Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper

শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ৩ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ নভেম্বর, ২০১৯ ২৩:৩৩

দুর্ঘটনায় চালক হেলপারের দায় নেবেন না মালিকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক

দুর্ঘটনায় চালক হেলপারের দায় নেবেন না মালিকরা

সড়কে দুর্ঘটনা ঘটলে চালক কিংবা হেলপারের দায় নেবেন না পরিবহন মালিকরা। সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ বাস্তবায়ন নিয়ে গতকাল আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানিয়েছে পরিবহন মালিক সমিতি। একই সঙ্গে সংগঠনটির পক্ষ থেকে বলা হয়, নতুন আইন ভঙ্গের কথা বলে যেন কাউকে হয়রানি করা না হয়।

রাজধানীর শাহবাগে ইউনিক হাইটস ভবনে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এ সময় আরও বলা হয়, বড় অঙ্কের জরিমানা এ খাতের অগ্রগতিতে বাধা হয়ে দাঁড়াবে। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য দেন সংগঠনের সভাপতি ও জাতীয় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা। সংগঠনের মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, নতুন আইনে এখনো বিধিমালা প্রণয়ন করা হয়নি। বিধিমালা প্রণয়ন ছাড়া এ আইন স্বয়ংসম্পূর্ণতা পাবে না। খুব অল্প সময়ের মধ্যে বিধিমালা চূড়ান্ত করা প্রয়োজন। আর দুর্ঘটনার জন্য এককভাবে কাউকে দায়ী না করে সঠিক তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত দোষীকে চিহ্নিত করা উচিত। পৃথিবীর উন্নত দেশগুলোতে তাই করা হয়। দুর্ঘটনার মামলা যাতে ৩০৪ (খ) ধারার পরিবর্তে ৩০২ ধারায় করা না হয়। তদন্তে যদি প্রমাণিত হয় ড্রাইভার কাউকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে হত্যা করেছে সেক্ষেত্রে ৩০৪ (খ) ধারা ৩০২ ধারায় স্থানান্তর হলে আপত্তি নেই। এক প্রশ্নের উত্তরে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ বলেন, কীভাবে চালক বা শ্রমিকের দায়ভার নেব? আমাদের দায়িত্ব হলো একটা চালককে নিয়োগ দেওয়ার পূর্বে তার লাইসেন্স সঠিক আছে কিনা এটা যাচাই করে নেওয়া। আর কেউ কোনো চালকের দায় নিতে পারে না। একই সঙ্গে দেশে ভালো চালক বেছে নেওয়ারও তো সুযোগ  নেই। যেখানে লাখ লাখ চালকের স্বল্পতা। এই বাস্তবতা আমাদের সবাইকে বুঝতে হবে। কাজেই আমরা সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য কাজ করে যাচ্ছি। আমরা প্রত্যেক জেলার বিআরটিএকে বলেছি, আপনারা চালকদের প্রশিক্ষিত করার ব্যবস্থা করেন।  নতুন আইনে পূর্ণ সমর্থনের কথা জানিয়ে তিনি বলেন, এই আইনের ৮৪ ধারায় মোটরযান কর্তৃক নির্ধারিত মাপের চাইতে বড় আকারে বডি করা হলে মারাত্মক অপরাধ। ৩ লাখ টাকা জরিমানা এক বছরের কারাদ । গুরুতর অপরাধে দি ত করা হোক আমাদের সে জায়গায় দ্বিমত নেই। তবে আমরা ৩-৪টা ব্যাপারে সংশোধনী দিয়েছি। যেগুলো একদিনে হয়তো বাস্তবায়ন সম্ভব নয়, পর্যায়ক্রমে হবে। যেমন বেশ কিছু অপরাধে যে শাস্তি, তা অজামিনযোগ্য। এমনিতেই আমাদের দেশে চালকের সংকট আছে। যদি এভাবে দুর্ঘটনার পরই চালককে গ্রেফতার করা হয়, তাহলে সংকট আরও বাড়বে। বর্তমানে আমাদের ৭-৮ লাখ চালকের অভাব রয়েছে। নতুন আইনের কারণে এ সংখ্যা আরও বাড়বে।


আপনার মন্তব্য