Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ জানুয়ারি, ২০১৯ ২৩:০০

ব্রেক্সিট ইস্যু

টিকে গেলেও কঠিন চ্যালেঞ্জে তেরেসা মে সরকার

প্রতিদিন ডেস্ক

টিকে গেলেও কঠিন চ্যালেঞ্জে তেরেসা মে সরকার

ব্যক্তি স্বার্থের ঊর্ধ্বে ওঠে ঐক্যবদ্ধভাবে গঠনমূলক কাজে নিয়োজিত হওয়ার জন্য ব্রিটিশ এমপিদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে। ব্রেক্সিট চুক্তি ভোটে হেরে বুধবার সরকারের প্রতি অনাস্থা প্রস্তাব নাকচ হওয়ার পর টিকে যাওয়া প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে সব বিরোধী দলের সদস্যদের এক বৈঠকে এ আহ্বান জানান। তেরেসা মের সরকারের বিরুদ্ধে আনা অনাস্থা প্রস্তাবের ওপর বুধবার সন্ধ্যায় ভোটাভুটি হয়। এতে ৩২৫ জন আইনপ্রণেতা তেরেসা মের সরকারের পক্ষে ভোট দেন। বিপক্ষে ভোট দিয়েছেন ৩০৬ জন। ভোটে টিকে যাওয়ায় সরকারে বহাল থাকছেন তেরেসা মে। এর আগে গত মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে সম্পাদিত ব্রেক্সিট চুক্তি প্রত্যাখ্যান করেন দেশটির আইনপ্রণেতারা। এতে বড় ধরনের ধাক্কা খায় তেরেসা মের সরকার। ব্রেক্সিট চুক্তি পাসে ব্যর্থ হওয়ার সুযোগ নিয়ে প্রধান বিরোধী দল লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন তাৎক্ষণিকভাবে সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব উত্থাপন করেন। সংসদের অন্যান্য বিরোধী দল লিবারেল ডেমোক্র্যাটস, স্কটিশ ন্যাশনালিস্ট পার্টি, প্লাইড কামরি ও গ্রিন পার্টি এই অনাস্থা প্রস্তাবে সমর্থন করে। তবে শেষ পর্যন্ত ভোটাভুটিতে টিকে যান মে। বুধবার রাতে ভোটের পর লিবারেল ডেমোক্র্যাটস, স্কটিশ ন্যাশনালিস্ট পার্টি, প্লাইড কামরির সঙ্গে বৈঠক করেন তেরেসা মে। তবে ওই বৈঠকে লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন ছিলেন না। বৈঠকে তেরেসা বলেন, ‘আমি অত্যন্ত হতাশ যে  লেবার পার্টির নেতা এখন পর্যন্ত অংশ নিতে চাননি। কিন্তু আমাদের দরজা সব সময় খোলা।’ এর আগে জেরেমি করবিন এক বিবৃতিতে বলেছিলেন, যে কোনো ‘ইতিবাচক আলোচনা’ হওয়ার আগে প্রধানমন্ত্রীকে ‘কোনো চুক্তি ছাড়া ব্রেক্সিট’ এই চিন্তা বাদ দিতে হবে। এ বিষয়ে বিবিসির রাজনীতিবিষয়ক সম্পাদক লরা কুইন্সবার্গ বলেন, ‘যুক্তরাজ্য একটি পরিচালিত প্রক্রিয়ার মাধ্যমে যাবে’, সরকারের পক্ষ থেকে এই রকম কোনো বিবৃতি না পেলে করবিন কোনো ধরনের সংলাপে যাবেন না বিষয়ে লেবার পার্টি একদম নিশ্চিত।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর