সৌদি আরবে আমাদের সামরিক সম্ভাবনা-398288 | Bangladesh Pratidin
ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২১

আজকের পত্রিকা

সৌদি আরবে আমাদের সামরিক সম্ভাবনা
মেজর নাসির উদ্দিন আহাম্মেদ (অব.) পিএইচডি

বাংলাদেশ এবং সৌদি আরবের সামরিক সমঝোতা ও সহযোগিতা এক নতুন যুগে প্রবেশের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। দুটি দেশের মধ্যকার এই সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্কের ভিত রচিত হয়েছিল ১৯৯০-৯১ সালের উপসাগরীয় যুদ্ধের সময়। ইরাকের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেনের নির্দেশে ইরাকি সৈন্যরা তখন কুয়েত দখল করে নেয়। সাদ্দাম হোসেনের আস্থাভাজন ও এলিট ফোর্স নামে সুপরিচিত রিপাবলিকান গার্ডের অগ্রবর্তী দল দ্রুতই পৌঁছে যায় সৌদি সীমান্ত পর্যন্ত। সে সময় প্রচণ্ড প্রভাবশালী শাসক সাদ্দাম হোসেন সৌদি আরবের মূল স্থাপনাগুলো দখলের প্রকাশ্য ঘোষণাও দিয়ে বসেন। এরই মাঝে সৌদি আরব-কুয়েত সীমান্তের সৌদি অংশে ঘাফজি নামের একটি বসতি দখল করে ফেলে ইরাকি বাহিনীর চৌকস রিপাবলিকান গার্ড। এমনি এক প্রেক্ষাপটে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ এইচ ডব্লিউ বুশের নির্দেশে অপারেশন ডেজার্ট শিল্ড শুরু করে মার্কিন সেনাবাহিনী। দ্রুতই লক্ষাধিক মার্কিন সেনা নিয়োজিত হয় পারস্য উপসাগরসহ সৌদি আরব ও কুয়েতের নিকটবর্তী বিভিন্ন দেশে।

অপারেশন ডেজার্ট শিল্ড যে কোনো মার্কিন আগ্রাসন নয়, বরং একটি দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বন্ধুপ্রতিম সব দেশের সম্মিলিত প্রচেষ্টা, তা প্রমাণের জন্য গড়ে তোলা হয় বহুজাতিক বাহিনী। এতে ডাক পড়ে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীসহ পৃথিবীর বহু দেশের। সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমান সৈন্য নিয়ে গড়া বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে দিয়ে ইসলামের স্পর্শকাতর ও গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলো প্রতিরক্ষার পরিকল্পনা করা হয়। বাংলাদেশের কিছু অফিসার কোনো অস্ত্র ছাড়া জাতিসংঘের অধীনে অন্যান্য দেশে শান্তিরক্ষী হিসেবে কাজ করলেও অস্ত্রসহ সৈন্য প্রেরণের কোনো অভিজ্ঞতাই ছিল না আমাদের। অন্যদিকে বিশ্বের বহুদেশ তখন তাদের সৈন্যরা ভাড়াটিয়া বাহিনী হয়ে যাবে অজুহাতে কৌশলে সেনা প্রেরণের বিষয়টি এড়িয়ে যায়। মার্কিনবিরোধীরা বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশে মার্কিন আধিপত্যবাদের অভিযোগ তুলে উপসাগরীয় অঞ্চলে মার্কিন সেনাদের অবস্থানের বিরোধিতা ও দ্রুত প্রত্যাবর্তন দাবি করে। বাংলাদেশে তখন রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শাসন চলছে। একদা পরম পরাক্রমশালী এই সেনাশাসকের বিরুদ্ধে তখন নিজ দেশেই চলছিল আন্দোলন ও সংগ্রাম। ব্যক্তিগতভাবে সাদ্দাম হোসেন ছিলেন তার প্রিয়ভাজন ও বাংলাদেশের উন্নয়ন সহযোগী। এ অবস্থায় বহুজাতিক বাহিনীর অংশ হিসেবে সৌদি আরবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একটি পদাতিক ব্যাটালিয়ান, একটি ইঞ্জিনিয়ারিং ব্যাটালিয়ান, একটি মেডিকেল ইউনিট, একটি লজিস্টিক কোম্পানি ও একটি ব্রিগেড সদর দফতরের সমন্বয়ে গড়ে তোলা হয় একটি বিশেষ ব্রিগেড। নবনিযুক্ত তৎকালীন সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল নূর উদ্দিন আর ডিরেক্টর অব মিলিটারি অপারেশন ব্রিগেডিয়ার সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিমসহ (বর্তমানে চেয়ারম্যান, কল্যাণ পার্টি) সবার জন্য এ ছিল এক নতুন অভিজ্ঞতা। নবগঠিত এই বিশেষ ব্রিগেডের দায়িত্ব দেওয়া হয় ব্রিগেডিয়ার হাসান মশহুদ চৌধূরীকে, যিনি পরে সেনাপ্রধান ও দুদকের চেয়ারম্যান হয়েছিলেন। সবার আন্তরিক প্রচেষ্টায় দ্রুতই প্রস্তুত হয়ে যায় বিদেশে পাড়ি জমানো বাংলাদেশে প্রথম সশস্ত্র যোদ্ধারা, সাদ্দাম হোসেন আর কুখ্যাত কেমিক্যাল আলী নামক ইরাকি এক মন্ত্রীর রাসায়নিক ও পারমাণবিক বোমা প্রয়োগের হুমকি সত্ত্বেও স্বজনদের চোখের জ্বলে ভাসিয়ে ‘অপারেশন মরুপ্রান্তরে’ পাড়ি জমায় বাংলাদেশি সৈন্যরা।

