শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৩ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ মার্চ, ২০২১ ২৩:৩৪

হজের প্রস্তুতি শুরু

সৌদি সরকারের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় ধর্ম মন্ত্রণালয়

শফিকুল ইসলাম সোহাগ

Google News

বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসের মধ্যেও হজের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে সৌদি সরকার। সৌদি সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় চলতি বছরের হজ পালনের প্রটোকল ঘোষণা করার কথা জানিয়েছে সৌদি প্রেস এজেন্সি (এসপিএ)। ঘোষিত প্রটোকল অনুযায়ী, চলতি বছর হজে শুধু ১৮ থেকে ৬০ বছর বয়সী মুসলমানরা অংশ নিতে পারবেন। এদিকে বাংলাদেশ চলতি বছর হজে অংশ নিতে পারবে কি না তা এখনো নিশ্চিত নয়। সৌদি সরকারের সেই মনোভাব জানার অপেক্ষায় রয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। তবে ইতিবাচক সাড়া পাওয়া গেলে তাতে যেন কোনো ধরনের সমস্যা না হয় সে জন্য গত বছর নিবন্ধিত হজযাত্রীদের টিকা নিয়ে রাখতে অনুরোধ করা হয়েছে। একই সঙ্গে হজে গমনেচ্ছুদের জন্য স্বাস্থ্য অধিদফতরকে আলাদা ব্যবস্থাপনায় টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করতে অনুরোধ করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (হজ) হামিদ জমাদ্দার বলেন, ‘আপাতত আমরা সৌদি আরবের বার্তার অপেক্ষায় আছি।’

জানা গেছে, সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের চলতি বছরের হজ পালনের প্রটোকল ঘোষণা অনুযায়ী দুজন  হজযাত্রীর মধ্যে কমপক্ষে দেড় মিটার দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। বহির্বিশ্ব থেকে যেসব হজযাত্রী সৌদি আরবে যাবেন, সেখানে অবতরণের কমপক্ষে এক সপ্তাহ আগে তাদের কভিড-১৯ ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণ করতে হবে। এ ছাড়া সৌদি আরবে অবতরণের ৭২ ঘণ্টা আগে করা কভিডের পিসিআর টেস্ট নেগেটিভ রিপোর্ট সঙ্গে রাখা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। হজযাত্রীদের সৌদি আরবে অবতরণের পর ৭২ ঘণ্টা কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। উল্লিখিত সময় শেষে আবারও পিসিআর টেস্ট করা হবে প্রত্যেক হজযাত্রীকে। তবে কত সংখ্যক হজযাত্রী চলতি বছর হজ পালনের সুযোগ পাবেন তা জানা না গেলেও সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, স্থানীয় এবং বহির্বিশ্বের করোনা পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করবে সবকিছু। এদিকে বয়স বেঁধে দেওয়ায় উদ্বিগ্ন হজ গমনেচ্ছুরা। এ বিষয়ে কুহেতুর ওভারসিজ প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক মুফতি সিদ্দিকুর রহমান জানান, গত বছর হজের জন্য যারা নিবন্ধন করেছেন তাদের অনেকরই বয়স ষাটের বেশি। ইতিমধ্যে কয়েকজন ফোন করে নিজেদের উদ্বেগের কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘এ ছাড়া আমাদের দেশ থেকে সাধারণত একটু বয়স হলেই পবিত্র হজ করতে যান। বয়স বাড়ানোর জন্য ধর্ম মন্ত্রণালয় যেন সৌদি সরকারের সঙ্গে গুরুত্ব দিয়ে আলোচনা করে।’ ধর্ম মন্ত্রণালয়সূত্রে জানা যায়, সৌদি আরব থেকে ইতিবাচক বার্তা আসার অপেক্ষায় পূর্বপ্রস্তুতি হিসেবে টিকার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন যারা গত বছর হজের জন্য নিবন্ধিত হয়ে আছেন। টিকার দুটি ডোজ তাদের সম্পন্ন করতে হবে। এ ছাড়া অগ্রাধিকার পাবেন যারা দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত নন। সম্প্রতি ধর্ম মন্ত্রণালয়ে প্রস্তুতির বিষয়ে একটি বৈঠক হয়েছে। এতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য অধিদফতর, হাবসহ সংশ্লিষ্ট প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে হজ পরিস্থিতির সার্বিক চিত্র তুলে ধরে বলা হয়েছে, হজ কার্যক্রম শুরুর সব প্রস্তুতি সরকারের আছে। বৈঠকে দেওয়া তথ্যানুযায়ী, বাংলাদেশের জন্য গত বছর ১ লাখ ৩৭ হাজার হজযাত্রীর কোটা নির্ধারিত ছিল। নিবন্ধিত ছিলেন ৬১ হাজার ২৩১ জন। এর মধ্যে সরকারিভাবে ২ হাজার ৯৬০ আর বেসরকারিভাবে নিবন্ধিত ছিলেন ৫৮ হাজার ২৭১ জন। এর বাইরে এ পর্যন্ত হজে যেতে আগ্রহীর মধ্যে প্রাক-নিবন্ধন করে রেখেছেন ১ লাখ ৭৭ হাজার ২৭১ জন। প্রাক-নিবন্ধনকারীর মধ্যে সরকারিভাবে তালিকাভুক্ত হয়েছেন ৪ হাজার ৬৯৫ আর বেসরকারি তালিকাভুক্ত হয়েছেন ১ লাখ ৭২ হাজার ৫৭৬ জন। ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে হজ গমনেচ্ছুদের উদ্দেশে জানানো হয়েছে, এবারের হজের আগাম প্রস্তুতি হিসেবে সরকারি ও বেসরকারি পদ্ধতিতে নিবন্ধিত ১৮ বছরের বেশি ও ৪০ বছরের নিচে ৪ হাজার ৮৩৩ এবং ৪০ বছরের ওপরে ৫৫ হাজার ৮৭৩ জনকে কভিড-১৯ টিকা নিতে হবে। ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান বলেন, ‘চলতি বছর হজে কতজন যেতে পারবেন তা জানতে সৌদি আরবের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার চেষ্টা করছি।’ তিনি বলেন, ‘হজ নিয়ে এখনো সৌদি সরকারের সঙ্গে চুক্তি হয়নি। কতজন নেবে এ নিয়ে আমরা আলাপ-আলোচনার চেষ্টা করছি। সীমিত পরিসরে লোকজন যেতে (হজে) পারেন। ১০ হাজার জনের মতো যেতে পারেন। এর বেশিও হতে পারে। কত সংখ্যক হজযাত্রী এবার হজে যেতে পারবেন, তা সৌদি সরকার নিশ্চিত করার পর ধর্ম মন্ত্রণালয় পরবর্তী কার্যক্রম শুরু করবে।’