Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২১:৩০
সচেতনতা
ফিজিওথেরাপি ‘স্ট্রোক’
অধ্যাপক ডা. সিরাজুল হক
চিফ কনসালটেন্ট, নিউরোলজি বিভাগ
ল্যাবএইড স্পেশালাইজড হাসপাতাল
চেম্বার : ল্যাবএইড কার্ডিয়াক হাসপাতাল
ফিজিওথেরাপি ‘স্ট্রোক’

পৃথিবীতে প্রতি ছয় সেকেন্ডে একজন স্ট্রোকে মারা যান। স্ট্রোকে মানুষ হারাচ্ছে কার্যক্ষমতা এবং ব্যয় হচ্ছে প্রচুর অর্থ।

অপর্যাপ্ত চিকিৎসায় স্ট্রোকে আক্রান্ত রোগী হয়ে যাচ্ছেন শারীরিক, মানসিক ও কর্মক্ষেত্রে অক্ষম। স্ট্রোক মস্তিষ্কের রক্তনালির জটিলতাজনিত রোগ। জেনে নেওয়া যাক স্ট্রোক কী, কেন হয় এবং স্ট্রোক রোগীর ক্ষেত্রে ফিজিওথেরাপির প্রয়োজনীয়তা।

 

স্ট্রোক কী

কোনো কারণে মস্তিষ্কের নিজস্ব রক্ত সঞ্চালন প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত হওয়ার ফলে স্নায়ুকোষ নষ্ট হয়ে যাওয়াকে স্ট্রোক বলে। স্ট্রোককে চিকিৎসা বিজ্ঞানের পরিভাষায় সেরিব্রো ভাসকুলার এক্সিডেন্ট বলা হয়, যা বাংলা করলে দাঁড়ায়, মস্তিষ্কের রক্তনালির দুর্ঘটনা। মস্তিষ্কের বিভিন্ন জায়গা আমাদের শরীরের বিভিন্ন কাজের জন্য নির্দিষ্ট থাকে। তাই মস্তিষ্কের কোথায়, কতটুকু আক্রান্ত হয়েছে তার ওপর নির্ভর করে স্ট্রোকের ভয়াবহতা।

 

স্ট্রোক হওয়ার কারণ

প্রধানত দুটি কারণে স্ট্রোক হয়ে থাকে। মস্তিষ্কের রক্তনালিতে কোনো কিছু জমাট বাঁধলে এতে রক্তের নালিকা বন্ধ হয়ে যায় এবং মস্তিষ্কের আক্রান্ত অংশের স্নায়ুকোষগুলো অক্সিজেনের অভাবে মারা যায়।

এ ছাড়াও মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ ঘটলে এর ফলে উচ্চরক্তচাপ এই স্ট্রোকের অন্যতম কারণ, যেখানে ছোট ছোট রক্তনালিকা ছিঁড়ে রক্তক্ষরণ হয়, ফলে মস্তিষ্কের মধ্যে চাপ বেড়ে যায় এবং অক্সিজেনের অভাবে মস্তিষ্কের স্নায়ুকোষগুলো মারা যায়।

 

স্ট্রোকের উপসর্গসমূহ

হঠাৎ অতিরিক্ত মাথা ব্যথা, হঠাৎ মুখ, হাত ও পা অবশ হয়ে যাওয়া (সাধারণত শরীরের যে কোনো এক পাশ) অনেক সময় মুখের মাংসপেশি অবশ হয়ে যায়। এর ফলে লালা ঝরতে থাকে, হঠাৎ কথা বলতে এবং বুঝতে সমস্যা হওয়া, এক চোখে অথবা দুই চোখে দেখতে সমস্যা হওয়া, ব্যালেন্স বা সোজা হয়ে বসা ও দাঁড়াতে সমস্যা হওয়া, মাথা ঘুরানো এবং হাঁটতে সমস্যা হওয়া। ডায়াবেটিস ও উচ্চরক্তচাপ, ধূমপান, স্থূলতা, উচ্চ কলেস্টেরলের মাত্রা এবং হৃদরোগে আক্রান্ত রোগীদের ব্রেইন স্ট্রোকের ঝুঁকি বেশি। মহিলাদের ক্ষেত্রে জন্মনিয়ন্ত্রণের ব্যবহার অতিরিক্ত ঝুঁকি বহন করে। মস্তিষ্কে রক্ত সরবরাহে কোনো বাঁধার সৃষ্টি হলেই মূলত ব্রেইন স্ট্রোক হয়। তবে এর কিছু লক্ষণ রয়েছে, যা নিম্নে আলোচনা করা হলো—

 

>> মুখ বেঁকে যাওয়া : রোগীর মুখের এক পাশে যদি অসাড়তা অনুভব করে অথবা রোগীর মুখের এক পাশ যদি বেঁকে যায়, তাহলে তাকে দ্রুত ডাক্তারের কাছে নিয়ে যেতে হবে। তখন রোগীকে হাসার অনুরোধ করলে তিনি হাসতে পারেন না। ব্রেইন স্ট্রোকের প্রধান লক্ষণ মুখ বেঁকে যাওয়া এবং হাসতে না পারা।

>> হাতে দুর্বলতা : একজন স্ট্রোকের রোগী তার এক হাত অথবা উভয় হাত বা পা অবশ বা দুর্বলতা অনুভব করে, যা স্ট্রোকের লক্ষণ হতে পারে। স্ট্রোকের রোগী তার হাত উপরে উঠাতে পারেন না। ওপর দিকে উঠাতে নিলে তার হাত নিচের দিকে নেমে আসবে।

