Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২২:৫৪

ফরীদির প্রয়াণের ৭ বছর

পান্থ আফজাল

ফরীদির প্রয়াণের ৭  বছর

‘এসডিও সাহেবকে আমি সামলাব, আমার নাম হচ্ছে কাজী মোহাম্মদ রমজান- এই সুচতুর উক্তিটির সঙ্গে পরিচয় আছে কি? নিশ্চয়ই এ মুহূর্তে ভাবনার বারান্দায় অতীতের চিরচেনা ‘কানকাটা রমজান’ চরিত্রের সেই কুটিল ব্যক্তির ছবি ভেসে বেড়াচ্ছে! এক সময় বিটিভিতে প্রচারিত ‘সংশপ্তক’ নাটকে ‘কানকাটা রমজান’ চরিত্রে অভিনয়ের জন্য বিখ্যাত হয়েছিলেন তিনি। যিনি কিনা সেই নাটকে নষ্টা ও সমাজচ্যুত হুরমতি চরিত্রের ফেরদৌসী মজুমদারের হাতে নাজেহাল হয়ে কান বিসর্জন দিয়েছিলেন! এত ঘোরের মধ্যে না রেখে বলেই ফেলি নামটা! হুম, তিনি হুমায়ুন ফরীদি। এদেশের মঞ্চ, টিভিনাট্য কিংবা চলচ্চিত্র ইতিহাসে চিরভাস্বর এবং অবিসংবাদিত তিনি। আজ এই কিংবদন্তি অভিনেতার ৭ম প্রয়াণ দিবস। ২০১২ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি তার মহাপ্রয়াণ হয়। অসামান্য মেধাবী এই জাঁদরেল অভিনেতার এদেশে জন্মটাই ছিল সব মেধা উজাড় করে দেওয়ার জন্য। প্রাপ্তিটা আপাতত ধোঁয়াশাই থাক। একবার কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ আক্ষেপ করে প্রয়াত এই অভিনেতা সম্পর্কে বলেছিলেন, ‘আচ্ছা, এই মানুষটি কী অভিনয়কলায় একটি একুশে পদক পেতে পারেন না! এই সম্মান কী তার প্রাপ্য নয়?’ কিন্তু বেঁচে থাকতে ফরীদি সেই সম্মান পাননি। গত বছর সবার টনক নড়েছিল। পেয়েছিলেন মরণোত্তর একুশে পদক। শহীদুল্লাহ কায়সারের বহুল আলোচিত নাটক ‘সংশপ্তক’। যেখানে হুমায়ুন ফরীদি অভিনয় করেছিলেন বিখ্যাত সেই ‘কানকাটা রমজান’ চরিত্রে। তবে সংশপ্তক নাটক প্রচারের অনেক আগে থেকেই হুমায়ুন ফরীদি মঞ্চ এবং টিভি নাটকের শীর্ষস্থানীয় অভিনেতা ছিলেন। এই নাটকটিকে তার শ্রেষ্ঠ কাজও বলা যায় না। তবুও বাংলাদেশ টেলিভিশনের সর্বকালের সবচেয়ে জনপ্রিয় চরিত্র হিসেবে বেশির ভাগ মানুষই বোধহয় কানকাটা রমজানকেই পছন্দ করবেন। ভয়ঙ্কর কুটিল এবং ধুরন্ধর এবং একই সঙ্গে কিছুটা কমেডি ধাঁচের রমজান চরিত্রটি ফরীদি যেভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন, তার কোনো তুলনা হতে পারে না। ব্লাক কমেডির সার্থক চিত্ররূপ বলা যেতে পারে নাটকে তার অংশটুকুকে। নাটকের অন্যসব জাঁদরেল অভিনেতা-অভিনেত্রীর প্রতি পূর্ণ সম্মান রেখেই বলছি, ফরীদির সামনে নি®প্রভ মনে হতো সবাইকে। হুমায়ুন ফরীদির সব কাজ নিয়ে বললে শেষ হবে না। ফরীদির মৃত্যুর ৭ বছর পার হলেও কেন তাকে যথাযথ সম্মান দেওয়া এখনো হচ্ছে না? হয়তোবা এসব আক্ষেপ, কষ্ট আর হতাশা মেঘ হয়ে ভেসে বেড়াবে বিস্তৃত দিগন্তে আর এক সময় মিলিয়ে যাবে সুদূর নক্ষত্র গহ্বরে।


আপনার মন্তব্য