শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:১৮

টিকা নিলেন ২৩ লাখ মানুষ

দ্বিতীয় চালানের ২০ লাখ ডোজ দেশে পৌঁছেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক

টিকা নিলেন ২৩ লাখ মানুষ

সারা দেশে এক দিনে ২ লাখ ২৫ হজার ২৮০ জন টিকা নিয়েছেন। গতকাল টিকা নেওয়া এসব মানুষের মধ্যে ১ লাখ ৩৯ হাজার ৭৮০ জন পুরুষ আর ৮৫ হাজার ৫০০ জন নারী। গত ২৭ জানুয়ারি টিকা উদ্বোধনের পর ২৫ দিনে দেশে টিকা নিয়েছেন ২৩ লাখ ৮ হাজার ১৫৭ জন।

এদিকে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে সরকারের কেনা টিকার দ্বিতীয় চালানের ২০ লাখ ডোজ দেশে পৌঁছেছে। গত রাত সাড়ে ১২টায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে স্পাইস জেড এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে মুম্বাই থেকে এই চালান আসে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমারজেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম সূত্রে জানা যায়, এ পর্যন্ত মোট টিকাগ্রহীতার সংখ্যা ২৩ লাখ ৮১ হাজার ৫৭০ জন। এর মধ্যে ১৫ লাখ ১৮ হাজার ৭১৫ জন পুরুষ ও ৭ লাখ ৮৯ হাজার ৪৪২ জন নারী। সামান্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা গেছে ৬০৯ জনের মধ্যে। গতকাল ঢাকা বিভাগে ৬৯ হাজার ৯৩৮ জন, ময়মনসিংহ বিভাগে ১০ হাজার ১৪ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ৪৯ হাজার ২৮১ জন, রাজশাহী বিভাগে ২২ হাজার ৬৭০ জন, রংপুর বিভাগে ২০ হাজার ৩১৮ জন, খুলনা বিভাগে ৩০ হাজার ৪৬৬ জন, বরিশাল বিভাগে ১০ হাজার ৬৩১ জন, সিলেট বিভাগে ১১ হাজার ৯৬২ জন টিকা নিয়েছেন। রাজধানীতে টিকা নিয়েছেন ২৯ হাজার ৪৪১ জন। এর মধ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) টিকা নিয়েছেন ১ হাজার ৩১৬ জন, সরকারি কর্মচারী হাসপাতালে ১ হাজার ১৬৪ জন, কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে ১ হাজার  ৯৫০ জন, সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতালে ৪৯০ জন, কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী হাসপাতালে ৬৬৮ জন, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ১ হাজার ২৪০ জন, ঢাকা মেডিকেল কলেজ  হাসপাতালে ১ হাজার ৭৮ জন। টিকা নেওয়ার পর ৩১ জনের মধ্যে মৃদু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, গতকাল পর্যন্ত টিকা নিতে নিবন্ধন করেছেন ৩৪ লাখ ৪৪ হাজার ৯০৮ জন। প্রতিদিন বাড়ছে নিবন্ধনকারীদের ভিড়। দেশব্যাপী টিকা কেন্দ্রগুলোতে সুশৃঙ্খলভাবে চলছে টিকাদান। হৃদরোগ ইনস্টিটিউট হাসপাতালের টিকা কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, সৃশৃঙ্খলভাবে চলছে টিকাদান। টিকা নিয়ে অপেক্ষা করছিলেন ৬৮ বছর বয়সী সাবেক সরকারি কর্মকর্তা মীর মাহবুব আলী। তিনি বলেন, করোনা সংক্রমণ শুরুর পর সকালে হাঁটা বন্ধ হয়ে যায়। নিয়মিত জীবনযাপনে বাধা পড়ে। এ পরিস্থিতিতে বাড়তে থাকে ডায়াবেটিসের মাত্রা। উপায় না পেয়ে করোনা ভয় নিয়েই হাঁটতে বের হচ্ছিলাম। দেশে টিকাদান শুরু হলেই নিবন্ধন করি। এসএমএস করে টিকা কেন্দ্র ও তারিখ নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়েছিল। সে অনুযায়ী এসে টিকা নিলাম। আমাদের বয়সী মানুষের ভিড় বেশি দেখলাম টিকা কেন্দ্রে। টিকা গ্রহণে ব্যাপক সাড়া মিলছে। আগে যাদের মধ্যে কিছুটা ভয়ভীতি ছিল তারাও এখন আগ্রহী হয়ে নিবন্ধন করে টিকা নিচ্ছেন। টিকা গ্রহণে বয়সসীমা নামিয়ে আনাসহ সরকারের বেশকিছু পদক্ষেপে সহজ হয়েছে টিকা গ্রহণ পদ্ধতি। এজন্য কেন্দ্রগুলোতে বাড়ছে টিকাগ্রহীতাদের ভিড়।


আপনার মন্তব্য