শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২৩:০৪

পাঁচ হাজার ভয়ঙ্কর মৃত্যুকূপ

জীবনের ঝুঁকি নিয়েই পুরান ঢাকায় মানুষের ঘরবসতি ব্যবসা-বাণিজ্য

সাঈদুর রহমান রিমন

পাঁচ হাজার ভয়ঙ্কর মৃত্যুকূপ

শুধু চকবাজার এলাকাতেই নয়, পুরান ঢাকার ১০টি থানা এলাকায় বিপজ্জনক কেমিক্যালের ‘পাঁচ হাজার মৃত্যুকূপে’ লাখ লাখ মানুষের ভয়ঙ্কর ঘরবসতি চলছে। বাড়ির ভিতরে, ঘরের চারপাশে নানা রকম বিস্ফোরক আর তেজষ্ক্রিয় পদার্থের ছড়াছড়ি। আছে বিপজ্জনক কেমিক্যাল কারখানা, মজুদদারি। শয়নকক্ষের সঙ্গেই যুক্ত আরেক কক্ষে হরদম খুচরা কেমিক্যালের ক্রয়-বিক্রয়ও চলছে অবাধে। চকবাজারের অগ্নিকাণ্ড স্থলের আশপাশেই আছে ঝুঁকিপূর্ণ তিন শতাধিক কারখানা ও কেমিক্যাল গুদাম। মহল্লায় দেয়ালের সঙ্গে দেয়ালের ঠেস লাগিয়ে গড়ে তোলা হয়েছে বহুতল ভবন। চাপা-সরু অলিগলির অভাব নেই। এসব অলিগলির বাঁকে বাঁকে গড়ে তোলা হয়েছে বৈধ-অবৈধ কয়েক শ কেমিক্যাল কারখানা, গুদামঘর, দোকানপাট। চকবাজার থানার অদূরেই বড় এক রেস্টুরেন্টের ছয়টি চুল্লিতে রাত-দিন চলে রান্নাবান্না। এসব গ্যাসচুল্লির আড়াই-তিন ফুটের মধ্যেই রয়েছে বেশ বড় আকারের দুটি কেমিক্যাল গুদাম। মূল চকবাজারের পশ্চিম পাশে দুটি ওয়েল্ডিং কারখানা ঘেঁষেই রয়েছে নানা রকম কেমিক্যাল বিক্রির তিনটি দোকান। সেখানে যখন তখন পরিচালিত ওয়েল্ডিং ঝালাইয়ের বিচ্ছুরিত অগ্নিস্ফুলিঙ্গ উড়ে উড়ে কেমিক্যাল দোকান পর্যন্ত যাচ্ছে। সামান্য অসাবধানতায় সেখানেই ঘটতে পারে নিমতলী কিংবা চকবাজার ট্র্যাজেডির চেয়েও ভয়ঙ্কর অঘটন।

