Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১ মার্চ, ২০১৯ ২২:৫৩

শেখ জামাল-প্রাইম দোলেশ্বর ফাইনাল

ক্রীড়া প্রতিবেদক

শেখ জামাল-প্রাইম দোলেশ্বর ফাইনাল

দুপুরে ব্যাট হাতে ঝড় তুলেছেন জিয়াউর রহমান। সন্ধ্যায় বল ও ব্যাট হাতে ফরহাদ রেজা। দুজনেই বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক ক্রিকেটার। দুজনেই অলরাউন্ডার। দুই অলরাউন্ডারের ব্যাটিং ও বোলিং পারফরম্যান্সেই প্রিমিয়ার ক্রিকেটের টি-২০ ফাইনালে উঠেছে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব ও প্রাইম দোলেশ্বর। জামাল ৫ উইকেটে শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাবকে এবং দোলেশ্বর ৬ উইকেটে প্রাইম ব্যাংককে হারায়। ক্লাব দুটি মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে ফাইনালে মুখোমুখি হবে আগামীকাল সন্ধ্যা ৬টায়। বাংলাদেশ ক্রিকেটের বহুদিনের আক্ষেপ একজন সিমিং অলরাউন্ডারের। জিয়াউর রহমানকে ঘিরে সেই আক্ষেপ মেটানোর স্বপ্ন দেখেছিল টিম ম্যানেজমেন্ট। টাইগারদের জার্সি গায়ে জিয়া টেস্ট খেলেছেন একটি, ওয়ানডে ১৩টি ও টি-২০ ১৪টি। টেস্টে ১৪ রানের পাশাপাশি উইকেট নিয়েছেন ৪টি। ওয়ানডেতে ১২৪ রান ও ১০ উইকেট এবং টি-২০ ম্যাচে ১১৭ রানের পাশাপাশি উইকেট মাত্র ৩টি। যে স্বপ্œ নিয়ে পথ চলা শুরু করেছিলেন জিয়া, শেষ পর্যন্ত সেটা পূরণ করতে পারেননি। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে না পারলেও ঘরোয়া ক্রিকেটে এখনো উজ্জ¦ল। ছক্কা হাঁকানোর মাস্টার জিয়া গতকালও ছক্কার ঝড় তুলেছেন। তার ছক্কার ঝড়ে ল-ভ- হয়েছে শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাব। জিয়ার ২৯ বলে ২৪৮.২৭ স্ট্রাইক রেটের ব্যাটিং প্রিমিয়ার ক্রিকেট টি-২০ ক্রিকেটের ফাইনালে উঠেছে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব। ম্যাচসেরা জিয়ার ৭২ রানের টর্নেডো ইনিংসে ১৪ বল হাতে রেখে টুর্নামেন্টের প্রথম সেমিফাইনালে শেখ জামাল তুলে নিয়েছে ৫ উইকেটের সহজ জয়।  ১৮২ রানের টার্গেটে ৯ ওভারে ৬৫ রান তুলতেই ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলে শেখ জামাল। এরপর অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহানের সঙ্গে ১১৭ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়েন মাত্র ৫২ বলে! যা টি-২০ ক্রিকেটে বাংলাদেশের রেকর্ড। ৭ নম্বরে ব্যাট করতে নেমে জিয়া রুদ্রমূর্তি ধারণ করে ৭২ রানের ম্যাচজয়ী ইনিংসটি খেলেন মাত্র ২৯ বলে ৪ চার ও ৭ ছক্কায়। সোহানও ৪৩ রানের হার না মানা ইনিংসটি খেলেন ৩১ বলে ৪ চার ও এক ছক্কায়। দিনের প্রথম সেমিফাইনালে শাইনপুকুর প্রথমে ব্যাট করে ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৮১ রান সংগ্রহ করে। টি-২০ ক্রিকেটে যা বড় স্কোর বলেই বিবেচিত। প্রথম ওভারে রাকিবের বিদায়ের পর জুটি বাঁধেন সাব্বির হোসেন ও অধিনায়ক আফিফ হোসেন ধ্রুব। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে দুজনে ১১.৫ ওভারে যোগ করেন ১১৩ রান। ওপেনার সাব্বির সাজঘরে ফিরেন ৩ রানের আক্ষেপ নিয়ে। ব্যক্তিগত ৪৭ রানের ইনিংসটি খেলেন ৩২ বলে ২ চার ও ৩ ছক্কায়। অধিনায়ক আফিফ ৬৫ রানের নান্দনিক ইনিংসটি  খেলেন ৪১ বলে ৭ চার ও ৩ ছক্কায়। শেখ জামালের পক্ষে ২৮ রানে ৪ উইকেট নিয়ে সফল বোলার ছিলেন সালাউদ্দিন শাকিল।

সন্ধ্যার দ্বিতীয় সেমিফাইনালে প্রথমে ব্যাট করে প্রাইম ব্যাংকের সংগ্রহ ছিল ২০ ওভারে ৯ উইকেটে ১৭০। সর্বোচ্চ ৫৫ রান করেন অলক কাপালি এবং জাকির হোসেন খেলেন ৫২ রানের ইনিংস। প্রাইম দোলেশ্বরের অধিনায়ক টানা তিন বলে উইকেট নিয়েও ওয়াইডের জন্য হ্যাটট্রিক করতে পারেননি। তবে ৩২ রানের খরচে নেন ৫ উইকেট। ১৭১ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে দোলেশ্বর ফাইনাল নিশ্চিত করে ২ বল হাতে রেখে। ওপেনার সাইফ হাসান ৬১ ও মার্শাল আইয়ুব ৪৬ রান করেন। তবে ম্যাচসেরা ফরহাদ রেজা বোলিংয়ের পর ব্যাটিংয়েও ২৪ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন মাত্র ৮ বলে।


আপনার মন্তব্য