শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২০ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ এপ্রিল, ২০১৯ ২৩:৫২

ইতিহাস গড়ে বিপদে নারী বক্সার!

আমি বক্সিংয়ের সার্বজনীন পোশাক শর্টস ও টি-শার্ট পরে খেলেছিলাম, গোটা বিশ্বের চোখে যা খুবই স্বাভাবিক, কিন্তু আমার দেশ ইরান তা মেনে নিতে পারছে না

ইতিহাস গড়ে বিপদে নারী বক্সার!

বিদেশের মাটিতে প্রথমবারের মতো বক্সিংয়ে জিতে নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন ইরানের নারী বক্সার সাদাফ খাদেম। দেশের হয়ে বিরল এই গৌরব অর্জন করেই যেন বিপদ ডেকে এসেছেন। সাদাফের নামে ইরানে গ্রেফতারি পরওয়ানা জারি হয়ে গেছে। তেহরানে ফিরলেই তাকে এবং তার কোচ মাহিয়ার মনসিপুরকে  আটক করা হবে। এখন ফ্রান্সে অবস্থান করছেন সাদাফ ও তার কোচ।

২৪ বছর বয়সী নারী বক্সারের দোষ, তিনি বক্সিং প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার সময় মাথায় হিজাব পরেননি। উল্টো বক্সিংয়ের আন্তর্জাতিক নিয়ম মেনে শর্টস, টি-শার্ট পরেছিলেন। তা ছাড়া সাদাফের কোচ হিসেবে ছিলেন এক পুরুষ, যা ইরানের আইনে নিষিদ্ধ। ইরানের নিয়ম অনুযায়ী কোনো নারী অ্যাথলেটকে কোনো প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে হলে তাকে অবশ্যই ইসলামী পোশাক পরিধান করতে হবে। 

মিডিয়াকে সাদাফ বলেন, ‘আমি ফ্রান্সে যে ম্যাচে অংশ নিয়েছি তাতে অনুমোদন ছিল। কিন্তু আমি বক্সিংয়ের সার্বজনীন পোশাক শর্টস ও টি-শার্ট পরেছিলাম, গোটা বিশ্বের চোখে যা খুবই স্বাভাবিক, কিন্তু আমার দেশ তা মেনে নিতে পারছে না। তারা নাকি আমার কা-ে কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে গেছে। আমি কখনোই হিজাব পরিনি। তা ছাড়া আমার কোচও ছিলেন একজন পুরুষ। আমি জানি, ধীরে ধীরে সাধারণ মানুষও বাস্তবতা বুঝতে পারবে।’

সাদাফ খাদেম যে দেশে ফিরতে পারছেন না এ নিয়ে কোনো মাথা ব্যথা নেই ইরান বক্সিং ফেডারেশনের। তারা বরং গা বাঁচিয়ে চলছে। ফেডারেশনের প্রধান হোসেন সুরী তো সাদাফকে স্বীকারই করছেন না। তিনি বলেন, ‘সাদাফ আমাদের রেজিস্টার্ড বক্সার নয়। তা ছাড়া সে যে কাজ করেছে, সেটা সম্পূর্ণ তার ব্যক্তিগত। এতে ফেডারেশন কোনো ক্রমেই দায়ী নয়।’

কোচ মনসিপুরকে মেসেজের মাধ্যমে গ্রেফতারি পরওয়ানা পাঠিয়েও দেওয়া হয়েছে। তবে ইরানি ফেডারেশন দাবি করেছে, সাদাফ খাদেমের দেশে ফিরতে কোনো বাধা নেই, কিন্তু তার কৃতকর্মের জন্য তাকে শাস্তি পেতে হতে পারে।

মনসিপুর ইরান এবং ফ্রান্স দুই দেশেরই নাগরিক। তাই পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন ফ্রান্সের ক্রীড়া মন্ত্রীও। সাদাফ খাদেম জানিয়েছেন, ‘আমি দ্রুত পরিস্থিতির উন্নতি কামনা করছি। তবে ইরানের অন্য নারীদের আমি আহ্বান জানাব এমন প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে।’ ইরানের নারীরা ধীরে ধীরে বিভিন্ন ক্রীড়া ইভেন্টে অংশগ্রহণের সুযোগ পাচ্ছে। -দ্য গার্ডিয়ান


আপনার মন্তব্য