একটি-দুটি নয়, এমন পাঁচ হাজারের বেশি কারখানা, গুদাম আর     দোকানপাট সঙ্গী করেই চলছে পুরান ঢাকাবাসীর বেঁচে থাকা, ঘরবসতি। ১০টি থানা এলাকায় গজিয়ে ওঠা কারখানাগুলোতে অবাধে বছরের পর বছর ধরে চলছে বিস্ফোরক ও কেমিক্যালের খোলামেলা ব্যবহার, বিপণন ও সরবরাহ। থানাগুলো হচ্ছে লালবাগ, হাজারীবাগ, কোতোয়ালি, চকবাজার, বংশাল, কামরাঙ্গীরচর, যাত্রাবাড়ী, শ্যামপুর, কদমতলী ও সূত্রাপুর। বেশিরভাগ কারখানায় ব্যবহৃত হচ্ছে রাসায়নিকসহ দাহ্য পদার্থ এবং নানা ধরনের জ্বালানি তেল। এগুলোর মধ্যে দায়সারা গোছের সিটি করপোরেশনের ট্রেড লাইসেন্স আছে বড়জোর এক হাজার কারখানার। বাকিগুলোর কোনো কাগজপত্রই নেই। আতঙ্কের বিষয় হলো, চার হাজার অবৈধ কারখানা গড়ে উঠেছে তিন হাজারের বেশি আবাসিক ভবনে। আর বাকিগুলো আরও ঘিঞ্জি জনবসতিতে। কোনো দুর্ঘটনা ঘটলেই আবাসিক এলাকা থেকে কারখানা স্থানান্তরের দাবি তোলা হয় বিভিন্ন মহল থেকে। মিছিল, বিক্ষোভ, মানববন্ধন হয়, চলে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের আহাজারি, এক পক্ষের বিরুদ্ধে চলে অপর পক্ষের দোষ চাপানোর নানা মহড়া, সরকারের পক্ষ থেকেও কিছু উদ্যোগ নেওয়া হয় শোক ঢেকে দেওয়ার, কিন্তু এ পর্যন্তই। এরপর সময় গড়িয়ে যায়। সবার মন থেকে মুছে যায় করুণ-ভয়াবহ সব স্মৃতি। আবার একটি দুর্ঘটনার জন্য প্রস্তুত হতে থাকে ক্ষেত্র। বছরের পর বছর ধরে এভাবেই ঘূর্ণায়মান চক্রে বাঁধা পড়ে আছে পুরান ঢাকাবাসীর জীবন। পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে অবৈধ কারখানার ছড়াছড়ি। এর মধ্যে রয়েছে ড্রাইসেল বা ব্যাটারি কারখানা, নকল ওষুধ, নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যাগ, পলিথিনের দানা, প্লাস্টিক সরঞ্জাম, নকল বৈদ্যুতিক তার, আচার, চকোলেট, বিস্কুট, ঝালাই, রেক্টিফায়েড স্পিরিট ব্যবহার করে নানা সুগন্ধি ও আতর তৈরির কারখানা, আতশবাজি, পটকা, সাইকেল, খেলনা, নকল কসমেটিকস ও গয়না, জুতা-স্যান্ডেল তৈরির কারখানা, রাবার ফ্যাক্টরি, রং ও সলিউশন তৈরির কারখানা, ব্লিচিং পাউডার, ওয়াশিং সামগ্রী এবং ভিসিডি প্লেয়ারসহ শতাধিক পণ্য তৈরির অবৈধ কারখানা। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, অবৈধ কারখানাগুলোকে কেন্দ্র করে অবাধে বিক্রি হচ্ছে মারাত্মক ক্ষতিকারক সব দাহ্য ও রাসায়নিক পদার্থ। সালফার, পটাশ, ফসফরাস, সালফিউরিক অ্যাসিড, নাইট্রিক অ্যাসিড, ইথানল, মিথাইল, রেক্টিফায়েড স্পিরিট, ফরমালডিহাইড, অ্যাডহেসিভ বা সলিউশন, তারপিনসহ নানা ধরনের গান পাউডার বিক্রি হয় একত্রেই, যত্রতত্র। এসব ঝুঁকিপূর্ণ রাসায়নিক পদার্থ বিভিন্ন বাসাবাড়িতে গোডাউন বানিয়ে অনিরাপদ ব্যবস্থাপনায় মজুদ রাখছেন ব্যবসায়ীরা। গড়ে তোলা হয়েছে জুতা, প্লাস্টিক, বৈদ্যুতিক তার, বেকারি, চকোলেট তৈরি, ওয়েল্ডিংয়ের ছোট-বড় প্রায় চারশ কারখানা। জুতা ফ্যাক্টরির মালিকরা জানান, তারা যেসব রাসায়নিক ব্যবহার করেন সেগুলো হচ্ছে অ্যাডহেসিভ বা বেলি, মিল্ক কেমিক্যাল, সিনথেটিক রাবার অ্যাডহেসিভ বা পেস্টিং, রাবার সলিউশন বা পিইউ, রাবার সলিউশন এসপি, আনসারি আর কালো পেস্টিং। এগুলো যে বিস্ফোরক, তা তারা জানেন বলেও স্বীকার করেন। তবে এ ব্যবসা করতে হলে যে অনেক রকম অনুমোদন লাগে, তা তারা জানেন না বলে জানান। দেখা গেছে, বেশিরভাগ ব্যবসায়ীই সাধারণ ব্যবসার লাইসেন্স নিয়ে চালিয়ে আসছেন এসব ব্যবসা। এ ব্যাপারে ঢাকা সিটি করপোরেশনের (দক্ষিণ ডিসিসি) কর কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা ট্রেড লাইসেন্স দিয়ে থাকি শুধু সাধারণ ব্যবসার জন্য। কোনো কেমিক্যাল বিক্রির লাইসেন্স দিই না, দেওয়ার ক্ষমতাও রাখি না। এর ছাড়পত্র দেওয়ার দায়িত্ব পরিবেশ অধিদফতরের।’ কিন্তু অধিকাংশ ব্যবসায়ী ডিসিসির ট্রেড লাইসেন্স নিয়েই ধুমছে চালিয়ে যাচ্ছেন কেমিক্যালের অবৈধ ব্যবসা। যোগাযোগ করা হলে পরিবেশ অধিদফতরের ঢাকা মহানগর কার্যালয়ের পরিচালক বলেন, ‘অধিদফতর থেকে পুরান ঢাকার আবাসিক এলাকায় কোনো কারখানার জন্য ছাড়পত্র দেওয়া হয় না।’ ফায়ার সার্ভিসের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলেন, পুরান ঢাকায় যেখানে-সেখানে মজুদ কেমিক্যালের পাইকারি দোকান, মার্কেট ও গুদামে আগুন লাগলে এসব স্থানে বসবাসকারীদের কোনোভাবেই বাঁচানো যাবে না।’

