিল স্বাভাবিকের তুলনায় ৭ গুণ বেশি দূষিত। বায়ুমান সূচকে বিশ্বব্যাপী সর্বাধিক দূষণের মাত্রায় বাংলাদেশের অবস্থান দ্বিতীয় আর ঢাকা মহানগরী রয়েছে চতুর্থ অবস্থানে। এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন (এসডো)-এর প্রকাশিত এক গবেষণায় এ তথ্য জানানো হয়েছে। অন্যদিকে বৈশ্বিক দূষিত শহরের তালিকায় ১ নম্ব^রে ঢাকা। ঢাকার প্রতি ঘনমিটার বাতাসে সূক্ষ্ম ধূলিকণা ৩২৯.২ মাইক্রোগ্রাম। জনবহুল ঢাকা দীর্ঘদিন ধরেই দূষিত বাতাস নিয়ে হিমশিম খাচ্ছে। মূলত নির্মাণকাজের নিয়ন্ত্রণহীন ধুলা, যানবাহনের ধোঁয়া, ইটভাটা প্রভৃতির কারণে রাজধানীতে দূষণের মাত্রা চূড়ান্ত পর্যায়ে। বিশ্বব্যাংক ও পরিবেশ অধিদফতরের এক প্রতিবেদনে ঢাকার বায়ুদূষণের প্রধান কারণ হিসেবে এ শহরের চারপাশে অবস্থিত ইটভাটাকে চিহ্নিত করা হয়েছে। বায়ুদূষণ শুধু স্বাস্থ্যঝুঁকির কারণ নয়, পরিবেশ ও অর্থনীতিতেও বিরূপ প্রভাব ফেলেছে। শ্বাসযন্ত্রের রোগ ও দীর্ঘ সময় দূষিত বায়ুর সংস্পর্শে থাকার কারণে বহু মানুষের মৃত্যু হয়েছে। হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার হার, বিকলাঙ্গতা, শ্বাসযন্ত্রের দুর্বলতার কারণে মৃত্যু, স্ট্রোক, ফুসফুস ক্যান্সার, ডায়াবেটিসসহ নিউমোনিয়ার মতো রোগের কারণও বায়ুদূষণ। বর্ষায় আমাদের বায়ুদূষণের মাত্রা অনেক কম থাকে; যা ভারত ও চীনের চেয়েও কম। তবে বাংলাদেশে বায়ুদূষণের মোট পরিমাণ চীন ও ভারতের সঙ্গে তুলনীয় নয়। বিশ্বের যেসব দেশে সবচেয়ে দ্রুত বায়ুদূষণ বাড়ছে তার মধ্যে অবশ্যই বাংলাদেশ প্রথম সারিতে থাকবে। ইটভাটাগুলোকে দ্রুত আধুনিকায়ন করতে হবে। নির্মাণকাজে যাতে ধুলা কম হয় সে জন্য দেশের প্রচলিত আইন মানলেই যথেষ্ট। কিন্তু তা মানা হচ্ছে না এবং এ বিষয়ে তদারকির ঘাটতি রয়েছে। দূষণ নিয়ন্ত্রণে তদারকি বাড়াতে হবে।


আপনার মন্তব্য