প্রতিকূল আবহাওয়া আর অনভ্যস্ত মরুভূমিতে তাঁবু খাটিয়ে এক চরম পরিবেশে কাজ চালিয়ে যান বাংলাদেশি সৈন্যরা। পদাতিক বাহিনীর দায়িত্ব পড়ে গুরুত্বপূর্ণ লজিস্টিক বেইজ স্পর্শকাতর ইস্টার্ন কমান্ড হেডকোয়ার্টার প্রতিরক্ষায়। ইঞ্জিনিয়ারিং কোরের সৈন্যরা ব্যস্ত হয়ে পড়ে বন্দীশালা, প্রতিবন্ধকতা, রাস্তা ও অবকাঠামো নির্মাণে, আর মার্কিনিসহ সব দেশের সেনাদের আস্থাভাজন হয়ে ওঠে বাংলাদেশের ডাক্তার, নার্স ও লজিস্টিক কোম্পানির সদস্যরা।

১৯৯১ সালের জানুয়ারির তৃতীয় সপ্তাহে ‘অপারেশন ডেজার্ট শিল্ডের নাম পরিবর্তন করে নতুন নাম দেওয়া হয় ‘অপারেশন ডেজার্ট স্টর্ম’। শুরু হয় কুয়েত পুনরুদ্ধারের এক মহাযুদ্ধ। ইরাকি বাহিনীর ছোড়া রাশিয়ান স্কার্ট মিসাইলকে আকাশেই ধ্বংস করছে মার্কিন প্যাট্রিয়ট মিসাইল। দুই মিসাইলের মুখোমুখি সংঘর্ষে আকাশেই তৈরি হচ্ছে বিশাল অগ্নিকুণ্ড। গগনবিদারী বোমার শব্দ। বোমার আঘাতে পুড়ছে তেলখনিগুলো। কালো ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন চারদিক। গাড়ির উইন্ডশিন্ডও কালো হয়ে যায় একটু পরপর। এরই মাঝে মার্কিনিদের সঙ্গে সমানতালে এগিয়ে যায় বাংলাদেশের সৈন্যরা। যে গ্যাসমাস্ক জীবনে চোখেও দেখেনি, সেটাও অনায়াসে পরে নিতে অভ্যস্ত হয়ে যায় পারমাণবিক ও রাসায়নিক বিক্রিয়া থেকে বাঁচার জন্য। যুদ্ধদিনের সেসব পরিস্থিতি কেবল অনুভবই করা যায়, বলা বা লেখা যায় না। দ্রুততম সময়ে ঘাফজিসহ কুয়েত পুনর্দখল করে বহুজাতিক বাহিনী। ইরাকি দখলদারিত্বর আশঙ্কা থেকে রক্ষা পায় সৌদি আরব। কুয়েতিরা ফিরে পায় তাদের স্বাধীন দেশ। ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়ে ফিরে আসে বাংলাদেশি সৈন্যরা। তৎকালীন সৌদি যুবরাজ ও ন্যাশনাল গার্ড প্রধান আবদুল্লাহ বিন আবদুল আজিজ (পরবর্তীতে সৌদি বাদশাহ) বাংলাদেশি সৈন্যদের বিদায় জানাতে গিয়ে বলেন, ‘বাংলাদেশি সৈন্যরা তাদের জীবন আর রক্তের বিনিময়ে সৌদি সার্বভৌমত্ব ও ইসলামের পবিত্রতম দুটি নগরী রক্ষার জন্য কাজ করেছে। বাংলাদেশি সৈন্যরা সৌদি নাগরিকদের রক্তের ভাই।’ বাংলাদেশি সৈন্যদের প্রাসাদের নিরাপত্তাসহ নানাভাবে কাজে লাগানোর পরিকল্পনা ছিল বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু এই সৌদি বাদশাহর। কিন্তু অপ্রিয় হলেও সত্য, আমরা সে সুযোগ হাতছাড়া করেছি আন্তরিকতার অভাব আর অদূরদর্শিতার কারণে। পরে সৌদি-কুয়েত সীমান্তসহ সমগ্র কুয়েতের মাইন অপসারণ ও অবিস্ফোরিত বিপজ্জনক বোমা অপসারণসহ নানাবিধ নির্মাণ ও প্রশাসনিক কাজে মূলত কুয়েতেই নিয়োজিত ছিল বাংলাদেশের বেশকিছু সেনা ইউনিট। তবে সার্বিকভাবে যেসব দেশ উপসাগরীয় যুদ্ধে অনুরোধ সত্ত্বেও সেনা পাঠায়নি, তাদের তুলনায় এই অংশগ্রহণ ছিল হতাশাজনক।