>> কথা বলতে অসুবিধা : একজন স্ট্রোকের রোগী বক্তৃতা প্রদানের সময় ঠিকমতো কথা বলতে পারবেন না। তারা একই প্রশ্নের বিভিন্ন উত্তর প্রদান করবেন। এমনকি দুই চোখে না দেখতে পাওয়া, কিংবা দেখতে অসুবিধা হওয়া।

>> মাথায় প্রচণ্ড ব্যথা অনুভব করা : হঠাৎ করে কারণ ছাড়াই প্রচণ্ড মাথা ব্যথার অনুভব হতে পারে। এটি রক্তক্ষরণজনিত স্ট্রোকের প্রতি ইঙ্গিত করে।

>> শর্ট মেমোরি লস : স্ট্রোকের রোগীরা তাদের আপনজনকেও চিনতে পারেন না এমনকি নিজের নাম পর্যন্ত ভুলে যান। ডাক্তারদের ভাষায় একে শর্ট মেমোরি লস বলে থাকেন। এমন অবস্থা দেখলে দ্রুত ডাক্তারের কাছে নিয়ে যান এবং চিকিৎসা নিন।

 

স্ট্রোক-পরবর্তী সমস্যা

শরীরের এক পাশ অথবা অনেক সময় দুই পাশ অবশ হয়ে যায়, মাংসপেশির টান প্রাথমিক পর্যায়ে কমে যায় এবং পরে আস্তে আস্তে টান বাড়তে থাকে, হাত ও পায়ে ব্যথা থাকতে পারে, হাত ও পায়ের নড়াচড়া সম্পূর্ণ অথবা আংশিকভাবে কমে যেতে পারে, মাংসপেশি শুকিয়ে অথবা শক্ত হয়ে যেতে পারে, হাঁটাচলা, উঠবস, বিছানায় নড়াচড়া ইত্যাদি কমে যেতে পারে, নড়াচড়া কমে যাওয়ায় চাপজনিত ঘা দেখা দিতে পারে, শোল্ডার বা ঘাড়ের জয়েন্ট সরে যেতে পারে।

 

চিকিৎসা পদ্ধতি

স্ট্রোক-পরবর্তী সমস্যাগুলো দূর করে শরীরের স্বাভাবিক কার্যক্ষমতা ফিরিয়ে আনতে প্রয়োজন সঠিক চিকিৎসা। একজন বিশেষজ্ঞ ফিজিওথেরাপিস্টের তত্ত্বাবধানে হাসপাতালে ভর্তি করান। নিয়মিত দিনে ৩/৪ বার থেরাপি চিকিৎসা নিতে হবে অন্তত ২ থেকে ৬ মাস। মনে রাখবেন, স্ট্রোকের পর যত দ্রুত ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা শুরু করা যাবে রোগীর কার্যক্ষমতা ফিরে আসার সম্ভাবনা তত বেশি।

 

ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা

মাংসপেশির স্বাভাবিক টান ফিরিয়ে আনা, শরীরের স্বাভাবিক অ্যালাইনমেন্ট ফিরিয়ে আনা, শরীরের বিভিন্ন জয়েন্ট স্বাভাবিক নাড়ানোর ক্ষমতা বা মুভমেন্ট ফিরিয়ে আনা, ব্যালেন্স ও কো-অর্ডিনেশন উন্নত করা স্বাভাবিক হাঁটার মতো ফিরিয়ে আনা, রোগীর কর্মদক্ষতা বাড়ানো, রোগীর মানসিক অবস্থা উন্নত করা, রোগীকে সমাজের মূল স্রোতে ফিরে যেতে সাহায্য করা।

 

স্ট্রোক থেকে বাঁচতে করণীয়

স্বাস্থ্যসম্মত জীবন-ব্যবস্থা বজায় রাখলে অনেকখানি ঝুঁকি কমানো যায়। ব্লাডপ্রেসার জানা এবং নিয়ন্ত্রণ করা, ধূমপান এড়িয়ে চলা, কলেস্টেরল এবং চর্বি জাতীয় খাবার পরিহার করা, নিয়মমাফিক খাবার খাওয়া, সতর্কভাবে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করা, নিয়ম করে হাঁটা বা হালকা দৌড়ান, দুশ্চিন্তা নিয়ন্ত্রণ করা, মাদক না নেওয়া, মদ্য পান না করা ইত্যাদি। স্ট্রোক হলে সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে নেওয়া উচিত। একজন বিশেষজ্ঞ স্নায়ুবিদের তত্ত্বাবধানে থেকে রোগীর চিকিৎসা করাতে হবে। স্ট্রোক সাধারণত পুরোপুরি ভালো হয় না। রোগীকে সবসময় যত্নের মাঝে রাখতে হয়। ফিজিওথেরাপি করানোর প্রয়োজন হতে পারে।

 

পরিশেষে এটা বলা যায় স্ট্রোকের ক্ষেত্রে প্রতিরোধই সবচেয়ে বড় চিকিৎসা। নিয়ন্ত্রিত জীবনযাপনই পারে স্ট্রোক থেকে অনেকাংশে মুক্ত রাখতে। অতএব রোগীর শারীরিক সমস্যা দূর করে কার্যক্ষমতা ফিরিয়ে আনার ক্ষেত্রে ফিজিওথেরাপি চিকিৎসার ভূমিকা অপরিসীম।

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত
এই পাতার আরো খবর
up-arrow