Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৭ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৬ এপ্রিল, ২০১৮ ২৩:৪২

ক্যান্সার চিকিৎসায় সুলভ সেবা

রেজা মুজাম্মেল, চট্টগ্রাম

ক্যান্সার চিকিৎসায় সুলভ সেবা

চট্টগ্রাম নগরের বাসিন্দা সোমা শীল (৩০)। ব্রেস্ট ক্যান্সার ছড়িয়ে পড়ে তার শরীরে। উন্নত চিকিৎসার জন্য যান ভারতে। সেখানকার চিকিৎসক ‘ক্যান্সার ছড়িয়ে পড়ায় ভালো হওয়ার সুযোগ নেই’ এমন পরামর্শে চলে আসেন দেশে। চিকিৎসা শুরু করেন চট্টগ্রাম মা-শিশু ও জেনারেল হাসপাতালের রেডিওলজি বিভাগের ‘ডে কেয়ার সেন্টারে’। সেখানে ধারাবাহিকভাবে সুলভমূল্যের চিকিৎসা নিয়ে তিনি এখন সুস্থ। সোমা শীলের স্বামী রাজেশ্বর শীল বলেন, ‘দেশে এসে প্রথমে প্রাইভেট ক্লিনিকে চিকিৎসা করি। সেখানে ব্যয়বহুল হওয়ার কারণে মা-শিশু হাসপাতালের ডে কেয়ার সেন্টারে যাই। সেখানে সুলভমূল্যে ওষুধ ও নানা চিকিৎসাসেবাসহ ধারাবাহিকভাবে ১০টি কোমোথেরাপি দেওয়া হয়। বর্তমানে তিনি সুস্থ আছেন।’    

এভাবে সূলভমূল্যে নামমাত্র খরচে ব্যয়বহুল ক্যান্সার চিকিৎসাসেবা দেওয়া হচ্ছে চট্টগ্রাম মা-শিশু হাসপাতাল মেডিকেল কলেজের রেডিওথেরাপি বিভাগের ডে কেয়ার সেন্টারে। চট্টগ্রাম বিভাগে বেসরকারি পর্যায়ে প্রথম এবং একমাত্র ডে কেয়ার সেন্টারে প্রতিদিন গড়ে ১৫ থেকে ২০ জন রোগী আন্তঃবিভাগে ভর্তি হয়ে চিকিৎসাসেবা গ্রহণ করছেন। জানা যায়, সাধারণত ব্রেস্ট ক্যান্সার আক্রান্ত একজন রোগীর অপারেশন ব্যয় শিশু হাসপাতালের ডে কেয়ার সেন্টারে ১০ হাজার টাকা হলেও বেসরকারি অন্য হাসপাতালে ২৫ হাজার টাকা, কেমোথেরাপি শিশু হাসপাতালে ৪০ হাজার টাকা  হলেও বেসরকারি পর্যায়ে এক লাখ ২০ হাজার টাকা।   

চট্টগ্রাম মা-শিশু হাসপাতাল মেডিকেল কলেজের মেডিকেল অনকোলজি ও রেডিওথেরাপি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান ডা. শেফাতুজ্জাহান বলেন, ‘বেসরকারি পর্যায়ে নামমাত্র মূল্যে ক্যান্সারের প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা দেওয়া হয় এই ডে কেয়ার সেন্টারে। আন্তঃবিভাগে ১০টি শয্যায় ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীদের কেমোথেরাপি দেওয়া হয়। বিশেষ করে এ রোগের একবারে শেষ পর্যায় ‘পেলিয়েটিভ কেয়ার’ চিকিৎসার জন্য রোগীরা বেশি আসছেন। কারণ বেসরকারি পর্যায়ে এই চিকিৎসা অত্যন্ত ব্যয়বহুল। তাছাড়া ক্যান্সার আক্রান্তরা প্রথম থেকে চিকিৎসা করতে করতে একপর্যায়ে নিঃশেষ হয়ে যায়। তাই ক্যান্সার আক্রান্ত অনেকের কাছে এখন এই ডে কেয়ার সেন্টারটি ভরসাস্থল হয়ে ওঠেছে।’ চট্টগ্রাম মা-শিশু হাসপাতালের পরিচালনা পর্ষদের সহ-সভাপতি এস এম মোরশেদ হোসেন বলেন, ‘ক্যান্সার একটি ব্যয়বহুল চিকিৎসা। এ রোগে আক্রান্ত অনেক মানুষ স্বজনের চিকিৎসায় নিঃস্ব হওয়ার উদাহারণও আছে। তাই মানবিকসহ নানাদিক বিবেচনা করে হাসপাতালে ক্যান্সার চিকিৎসায় ডে কেয়ার সেন্টার চালু করা হয়। এখানে কম খরচে আধুনিক চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।’

রেডিওথেরাপি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালের ৯ আগস্ট যাত্রা করে বিভাগটি। ওই মাসেই চালু করা হয় কেমোথেরাপি ট্রিটমেন্ট। প্রতিদিন বহির্বিভাগে ১৫ থেকে ২০ জনকে এবং ১০ শয্যার আন্তঃবিভাগেও গড়ে ১৫ থেকে ২০ জনকে কেমোথেরাপিসহ অন্যান্য চিকিৎসা দেওয়া হয়। ২০১৫ সালে (আগস্ট-ডিসেম্বর) এ বিভাগে সেবা দেওয়া হয় ২৫০ জনকে, ২০১৬ সালে দেওয়া হয় ৭৭৩ জনকে, ২০১৭ সালে ৬৯৯ জনকে এবং ২০১৮ সালের জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত ৩৫০ জনকে সেবা দেওয়া হয়। ডে কেয়ার সেন্টারে ইনজেকশন, সার্জারি, কেমোথেরাপি ও পেলিয়েটিভ (ক্যান্সার রোগের শেষ স্তর) দেওয়া হয়।


আপনার মন্তব্য