শিরোনাম
সোমবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২৩ ০০:০০ টা

রংধনু গ্রুপের রফিকের বিরুদ্ধে দুদকে অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক

রংধনু গ্রুপের রফিকের বিরুদ্ধে দুদকে অভিযোগ

ব্যাংক জালিয়াতির মাধ্যমে ২৭০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে রংধনু গ্রুপের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) অভিযোগ করেছেন আইয়ুব হোসেন নামের এক সাংবাদিক। অভিযোগে বলা হয়, ২০২২ সালে বিক্রি হয়ে যাওয়া রাজধানীর জোয়ারসাহারা, ভাটারা ও গুলশান মৌজার ৩৩৭.৫৯ শতাংশ জমির দলিল চলতি বছর বন্ধক রেখে রংধনু গ্রুপের চেয়ারম্যান ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের বসুন্ধরা শাখা থেকে এ ঋণ নেন। তিন দফায় এ ঋণ ছাড় করা হলেও টাকা কোথায় বিনিয়োগ করা হয়েছে সে বিষয়ে তথ্য নেই ব্যাংক কর্তৃপক্ষের কাছে। অথচ ওই জমিতে গিয়ে জানা যায়, সেখানে অন্য মালিকরা ভোগদখলে আছেন। এমনকি বসুন্ধরা এলাকার জমি বন্ধক রেখে ঋণ নেওয়ার আগে ইস্ট-ওয়েস্ট প্রপার্টি ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডের অনাপত্তিপত্রও নেয়নি রংধনু গ্রুপ। বিষয়টি অনুসন্ধান করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য গতকাল দুদকে অভিযোগটি দায়ের করেন তিনি। জানা গেছে, চলতি বছরের ২২ জুন রংধনু গ্রুপের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম, তার ছেলে মেহেদী হাসান দীপু, কাউসার আহমেদ অপু ও মালিহা হোসেন জোয়ারসাহারা, ভাটারা ও গুলশান মৌজার ৩৩৭ দশমিক ৫৯ ডেসিমাল জমি বন্ধক রেখে ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের বসুন্ধরা শাখা থেকে ২৭০ কোটি ঋণ নিয়েছেন। এর মধ্যে ভাটারা মৌজার চারটি প্লটে রফিকুল ইসলামের বিক্রি করে দেওয়া ৯৩ দশমিক ৮৭ শতাংশ জমিও রয়েছে। রফিকুল ইসলাম যেসব জমি বন্ধক রেখে ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েছেন। সেখানে মূল মালিক আবুল কাশেমের ড্রিমওয়ে হোল্ডিংস লিমিটেড বহুতল ভবন নির্মাণের সাইনবোর্ড টাঙানো রয়েছে। নির্মাণ চলছে আরেক মালিক তামান্না সুলতানার বহুতল ভবনও। অথচ রফিক জমি বিক্রির তথ্য গোপন রেখেই এ বছরের ২২ জুন ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের বসুন্ধরা শাখা থেকে ঋণ নিয়েছেন ২৭০ কোটি টাকা।

সর্বশেষ খবর