সহজলভ্য গান পাউডার! বিস্ফোরকের ছড়াছড়ি : পুরান ঢাকার অবৈধ কেমিক্যাল বাজারে পৃথিবীর ভয়ঙ্কর সব কেমিক্যালও কেনাবেচা চলে প্রকাশ্যে যেনতেনভাবেই। প্রকাশ্যে গান পাউডার বিক্রি নিষিদ্ধ হলেও সেসবও বিক্রি হতো আগুনে পুড়ে ধ্বংস হওয়া ওয়াহিদ ভবনের চার তলায়। জঙ্গী-সন্ত্রাসীরাও সেখান থেকে গান পাউডার সংগ্রহ করে দেশে নানা রকম নাশকতা চালাত বলেও অভিযোগ রয়েছে। নয়টি শ্রেণির বিপজ্জনক পদার্থ এ দেশে আমদানি করা হয়। এর প্রথম তিনটি শ্রেণির বিপজ্জনক পদার্থ মজুদ, পরিবহন, ক্রয়-বিক্রয়ে নীতিমালা রয়েছে। বাকি ছয় প্রকার অধিক বিপজ্জনক বস্তু মজুদের ক্ষেত্রে কোনো নীতিমালাই নেই। বিপজ্জনক জ্বালানিযোগ্য কঠিন পদার্থের একটি ক্যালসিয়াম কার্বাইড। কার্বাইড মজুদাগারের প্রস্তাবিত প্রাঙ্গণের পরিসীমার চারপাশে কমপক্ষে ১০০ মিটারের মধ্যকার স্থায়ী স্থাপনার চিত্র, মজুদাগারের অবস্থান ও নির্মাণ নকশা পর্যবেক্ষণের নীতিমালা থাকলেও তা মানা হয় না। নিমতলী ও চকবাজারের ভয়াবহ অগ্নিকা  দ্রুততার সঙ্গে ছড়িয়ে পড়ার জন্য এসব বিপজ্জনক রাসায়নিক দ্রব্যকেই দায়ী করেন বিশেষজ্ঞরা। প্রধান বিস্ফোরক পরিদর্শক কার্যালয়ের কর্মকর্তাগণ ‘সব বিপজ্জনক বস্তু নিয়ে আমরা কাজ করি না। এগুলো মজুদ, পরিবহন ও বেচাকেনার কোনো নীতিমালাও নেই। তবে অ্যাসিড, বিষসহ বেশ কিছু কেমিক্যাল জেলা প্রশাসক দেখে থাকেন। কোনো কারখানায় আগুন লাগলেই বিস্ফোরক অধিদফতর দায়ী করা ঠিক না বলেও দাবি করেন ওই কর্মকর্তা।’

বালাই নেই অগ্নিনিরাপত্তা আইনের : রাজধানীতে অগ্নিনিরাপত্তা আইন (২০০৩) অগ্রাহ্য করে শতকরা ৯৯ ভাগ বাসাবাড়ি, বাণিজ্যিক ভবন ও শিল্প-কারখানা গড়ে উঠেছে। অত্যাবশ্যকীয় বিধি-বিধানগুলো পালনের ব্যাপারে উৎসাহী সচেতনতা সৃষ্টিতে সরকারিভাবে যেমন কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি, তেমনি আইন মানতে বাধ্য করারও কোনো নজির নেই। অগ্নিনিরাপত্তা আইন অনুযায়ী, প্রতিটি বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে কমবেশি ৩০টি অত্যাবশ্যকীয় নিয়ম অনুসরণ করার স্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে। অগ্নি আইন অনুসারে, বিদ্যুৎ নিরাপত্তা এবং আন্ডারগ্রাউন্ড রিজার্ভে ৫০ হাজার গ্যালন এবং ওভারহেড ট্যাংকে ১০ হাজার গ্যালন পানি মজুদ রাখার নির্দেশনা আছে। এসব বিধি-বিধান পালন করা হলে বুধবার রাতে চকবাজারের চুড়িহাট্টায় দাউ দাউ করে জলে ওঠা আগুনের সামনে বার বার ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের অসহায় অবস্থায় পড়তে হতো না। ঘটনাস্থলের ৫/৭শ ফুটের মধ্যেও ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা আগুন নেভানোর মতো পানির জোগান পর্যন্ত পাননি। তাদের ভারিক্কি গাড়িগুলো নিয়ে চাপা গলির শতেক বাঁক ঘুরে ঘুরে বুড়িগঙ্গা থেকে পানি সংগ্রহ করে তা অগ্নিকা স্থলে আনতেই গলদঘর্ম অবস্থার সৃষ্টি হয়। এতে আগুন নেভানোর ক্ষেত্রে অনেক বেশি সময়ক্ষেপণ হওয়ায় জানমালের প্রভূত ক্ষয়ক্ষতি ঘটেছে বলেও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন।

 


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর