শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩১ অক্টোবর, ২০১৯ ২৩:৫৯

ভ্রাম্যমাণ আদালতে সাজাপ্রাপ্ত শিশুদের মুক্তির নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক

ভ্রাম্যমাণ আদালতে সাজাপ্রাপ্ত শিশুদের মুক্তির নির্দেশ

ভ্রাম্যমাণ আদালতের দেওয়া দন্ডে যশোর ও টঙ্গীর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে বন্দী ১২ বছর বয়সের নিচের শিশুদের অবিলম্বে মুক্তির নির্দেশ দিয়েছেন হাই কোর্ট। টঙ্গী ও যশোর কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়কদের প্রতি এ নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে ১২ বছরের ঊর্ধ্ব থেকে ১৮ বছর বয়সী বন্দী শিশুদের হাই কোর্ট ৬ মাসের জামিন দিয়েছে। সংশ্লিষ্ট এলাকার শিশু আদালতের সন্তুষ্টি সাপেক্ষে এদের মুক্তি দিতে বলা হয়েছে। পত্রিকায় প্রকাশিত এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন আমলে নিয়ে গতকাল বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি মো. মাহমুদুর হাসান তালুকদারের সমন্বয়ে গঠিত হাই কোর্ট বেঞ্চ স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে রুলসহ এ আদেশ দেয়।

আদেশে ভ্রাম্যমাণ আদালত যেসব মামলায় এসব শিশুর দন্ড দিয়েছে, সেসব মামলার নথি সংশ্লিষ্ট ম্যাজিস্ট্রেটকে আলাদা-আলাদাভাবে আগামী সাত কর্মদিবসের মধ্যে হাই কোর্টে দাখিল করতে বলা হয়েছে।

‘আইনে মানা, তবু ১২১ শিশুর দন্ড’ শিরোনামে একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত প্রতিবেদনটি আদালতের নজরে আনেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার আবদুল হালিম।

রুলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে শিশুদের দেওয়া দন্ড ও আটকাদেশ কেন আইনগত কর্তৃত্ববহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়েছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, আইন মন্ত্রণালয়, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়, নারী ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, র‌্যাবের মহাপরিচালক, টঙ্গী ও যশোরের শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়ক, সমাজসেবা অধিদফতরের মহাপরিচালক, র‌্যাব সদর দফতরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম, র‌্যাব-৩ টিকাটুলির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আক্তারুজ্জামান, র‌্যাব-৪ মিরপুর-১-এর আইন কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিজাম উদ্দিন আহমেদসহ বিবাদীদের এ রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। আগামী ১৮ নভেম্বর পরবর্তী আদেশের জন্য দিন রাখা হয়েছে।


আপনার মন্তব্য