প্রকাশ : শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ অক্টোবর, ২০১৯ ২৩:২২

নিউইয়র্কের পাঁচ সিনেটর ঢাকা আসছেন

প্রতিদিন ডেস্ক

নিউইয়র্কের পাঁচ সিনেটর ঢাকা আসছেন

নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্য সিনেটের পাঁচ সদস্য বাংলাদেশে যাচ্ছেন ‘শুভেচ্ছা সফরে’। আজ শুক্রবার তারা নিউইয়র্ক ত্যাগ করেন। বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অতিথি হিসেবে তারা সপ্তাহখানেক কাটাবেন বাংলাদেশে। এরা হলেন স্টেট সিনেটর জন ল্যু, লুইস সেপুলভেদা, জেমস স্কুফিস, লিরয় কমরি ও কেভিন এ পার্কার। সবাই ডেমোক্র্যাটিক পার্টির সদস্য এবং প্রবাসী বাংলাদেশিদের ঘনিষ্ঠ বন্ধু। খবর এনবিআর নিউজের।

কূটনৈতিক সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমীন চৌধুরী এ বছর নিউইয়র্ক সফরকালে স্টেট সিনেটর লুইস সেপুলভেদা তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। সে সময়ই স্পিকার তাদের বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান। এই টিমের সঙ্গে আছেন নিউইয়র্কে মূলধারার রাজনীতিতে সংশ্লিষ্ট বাংলাদেশি মোর্শেদ আলমসহ কয়েকজন। এ সফর নিয়ে প্রবাসীদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। কারণ, এরা বাংলাদেশের জন্য কিছুই করতে পারেন না। সে এখতিয়ার তাদের নেই। তবে প্রবাসীদের সমস্যায় তারা সব সময় পাশে রয়েছেন। উল্লেখ্য, বাংলাদেশের সামগ্রিক উন্নয়ন এবং কল্যাণে কিছু করার এখতিয়ার রয়েছে কংগ্রেসম্যান ও ইউএস সিনেটরদের। তাদের এভাবে নিতে পারলে জাতিগতভাবে উপকৃত হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল বলে সুধীজন মনে করছেন। এ ছাড়া বিভিন্ন স্টেট ও সিটিতে ডজনখানেক বাংলাদেশি রয়েছেন, যারা মূলধারার সঙ্গে লড়ে জয়ী হয়েছেন।

 সেসব নির্বাচিত স্টেট সিনেটর, স্টেট রিপ্রেজেনটেটিভ ও সিটি কাউন্সিলম্যানের সমন্বয়ে একটি টিম গঠন করে সেই টিমের সঙ্গে এ পাঁচজনকে নিলে সুবিবেচনাপ্রসূত হতো বলে সবার ধারণা। বাংলাদেশি-আমেরিকানদের পাশ কাটিয়ে শুধু আমেরিকান রাজনীতিকদের (তাও আবার জাতীয় পর্যায়ের নন) বাংলাদেশে আমন্ত্রণ জানানোর মধ্যে এই প্রবাসে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ফেরা বাংলাদেশকে নেতিবাচকভাবে উপস্থাপনের ষড়যন্ত্রে লিপ্তদের মদদ রয়েছে কিনা তা ভেবে দেখার অবকাশ রয়েছে- মন্তব্য নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি জাকারিয়া চৌধুরীর। জাকারিয়া উল্লেখ করেছেন, বলার অপেক্ষা রাখে না, নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্য পার্লামেন্টে সম্প্রতি দুটি রেজুলেশন পাস হয়েছে যেখানে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর অবিস্মরণীয় ইমেজ খাটো করার চেষ্টা হয়েছে। বহুল বিতর্কিত হাওয়া ভবনের লোকজনও রয়েছেন এই চক্রে- উল্লেখ করেছেন জাকারিয়া। ‘তাই এ বিলাস ভ্রমণকে দুধকলা খাইয়ে বিষধর সাপ পোষার শামিল’ হবে বলে মন্তব্য করেছেন জাকারিয়া ও বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের যুক্তরাষ্ট্র শাখার সেক্রেটারি কাদের মিয়া।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর