শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২০ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ নভেম্বর, ২০১৯ ২৩:৪২

অঘোষিত পরিবহন ধর্মঘটে জিম্মি সারা দেশ

ট্রাক চালকদের ধর্মঘট আজ থেকে

নিজস্ব প্রতিবেদক

অঘোষিত পরিবহন ধর্মঘটে জিম্মি সারা দেশ
রাজধানীতে গতকাল এভাবে যানবাহন চলাচলে বাধা দেন পরিবহন শ্রমিকরা

সড়ক পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের অঘোষিত ধর্মঘটে জিম্মি হয়ে পড়েছে সারা দেশ। চালক-শ্রমিকরা বাসসহ গণপরিবহন বন্ধ রাখায় চরম দুর্ভোগে পড়েছেন দেশের লাখ লাখ মানুষ। নতুন সড়ক পরিবহন আইন সংশোধনের দাবিতে মালিক ও শ্রমিক নেতাদের উসকানিতে এই আকস্মিক ধর্মঘটে নেমেছেন শ্রমিকরা। মালিক ও শ্রমিক নেতারা ধর্মঘটের দায় না নিলেও এই নৈরাজ্যের নেপথ্যে তাদের প্রত্যক্ষ ইন্ধন রয়েছে বলে মনে করছেন পরিবহন বিশেষজ্ঞরা। এদিকে বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান পণ্য পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ গতকাল সংবাদ সম্মেলন করে বলেছে, আজ থেকে পণ্য পরিবহন চালকরাও গাড়ি চালাবেন না। 

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা জানান, খুলনায় দ্বিতীয় দিনের মতো চলছে চালকদের কর্মবিরতি। গতকাল সকাল থেকে খুলনার অভ্যন্তরীণ ও দূরপাল্লার কোনো যানবাহন চলেনি। ধর্মঘটে যাত্রীদের সীমাহীন দুর্ভোগ হচ্ছে। ধর্মঘট নিয়ে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে খুলনা সার্কিট হাউসে পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের  বৈঠক হয়। এতে খুলনা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন, পুলিশ সুপার এস এম শফিউল্লাহ, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ইউসুপ আলী উপস্থিত ছিলেন।

খুলনা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন বলেন, বৈঠকে প্রশাসনের পক্ষ থেকে আগামী কয়েকদিন নতুন সড়ক আইন প্রয়োগ শিথিল করার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। এ কারণে ইউনিয়নের পক্ষ থেকে চালক-মালিকদের গাড়ি চালানোর অনুরোধ করা হয়েছে। আজ (বুধবার) থেকে খুলনার অভ্যন্তরীণ রুটে চালকরা গাড়ি চালাবেন।

রংপুর প্রতিনিধি জানান, রংপুর নগরীতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে ট্রাক শ্রমিকরা। দুপুরে নগরীর কলেজ রোডের ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যালয় থেকে এই মিছিল বের হয়। এর আগে নতুন সড়ক আইন সংশোধনের দাবিতে সমাবেশ হয়। রংপুর জেলা ট্রাক, ট্যাংকলরি, কাভার্ডভ্যান ও ট্রাক্টর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি হাফিজুর রহমান হাফিজের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মানিক, কার্যকরী সভাপতি জয়নাল আবেদীন, সহসভাপতি আশরাফ আলী প্রমুখ।

এদিকে রংপুরে দ্বিতীয় দিনের মতো চলছে ধর্মঘট। জেলা থেকে দেশের ১২টি রুটে বন্ধ রয়েছে বাস চলাচল। বুড়িমারী, বাংলাবান্ধা ও সোনাহাট স্থলবন্দর থেকে ছেড়ে আসা গাড়িগুলো পথে আটকে দেন পরিবহন শ্রমিকরা। আটকে পড়া পরিবহন চালকদের দাবি, শ্রমিক নেতারা জোর করে তাদের আটকে রেখেছেন।

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল জানান, পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই সকাল থেকে বরিশালের অভ্যন্তরীণ এবং দূরপাল্লা রুটে বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে শ্রমিকরা। আকস্মিক বাস বন্ধে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন যাত্রীরা। পরিবহন মালিক-শ্রমিক নেতারা বলছেন, বিভিন্ন স্থানে বাস চলাচল করতে বাধার সম্মুখীন হচ্ছেন তারা। ভাঙচুর করা হচ্ছে বাস। এ ছাড়া নতুন সড়ক আইনে জেল-জরিমানা বেশি থাকায় শ্রমিকরা বাস চলাচল বন্ধ রেখেছেন।

শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি জানান, গাজীপুরের শ্রীপুরে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করেছে পরিবহন শ্রমিকরা। সকালে দুই ঘণ্টা শ্রীপুর উপজেলার মাওনা চৌরাস্তা মোহা. সিএনজি পাম্পের সামনে শ্রমিকরা সড়ক অবরোধ করে। এ সময় মহাসড়কের উভয় পাশে যানজট সৃষ্টি হয়।

নওগাঁ প্রতিনিধি জানান, নওগাঁয় তৃতীয় দিনের ধর্মঘটে বালুডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড থেকে জেলার ১১ উপজেলার সব রুটের বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। বন্ধ রয়েছে রাজশাহী ও বগুড়া রুটের সব বাস। ফলে দূরপাল্লার যাত্রীরা দুর্ভোগে পড়েছেন। বাস ছাড়া অন্যান্য যানবাহন কম থাকায় দ্বিগুণ ভাড়া গুনতে হচ্ছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জে বাস চলাচল বন্ধ রেখেছেন শ্রমিকরা। সকাল থেকে আন্তজেলা ও উপজেলা রুটে কোনো বাস ছেড়ে যায়নি। তবে ট্রাক চলাচল করছে স্বাভাবিকভাবেই। বাস শ্রমিকরা জানান, নতুন আইনে শাস্তি বাড়িয়ে দেওয়ায় তারা বাস চালানো বন্ধ রেখেছেন।

নেত্রকোনা প্রতিনিধি জানান, নেত্রকোনায় সকাল থেকেই পরিবহন চালকরা কর্মবিরতি শুরু করে। পৌর শহরের আন্তজেলা বাস টার্মিনাল থেকে অভ্যন্তরীণ বাস চালু থাকলেও দূরপাল্লার বাস ছেড়ে যায়নি। বিপাকে পড়েছেন দূরপাল্লার যাত্রীরা।

পিরোজপুর প্রতিনিধি জানান, পিরোজপুর থেকে সব রুটের বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে বাস শ্রমিকরা। সকাল থেকে শুরু হওয়া এ ধর্মঘটে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা। পিরোজপুর জেলা বাস মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়ন সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন বলেন, নতুন সড়ক পরিবহন আইন কার্যকরের প্রতিবাদে শ্রমিকরা বাস চালাচ্ছেন না।

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি জানান, জেলায় দ্বিতীয় দিনের অঘোষিতভাবে বাস মিনিবাস ও দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। ঘোষণা ছাড়াই শ্রমিকরা যানবাহন বন্ধ করে দেয়। এতে দুর্ভোগ হচ্ছে যাত্রীদের। চুয়াডাঙ্গা জেলা বাস ট্রাক সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি এম জেনারেল ইসলাম জানান, সংগঠন থেকে কোনো ঘোষণা নেই। পাশের জেলাগুলোতে বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর চুয়াডাঙ্গার শ্রমিকরাও কর্মবিরতি শুরু করেছে।                         

বাগেরহাট প্রতিনিধি জানান, মোংলার সঙ্গে দ্বিতীয় দিনের মতো সারা দেশের সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি জানান, ময়মনসিংহ থেকে ঢাকাসহ দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে বাস চালক ও শ্রমিকরা। সকাল থেকেই নগরীর পাটগুদাম ব্রিজ মোড়, মাসকান্দা আন্তজেলা বাস টার্মিনাল ও টাঙ্গাইল বাসস্ট্যান্ড থেকে কোনো বাস না চলায় দুর্ভোগে পড়েন যাত্রীরা। ঝালকাঠি প্রতিনিধি জানান, সকাল থেকে ঝালকাঠি-বরিশাল, ঝালকাঠি-ঢাকাসহ অভ্যন্তরীণ ও দূরপাল্লার ৯টি রুটে বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ সব রুটে বাস বন্ধ করে দেয়। এতে যাত্রীরা ভোগান্তিতে পড়েছেন।

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট জানান, বিআরটিসি বাস চলাচল বন্ধের দাবিতে সিলেট-গোয়াইনঘাট-কোম্পানীগঞ্জ সড়কে মালিক সমিতির বাস ধর্মঘট অব্যাহত রয়েছে। গতকাল তৃতীয় দিনের মতো বাস ধর্মঘট পালিত হয়।

ধর্মঘটে ট্রাক-কাভার্ডভ্যান চালকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, নতুন সড়ক আইন স্থগিত করে সংশোধনের দাবিতে সারা দেশে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতির ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ডভ্যান পণ্য পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ। আজ থেকে অনির্দিষ্টকালের এ কর্মবিরতি শুরু হবে। গতকাল রাজধানীর তেজগাঁওয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে পরিষদের আহ্বায়ক মো. রুস্তম আলী খান বলেন, সড়ক পরিবহন আইন স্থগিত করে মালিক শ্রমিকদের আয়ের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে জরিমানার বিধান ও দ- উল্লেখ করে একটি ‘যুগোপযোগী বাস্তবসম্মত ও বিজ্ঞানভিত্তিক সঠিক আইন প্রণয়ন করতে হবে। সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সদস্য সচিব তাজুল ইসলাম, যুগ্ম আহ্বায়ক মকবুল আহমদ এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তালুকদার মো. মনিরসহ পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, লাইট লাইসেন্স দিয়ে ভারী গাড়ি চালানো যায় না। কিন্তু ভারী গাড়ি চালানোর জন্য বিআরটিএ লাইসেন্সও দিচ্ছে না। লাইট লাইসেন্স দিয়ে ভারী গাড়ি চালাতে  গেলেই জরিমানা করা হচ্ছে ২৫ হাজার টাকা। এই টাকা একজন শ্রমিক কীভাবে দেবে? তাই চালকরা গাড়ি চালাবেন না।

নতুন সড়ক আইন কার্যকরে চলছে গণপরিবহন সংকট : নতুন সড়ক পরিবহন আইন কার্যকরের দ্বিতীয় দিন গতকালও ঢাকার সড়কে অন্যান্য দিনের তুলনায় গণপরিবহন কম ছিল। এতে সকাল থেকেই দুর্ভোগে পড়তে হয় সাধারণ যাত্রীদের। বিভিন্ন সড়কে স্কুল-কলেজ ও অফিসগামী মানুষের ভিড় বেশি লক্ষ্য করা যায়। বাস না পেয়ে অনেকে রিকশা-ভ্যান, সিএনজি ও মোটরসাইকেলে করে গন্তব্যে পৌঁছান। রবিবার থেকে নতুন সড়ক পরিবহন আইন কার্যকরের ঘোষণার পর দিনই তা বাস্তবায়নে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায় বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) ভ্রাম্যমাণ আদালত। সেদিন থেকেই অনেকটা অঘোষিতভাবেই বাস চলাচল কমেছে বলে জানিয়েছেন ট্রাফিক পুলিশ ও বাস মালিকরা। এতে বিপাকে পড়েছেন যাত্রীরা। তবে ঢাকার সড়ক কিছুটা ফাঁকা ছিল।

আর নতুন আইন কার্যকরে মানিক মিয়া এভিনিউয়ে সংসদ সদস্যদের ভবনের সামনের রাস্তায় গতকাল বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। এ সময় ১১টি গাড়িকে বিভিন্ন অঙ্কের জরিমানা করা হয়। 

মিরপুর শেওড়াপাড়ার বাসা থেকে প্রতিদিন কারওয়ানবাজারে অফিস করেন আবদুস সালাম। অফিসে যেতে সকাল সাড়ে ৮টায় বাসা থেকে বের হন তিনি। অন্যান্য দিনের চেয়ে গতকাল বাস পেতে অনেক সময় লেগেছে তার। রামপুরা ব্রিজ বাসস্ট্যান্ডে যাত্রীর সংখ্যা অনেক বেশি ছিল। তবে বাস ছিল কম। ভিড় ঠেলে বাসে উঠতে হয়েছে গুলিস্তান-মতিঝিলগামী মানুষদের। তবে ব্যক্তিগত গাড়ি ব্যবহারকারীরা রাস্তায় যানজট কম পেয়েছেন। বাড্ডা, রামপুরা, কারওয়ানবাজার, মগবাজার, পল্টন, গুলিস্তান ও গুলশান এলাকা ঘুরে দেখা গেছে এসব চিত্র।  মোহাম্মদপুর থেকে উত্তরাগামী আর্ক পরিবহনের মালিক মজিবুর রহমান জানান, তাদের ৩০টি বাসচালক সংকটের কারণে ১৫ দিন ধরে চলাচল বন্ধ রয়েছে। বিআরটিএ থেকে ভারী যান চালানোর লাইসেন্স দেওয়া বন্ধ। তাই বাস চালানোর জন্য চালক পাওয়া যাচ্ছে না।

সিদ্ধান্ত ছাড়াই শেষ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক, আজ আবার বসবেন : নতুন সড়ক পরিবহন আইন সংশোধনের দাবি জানিয়ে গতকাল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বসা পরিবহন শ্রমিক নেতাদের বৈঠক কোনো সিদ্ধান্ত ছাড়াই শেষ হয়েছে। আজ আবারও মন্ত্রীর সঙ্গে এ নিয়ে বৈঠক হবে। গতকাল রাত ৯টা থেকে ১০টা পর্যন্ত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর মনিপুরীপাড়ার বাসায় এ অনানুষ্ঠানিক বৈঠক হয়। বুধবার সকাল ৬টা থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতির ঘোষণা দেয় বাংলাদেশ ট্রাক কাভার্ড ভ্যান ঐক্যপরিষদ। এ বিয়ষটি সুরাহা করতেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে এ মতবিনিময় বৈঠকে বসেন বাংলাদেশ ট্রাক কাভার্ড ভ্যান ঐক্যপরিষদের নেতারা। বৈঠক সূত্রে জানা যায়, আজ সারা দেশ থেকে নেতারা ঢাকায় আসবেন এবং মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করবেন।’


আপনার মন্তব্য