Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper

শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২১ অক্টোবর, ২০১৯ ২৩:৩২

থমথমে ভোলা আসামি পাঁচ হাজার

ফেসবুক আইডি হ্যাকার ইমন ও শরীফ গ্রেফতার, ছয় দফা দাবি জানিয়ে আল্টিমেটাম

রাহাত খান, বোরহানউদ্দিন (ভোলা) থেকে

থমথমে ভোলা আসামি পাঁচ হাজার
ভোলার বোরহারউদ্দিন শহরে গতকাল বিজিবির প্রহরা -বাংলাদেশ প্রতিদিন

রবিবারের সংঘর্ষের ঘটনার পর ভোলা জেলার বোরহানউদ্দিন উপজেলা শহরের পরিস্থিতি শান্ত দেখা গেছে। তবে একটু থমথমে। রবিবারের পুলিশ-স্থানীয় জনতা সংঘর্ষের ঘটনায় ওই দিন গভীর রাতে অজ্ঞাতনামা চার থেকে পাঁচ হাজার ব্যক্তিকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে। মামলার বাদী বোরহানউদ্দিন থানার সাব-ইন্সপেক্টর আজিজুর রহমান। এ ছাড়া, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে বিপ্লব চন্দ্র শুভ, শুভর ফেসবুক হ্যাককারী ইমন এবং শরীফ ওরফে শাকিল- এই তিনজনের বিরুদ্ধে পৃথক একটি মামলা করা হয়। তিন ব্যক্তিই এখন আটক রয়েছেন। এদিকে, ভোলা শহরে প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে ‘সর্বদলীয় ঐক্য পরিষদ’ পুলিশ সুপারের অপসারণসহ ৬-দফা দাবি জানিয়ে এগুলো তিন দিনের মধ্যে পূরণের সময় দিয়েছে। ভোলা প্রতিনিধি জানান, পরিষদের পক্ষে মাওলানা মোহাম্মদ মিজানুর রহমান লিখিত ভাষণে বলেন, ভোলার পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার এবং বোরহানউদ্দিন থানার ওসি এনামুল হকের অপসারণের দাবি জানানো হয়েছে। অন্য দাবি হলো : আল্লাহ, নবী রসুল ও ইসলাম সম্পর্কে কটূক্তিকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইন প্রণয়ন করতে হবে, নিহত ৪ জনের পরিবারকে সর্বোচ্চ ক্ষতিপূরণ দিতে হবে, আহতদের চিকিৎসার খরচ সরকারকে বহন করতে হবে, যাদের আটক করা হয়েছে তাদের নিঃশর্তে মুক্তি দিতে হবে। পরিষদের আহ্বায়ক মাওলানা বশির উদ্দিন জানান, আইনশৃঙ্খলা রক্ষার স্বার্থে তারা পূর্ব ঘোষিত সোমবারের সমাবেশ করেননি। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, মাওলানা ইয়াকুব আলী চৌধুরী, মাওলানা মো. ইউসুফ, মাওলানা মো. আতাহার আলী, মাওলানা তয়বুর রহমান, মাওলানা মহিউদ্দিন প্রমুখ। জেলা শহর ভোলায় কর্তৃপক্ষীয় অনুমতি ব্যতিরেকে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সেলিম উদ্দিন। তিনি জানান, জেলা প্রশাসনগঠিত তদন্ত কমিটি গতকাল বৈঠক করেছে। সরেজমিন তদন্তের পর কমিটির আজ প্রতিবেদন দাখিলের কথা। চার-পাঁচ হাজার জনকে আসামি করে দায়ের করা মামলায় সরকারি কর্মকর্তাকে সরকারি কাজে বাধাদান, অতর্কিত হামলা চালিয়ে পুলিশ সদস্যদের আহত করা এবং দাঙ্গা সৃষ্টি করে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি করার অভিযোগ করা হয়েছে। মামলার তদন্তকারী নিযুক্ত হয়েছেন এসআই মামুন। গতকাল দুপুর পর্যন্ত কেউ গ্রেফতার হয়নি। র‌্যাব-পুলিশ টহল : বোরহানউদ্দিনের পরিস্থিতি শান্ত রাখা এবং জনগণের জানমাল নিরাপদ রাখতে পুরো শহর নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেওয়া হয়েছে। বোরহানউদ্দিন থানার ওসি এনামুল হক জানান, ৪ প্লাটুন বিজিবি, ১ প্লাটুন কোস্টগার্ড, বিপুল সংখ্যক র‌্যাব এবং পুলিশ টহল দিচ্ছে। বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। গোয়েন্দা তৎপরতা বাড়ানো হয়েছে। গতকাল সকাল থেকে বোরহানউদ্দিন শহর ঘুরে জনমনে আতঙ্কভাব দেখা গেছে। থমথমে শহরে জনমনে প্রশ্ন উঠেছে, শান্ত বোরহানউদ্দিন শহর কেন রক্তাক্ত হলো? কারা এর পেছনে ইন্ধন জুগিয়েছে? আড়ালে থেকে করা কাদের ষড়যন্ত্রের শিকার হলাম আমরা? চারজনের দাফন : রবিবারে নিহত চারজনের মধ্যে তিনজনের লাশ ওই রাতেই জেলা প্রশাসকের অনুমতি সাপেক্ষে বিনা ময়নাতদন্তে দাফন করা হয়েছে। আরেকজনের লাশ গতকাল সকালে দাফন করা হয়।

খুলনায় সাংবাদিক গ্রেফতার : নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা জানান, ভোলার ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ায় মুনির উদ্দিন আহমেদ নামে এক সাংবাদিককে গ্রেফতার করা হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যায় তার বিরুদ্ধে খুলনা সদর থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ১৮ এর ২৫, ২৮, ২৯ ও ৩১ ধারায় মামলা দায়েরের পর তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। থানার ওসি (তদন্ত) আসলাম বাহার বুলবুল এই তথ্য জানিয়েছেন। মুনির ঢাকার দৈনিক দি নিউ নেশনের খুলনা প্রতিনিধি। ঢাকায় বিক্ষোভ : নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, ভোলার ঘটনার জন্য দায়ীদের বিচার দাবিতে রাজধানীতে গতকাল বিক্ষোভ মিছিল করেছে মুসল্লিরা। বেলা সাড়ে ১১টায় মোহাম্মদপুর টাউন হলের আল্লাহ করিম মসজিদ ও মসজিদ সংলগ্ন সড়কে এই বিক্ষোভ হয়। ভোলার ঘটনা রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র- হাই কোর্ট : ভোলার বোরহানউদ্দিনে পুলিশ ও স্থানীয়দের সংঘর্ষের ঘটনা রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র বলে মন্তব্য করেছে হাই কোর্ট। একই সঙ্গে এসব ষড়যন্ত্র প্রতিরোধে সরকারকে সতর্ক থাকতেও বলেছে আদালত। গতকাল গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন নজরে এনে বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশনা চাইলে বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের সমন্বয়ে গঠিত হাই কোর্ট বেঞ্চ এমন মন্তব্য করে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর