Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
প্রকাশ : শুক্রবার, ১১ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ জানুয়ারি, ২০১৯ ২৩:৪৫

বসুন্ধরায় মেশিনারিজ মেলা

অটো সুইচে চলবে কারখানা

নিজস্ব প্রতিবেদক

অটো সুইচে চলবে কারখানা

উৎপাদন ক্ষমতা বৃদ্ধির অত্যাধুনিক মেশিনারিজ নিয়ে রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) চলছে মেলা। কম্পিউটারাইজ মেশিনারিজ দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করা যাবে পুরো কারখানার উৎপাদন কর্মকা-। সুতা উৎপাদন থেকে পোশাক তৈরি, প্রিন্ট হবে মাত্র একটি সুইচে। এসব মেশিন একজন অপারেটরের নিয়ন্ত্রণে কাজ করবে। এক ঘণ্টায় তৈরি হবে এক হাজার পিস পোশাক। পোশাকের সঙ্গে নিমেষেই তৈরি হবে পছন্দের ডিজাইনের প্রিন্ট প্যাকেজিং। এসব গার্মেন্ট মেশিনারিজকে মালিক ও সংশ্লিষ্টদের কাছে আরও পরিচিত করতে চার দিনব্যাপী মেলা বসেছে। গতকাল প্রদর্শনীর দ্বিতীয় দিন গিয়ে দেখা গেছে, হাজার হাজার দর্শনার্থীর ভিড়ে মুখরিত মেলাপ্রাঙ্গণ। প্রতিটি স্টলে কর্মীদের সঙ্গে কথা বলছেন তারা। জেনে নিচ্ছেন মেশিনারিজের দাম থেকে শুরু করে ব্যবহার, উৎপাদন ক্ষমতা থেকে খুঁটিনাটি সব। মেলার এমনই একটি স্টলে পসরা সাজিয়ে বসেছে গোল্ডেন বয়লার কোম্পানি। স্টলকর্মীর সঙ্গে কথা বললে তিনি জানান, প্রতি ঘণ্টায় ৫০০ কেজি ধারণক্ষমতার একটি বয়লার মেশিনের দাম ২০ লাখ টাকা। স্টলে বুকিং দেওয়া যায়। নিজস্ব প্রকৌশলীরা গিয়ে কারখানায় স্থাপন করে দেবেন বয়লার।

এখানে রয়েছে এক টন থেকে ছয় টন থ্রি প্রেস স্টিম বয়লার, ৬০ থেকে এক হাজার কেজির টিউবলেস প্যাকেজড স্টিম বয়লার। কেজির ওপর নির্ভর করবে এসব বয়লারের দাম। আরেক প্রতিষ্ঠান জি এম গ্রান্ড নিয়ে এসেছে রোলার ডিভাইস। তুরস্কের কোম্পানি উৎপাদিত এসব মেশিন ঘণ্টায় এক হাজার পিস পণ্য রোলিং করতে সক্ষম। ট্রাউজার উৎপাদনে ব্যবহৃত হয় রোলিং ডিভাইস। নেদারল্যান্ডসের এল এস এম নিয়ে এসেছে বাটনহোল মেশিন। অত্যাধুনিক এ মেশিনে উৎপাদন হবে হাতের কোনো ধরনের ব্যবহার ছাড়াই। এসব মেশিনের সুইং স্পিড মিনিটে ১৬৫০। পাওয়ার ওয়ার্ল্ড নিয়ে এসেছে জেনারেটিং সেটস। কারখানার পাওয়ার সমস্যা সমাধানে আধুনিক এসব মেশিন দ্রুত কাজ করবে। পোশাকশিল্পের মেশিনারিজ এবং এর সহায়ক পণ্যের দুটি আলাদা প্রদর্শনীতে ৩৭টি দেশের ১২০০ কোম্পানি অংশ নিয়েছে। মেলায় বিভিন্ন মেশিনারিজ কোম্পানির সঙ্গে সেসব কোম্পানির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও প্রকৌশলীরা এসেছেন। কোম্পানির প্রকৌশলীরা মেলায় আসা গার্মেন্ট কোম্পানির মালিক ও টেকনিশিয়ানদের মেশিন সম্পর্কে এবং অন্যান্য বিষয়ে বুঝিয়ে দিচ্ছেন। গার্মেন্ট মেশিনারিজ, যন্ত্রাংশ, ফ্যাব্রিকস ও কাঁচামাল সম্পর্কে দেশের গার্মেন্ট-সংশ্লিষ্টদের ধারণা দিতেই এ মেলার আয়োজন করা হয়েছে বলে জানিয়েছে মেলা আয়োজক কমিটি। তারা জানায়, এ মেলায় যেসব মেশিন উঠেছে এর বেশির ভাগই রোবোটিক। হাতের মাধ্যমে কোনো কাজ হবে না। যা করার সবই করবে মেশিন। ফলে একজন শ্রমিক যখন ঘণ্টায় ১০টি কাপড় তৈরি করবে, তখন মেশিন তৈরি করবে ২০টি। এ ছাড়া এসব মেশিন শ্রমিক সাশ্রয় করবে। ফলে একই কাজের অন্য মেশিন চালাতে পাঁচজন শ্রমিকের প্রয়োজন হলেও অটোমেটিক এসব মেশিনের তা প্রয়োজন হবে না। কোনো শ্রমিক ছাড়াই শুধু কম্পিউটার ডিজাইন দিয়ে নির্দেশনা দিলেই মেশিনগুলো কাজ করবে ঘণ্টার পর ঘণ্টা। মেলায় যেসব মেশিন এসেছে, এর সবই আপডেটেড এবং আধুনিক প্রযুক্তিসমৃদ্ধ। চার দিনব্যাপী মেলা সবার জন্য উন্মুক্ত।


আপনার মন্তব্য