শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২২ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ জুলাই, ২০১৯ ০০:০৪

অচল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিল দাবিতে বিভিন্ন কক্ষে তালা ক্লাস বর্জনের ঘোষণা

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক

অচল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে লাগাতার কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছে শিক্ষার্থীরা। গতকাল সকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ও একাডেমিক ভবনগুলোতে তালা ঝুলিয়ে দেয় তারা। এতে অচল হয়ে পড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ও শিক্ষা কার্যক্রম। শিক্ষার্থীদের টানা আন্দোলনে বিশ্ববিদ্যালয়ে কার্যত অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে গতকাল দিনভর আন্দোলনের পর আজ সকাল ৭টা থেকে আবারও আন্দোলনের ডাক দিয়েছে শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ভবনে তালা দেওয়ার পাশাপাশি দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত পুরো বিশ্ববিদ্যালয়কে অচল করে দেওয়ার ঘোষণাও দিয়েছে তারা। শিক্ষার্থীরা জানিয়েছে, দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত তাদের আন্দোলন চলবে। তবে আন্দোলন স্থগিত করে আলোচনায় বসতে এবং ক্লাসে ফিরে যেতে আহ্বান জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এর আগে গতকাল সকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ভবন, প্রক্টর অফিস, কলা ভবন, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ (এফবিএস), সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনার প্রবেশমুখে তালা ঝুলিয়ে দেয় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। দলবদ্ধ হয়ে এসব ভবনের সামনে অবস্থান নেয় তারা। সকাল ৮টার দিকে ভবনগুলোর তালা খুলতে গিয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কর্মচারীদের বাকবিতন্ডা হয়। সামাজিক বিজ্ঞান ভবন তালাবদ্ধ করতে গেলে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের আহ্বায়ক ও সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক আ ক ম জামাল উদ্দিন শিক্ষার্থীদের বাধা দেন। পরে তিনি চলে গেলে ভবনটির প্রবেশপথে তালা ঝুলিয়ে দেয় শিক্ষার্থীরা। এ ছাড়া কলা ভবন ও ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদে তালা দিতে গেলে শিক্ষকদের বাধার মুখে পড়ে আন্দোলনকারীরা। তবে শেষ পর্যন্ত ভবনগুলোয় তালা লাগাতে সক্ষম হয় তারা। সকাল ৯টার দিকে উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহম্মদ সামাদ তার কার্যালয়ে ঢোকার চেষ্টা করলে শিক্ষার্থীরা বাধা দেয়। এ সময় উপ-উপাচার্য তাদের বলেন, ‘এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের একক কোনো সিদ্ধান্ত নয়, জাতীয় সিদ্ধান্ত। তাই কোনো কিছু করতে হলে একটা প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হবে।’ তিনি তাদের আন্দোলন স্থগিতের আহ্বানও জানান। সকাল সাড়ে ১০টা থেকে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা ‘রাখতে ঢাবির সম্মান, সাত কলেজ বেমানান’, ‘প্রশাসন করে কী, খায় দায় ঘুমায় নাকি’, ‘সাত কলেজ বাতিল চাই’, ‘ঢাবির সম্মান, নষ্ট হতে দেব না’ ইত্যাদি স্লোগান দিতে থাকে। পরে বেলা ১১টার দিকে রাজু ভাস্কর্যের সামনে অবস্থান নেয় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। আন্দোলনকারীরা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে অপরাজেয় বাংলা, মধুর ক্যান্টিন, কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার, টিএসসি হয়ে কার্জন হল ও শহীদ মিনারসহ পুরো ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে। পরে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি চত্বরে অবস্থান নেয়। বেলা ১টা পর্যন্ত সেখানে অবস্থান করে তারা। শিক্ষার্থীদের এই আন্দোলনে সমর্থন দিয়ে অংশ নিয়েছেন ডাকসুর সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেন। এ সময় তিনি প্রশাসনকে সাধারণ শিক্ষার্থীদের চার দফা দাবি মেনে নেওয়ার আহ্বান জানান। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে অধিকাংশ বিভাগের সব ধরনের পরীক্ষা ও ক্লাস বন্ধ থাকে। বন্ধ রয়েছে মৌখিক পরীক্ষাও। জানা যায়, ২০১৭ সালে রাজধানীর সাত কলেজকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিভুক্ত করার পর থেকে এই আন্দোলনের সূচনা হয়। সর্বশেষ গত বুধবার থেকে সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে আসছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এরই মধ্যে আন্দোলনের সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করেছেন ডাকসুর সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নূর।


আপনার মন্তব্য