Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৪ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৩ মার্চ, ২০১৯ ২২:৪৬

পাঁচ বছর বয়সেই মাকে হারান নুর

নিজস্ব প্রতিবেদক ও পটুয়াখালী প্রতিনিধি

পাঁচ বছর বয়সেই মাকে হারান নুর

বাবা ইদ্রিস হাওলাদার খুশি। পাঁচ বছর বয়সে মা হারানো ছেলেটি আজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ভিপি। ছেলের এ বিজয় সংবাদে উল্লসিত বাবা। সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় আবেগে আপ্লুত হন তিনি। ছেলের এই বিশাল অবস্থান আনন্দিত করেছে বাবাকে। নূরের সাফল্যে তার বোনেরাও ব্যাপক খুশি। ডাকসুর ভিপি হওয়ার পর পরিবারের সদস্যরা গ্রামের বাড়িতে বিজয় চিহ্ন দেখিয়ে নূরকে অভিনন্দন জানান। এদিকে নূরের এ বিজয়ে পটুয়াখালীতে আলোচনার ঝড় বইছে। অনেকেই নূরের বাড়িতে এসে তার বাবার সঙ্গে কুশল বিনিময় করছেন এবং নূরের ভূয়সী প্রশংসা করছেন। ছেলের এ বিজয় প্রসঙ্গে বাবা ইদ্রিস হাওলাদার বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘এ বিজয়ের অংশীদার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীরা। তারা খুশি হলে এ বিজয়ে আমিও খুশি। তবে আমি আমার ছেলের জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চাই।’ পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার চরবিশ্বাস ইউনিয়নের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ইদ্রিস হাওলাদারের ছেলে নূরুল হক নূর। তার বাবা গলাচিপা উপজেলার চরবিশ্বাস ইউনিয়নের সাবেক ১ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ছিলেন। জনপ্রতিনিধি হিসেবে নূরের বাবারও সুনাম রয়েছে নিজ এলাকায়। তিন ভাই ও পাঁচ বোনের মধ্যে নূর দ্বিতীয়। বাড়ির পাশের মধ্য চরবিশ্বাস সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাথমিক শেষ করে পার্শ¦বর্তী চরবিশ্বাস জনতা মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করে নূর শিক্ষা অর্জনের জন্য ঢাকার গাজীপুরে চলে যান। পরে গাজীপুরের কালিয়াকৈর গোলাম নবী মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাস করেন। পরে উত্তরা স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগে এইচএসসি পাস করেন নূর। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি বিভাগে ভর্তি হন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মুহসীন হলের নিয়মিত ছাত্র ছিলেন নূর। ওই সময় ছাত্রলীগের হল শাখার মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন তিনি। পরে কোটা সংস্কার আন্দোলনে জড়িয়ে পড়েন। নূরের স্কুলশিক্ষক চরবিশ্বাস জনতা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মো. আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, সপ্তম শ্রেণিতে পড়ার সময় বিদ্যালয় ছাত্রলীগের দফতর সম্পাদক হিসেবে ছাত্রলীগের একজন সক্রিয় নেতা ছিলেন নূর। চরবিশ্বাস ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান মো. তোফাজ্জেল হোসাইন বাবুল বলেন, ‘নূর সব সময়ই ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিল। যখনই নূর এলাকায় আসত, ছাত্রলীগের ছেলেদের নিয়ে আড্ডা ও গল্প করত। স্থানীয় ছাত্রলীগের বিভিন্ন কর্মসূচিতে যোগ দিত।’ চরবিশ্বাস ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হাতেম আলী মাস্টারের মেয়ে মরিয়ম আক্তারকে বিয়ে করেন নূর। তার শ্বশুরপরিবারের সবাই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত।


আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর