শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ৮ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৭ মে, ২০২১ ২৩:৫০

ছোটা রাজনের মৃত্যুর গুঞ্জন দিল্লি পুলিশের অস্বীকার

ছোটা রাজনের মৃত্যুর গুঞ্জন দিল্লি পুলিশের অস্বীকার
Google News

করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু আন্ডারওয়ার্ল্ড দল ছোটা রাজনের! গতকাল ভারতের সংবাদমাধ্যমে এমনটাই খবর ছড়ায়। তবে ছোটা রাজনের মৃত্যু সংবাদ বাতিল করে দিয়েছে পুলিশ ও চিকিৎসা কেন্দ্র এইমস। হাসপাতাল জানিয়েছে, এখন তিনি বেঁচে আছেন। আইসিইউতে রয়েছেন রাজন। রাজধানী দিল্লির হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। জানা গেছে, এপ্রিলের ২৬ তারিখ থেকে দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সার্ভিস (এইমস) -এ ভরতি ছিলেন রাজেন্দ্র সদাশিব নিকালজে ওরফে ছোটা রাজন। হাসপাতাল সূত্রে খবর, করোনা আক্রান্ত হওয়ায় তাঁর একাধিক অঙ্গ কাজ করছে না। চিকিৎসায় আশানুরূপ সাড়া দিচ্ছেন না তিনি। ২০১৫ সালে ইন্দোনেশিয়া থেকে গ্রেফতার করা হয় রাজনকে। ‘ডি-কোম্পানি’র হিট লিস্টে ছিলেন রাজন। একাধিকবার তাঁকে হত্যা করার চেষ্টা করেছে দাউদ ইব্রাহিমের ঘনিষ্ঠ তথা অন্যতম সেনাপতি ছোটা শকিল। করাচি থেকে রাজনকে হত্যার নির্দেশ দেন দাউদ। উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে সাংবাদিক জ্যোতির্ময় দে হত্যাকান্ডে রাজনসহ নয় দোষীর যাবজ্জীবন কারাদন্ড হয়েছে। তারপর থেকেই দিল্লির তিহার জেলে রাখা হয়েছিল তাকে। জানা যায়, দাউদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা রয়েছে সাংবাদিক জ্যোতির্ময় দে-র। এমনটাই সন্দেহ করেছিলেন ছোটা রাজন। দাউদের নির্দেশেই তাঁর বিরুদ্ধে সংবাদ লিখতেন জ্যোতির্ময়, বলেই মনে করতে রাজন। এমন কী তাকে খুন করতে ডি-কোম্পানির চক্রান্তে মদদ দিচ্ছেন ওই সাংবাদিক বলেও সন্দেহ ছিল রাজনের। ফলে জ্যোতির্ময়কে হত্যা করেন। উল্লেখ্য, ক্রাইম জার্নালিস্ট হিসেবে যথেষ্ট নাম ছিল জে দে-র। তাঁর লেখা অন্যতম বিখ্যাত বই হল ‘জিরো ডায়াল’। যে সময় ওই সংবাদিককে হত্যা করা হয়, সেই সময় তিনি ছোটা রাজনকে নিয়েই তাঁর বইটি লিখছিলেন। মহারাষ্ট্রে চাঁদাবাজি ও হত্যার অন্তত ৭০টি মামলার আসামি ছোটা রাজন।