বর্তমান সরকারের সময়ে এক অপূর্ব সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে বাংলাদেশের সৈন্যদের আবারও ব্যাপকভাবে উপসাগরে মোতায়েনের। বর্তমান সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অনেক আগেই বোন বলে সম্বোধন করেছেন। সাম্প্রতিক সফরের সময় বাংলাদেশের সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ সৌদি সরকারের পক্ষ থেকে বিশেষ সম্মাননা ‘বাদশাহ আবদুল আজিজ মেডেল অব এক্সিলেন্স’ লাভ করেছেন। সৌদি আরব ও ইয়েমেনের সীমান্তবর্তী যুদ্ধবিধ্বস্ত এলাকায় মাইন অপসারণসহ সৌদি আরবে বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণে ১৮০০ সৈন্য নিয়োগের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। আমাদের সামরিক ডাক্তার ও নার্সদের সেবাপ্রত্যাশী সৌদি সেনা ও সাধারণ মানুষ। সৌদি আরবের ইসলামিক মিলিটারি কাউন্টার টেররিজম কোয়ালিশনে উচ্চ পর্যায়ে এবং মধ্য পর্যায়ে সেনা, নৌ ও বিমানবাহিনীর অফিসারদের নিয়োগের বিষয়টিও আলোচিত হচ্ছে। অতীতের অভিজ্ঞতায় দেখা যায়, বাংলাদেশের এসব সম্ভাবনা যখনই প্রচারমাধ্যমে চলে আসে, প্রতিদ্বন্দ্বী দেশ বা প্রতিষ্ঠান তখন তৎপর হয়ে ওঠে বাংলাদেশের বদলে নিজেদের অবস্থান প্রতিষ্ঠার জন্য। উপসাগরীয় যুদ্ধে বাংলাদেশের সৈন্যরা তাদের বাংকার ও চেকপোস্ট তৈরির জন্য পাটের বস্তা (স্যান্ড ব্যাগ) চাহিদা করে। আর সেই পাটের বস্তা সরবরাহ করে পার্শ্ববর্তী এমন একটি দেশ, যারা অনুরোধ সত্ত্বেও সৌদি আরবে সৈন্য পাঠায়নি। মূলত, এসব দেশ বা প্রতিষ্ঠান আগে চুক্তি সম্পাদন করে পরে সবাইকে জানায়। আমরা কি এ থেকে কিছু শিখতে পারি না? দেশের রেমিট্যান্স প্রবাহে যখন মন্দাভাব, তখন এ সুযোগের সদ্ব্যবহার খুলে দিতে পারে বৈদেশিক মুদ্রা আয় আর অভিজ্ঞতা অর্জনের নতুন দুয়ার।

লেখক : উপসাগরীয় যুদ্ধে অংশ নেওয়া একজন সেনা অফিসার, গবেষক ও নিরাপত্তা বিশ্লেষক এবং বাংলাদেশ স্কুল মাস্কাট (ওমান) ও বাংলাদেশ স্কুল কাতারের সাবেক পরিচালক।



এই পাতার আরো খবর