Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১১ মে, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ মে, ২০১৯ ২১:২৪

নেত্রকোনার বিরিশিরি

শনিবারের সকাল ডেস্ক

নেত্রকোনার বিরিশিরি

সাদা মাটির দেশ বিরিশিরি। সীমান্ত-ঘেঁষা সাদা মাটির পাহাড়, দেখতে সাদা, ধূসর আর খানিক লালচে রঙের। ঢাকা থেকে মাত্র ১৮০ কিলোমিটার দূরে নেত্রকোনা জেলার দুর্গাপুর উপজেলায় অবস্থিত। বর্ষায় স্থানীয় সোমেশ্বরী নদী পানিতে কানায় কানায় পূর্ণ থাকে। তাই সোমেশ্বরী নদীকে বিরিশিরির প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের মধ্যমণি বলা হয়। প্রাকৃতিক রূপের বাইরেও এখানে রয়েছে নৃ-গোষ্ঠী জাদুঘর। তাই আসন্ন বর্ষায় সময়-সুযোগ মিলিয়ে সদলবলে ঘুরে আসুন বিরিশিরি।

 

বিরিশিরি, ভারত-বাংলাদেশের সীমান্ত ঘেঁষা নেত্রকোনা জেলার দুর্গাপুর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী গ্রাম। যা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এক স্বপ্নভূমি। স্থানীয় বিজয়পুরে আকর্ষণীয় চীনামাটির পাহাড় এবং নীল পানির হ্রদ সহসাই নজর কাড়ে ভ্রমণপিয়াসীদের। সবুজ আর নীলের মিশেলে অ™ভুত-রঙা হ্রদ। অপরূপ এই নীল জলের প্রধান উৎস সোমেশ্বরী নদী। বর্ষাকালে সোমেশ্বরী নদী তার রূপ দেখায়। তখন কানায় কানায় পূর্ণ থাকে সোমেশ্বরী নদী। নদীর তীরের কাশবন আর গাঢ় পাহাড়ের সৌন্দর্য বিরিশিরিকে করেছে অনন্যা। বিজয়পুর সীমান্ত ঘেঁষা সাদামাটির পাহাড় বা দুর্গাপুর চীনামাটির পাহাড় পর্যটকদের দারুণভাবে আকর্ষিত করে। যা দেখতে সাদা, ধূসর আর খানিক লালচে রঙের। পাহাড়ের চারপাশের সাদা মাটি যেন হৃদের পানির রংকে গাঢ় করে দিয়েছে। বিরিশিরিতে চীনামাটির পাহাড়, নীল জলের হ্রদ, সোমেশ্বরী নদী ছাড়াও আছে রানীখাং গির্জা, কমলা রানীর দীঘি, রাজা সুসংয়ের রাজমহল, দাশা-বুশা মন্দির, রামকৃষ্ণ মন্দির, লোকনাথ মন্দির এবং সেন্ট যোসেফ গির্জা। পাহাড়ি সংস্কৃতি ও স্থানীয় বনই, বুনা, গারো, মান্দি, হাজং, নৃ-গোষ্ঠীদের জীবনযাপন আগত পর্যটকদের রোমাঞ্চিত করে।

কীভাবে যাবেন

মহাখালী বাস টার্মিনাল থেকে সরাসরি নেত্রকোনা। এরপরের গন্তব্য দুর্গাপুর। সেখান থেকে বাস বা অটোরিকশাতে মাত্র ২৫ মিনিটের পথ। মহাখালী থেকে সরাসরিও যেতে পারেন দুর্গাপুর।

কোথায় থাকবেন

দুর্গাপুরে এসি/নন এসি সব ধরনের হোটেলই রয়েছে। তবে এগুলোর জন্য খরচ হবে। এ ছাড়া কালচারাল একাডেমির গেস্ট হাউসে থাকা যাবে। চাইলে এখানে তাঁবু খাটিয়ে নিতে পারেন।


আপনার মন্তব্য