শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২০ মে, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ মে, ২০১৯ ২৩:৩৮

গভীর রাতে আবারও ছাত্রলীগ নেত্রীদের ওপর হামলা

হামলার অভিযোগ সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে, অস্বীকার রাব্বানীর, অনশন চলছে, এক নেত্রীকে অপহরণের চেষ্টা

নিজস্ব ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক

গভীর রাতে আবারও ছাত্রলীগ নেত্রীদের ওপর হামলা

গভীর রাতে আবারও ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতদের অনশনে অংশ নেওয়া ছাত্রীদের ওপর হামলা হয়েছে। শনিবার দিবাগত রাত ২টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে (টিএসসি) এ হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় ১৫ জন আহত হয়েছেন বলে দাবি করেছেন পদবঞ্চিতরা। অভিযোগ উঠেছে, ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী নিজেই ছাত্রীদের গায়ে হাত তুলেছেন। এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবিতে অনশন কর্মসূচি পালন করছেন হামলার শিকার এবং পদবঞ্চিত ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। বলছেন, বিচারের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আশ্বাস না পেলে তারা অনশন চালিয়ে যাবেন। এদিকে কমিটি বাতিলের দাবিতে আন্দোলনে যুক্ত থাকা রোকেয়া হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শ্রাবণী ইসলাম দিশাকে অপহরণ চেষ্টার অভিযোগে গতকাল থানায় জিডি করা হয়েছে। শনিবার সন্ধ্যায় শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের নাম ভাঙিয়ে তাকে অপহরণের চেষ্টা করা হয় বলে অভিযোগ করেন তিনি। এদিকে ছাত্রীদের ওপর হামলার ঘটনায় একাধিক ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। হামলার বিষয়ে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘আমি কারও গায়ে হাত তুলিনি। আমরা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক উভয় পক্ষকেই সরিয়ে দিই। কোনো হামলার ঘটনা ঘটেনি। তবে এলাকার এবং সংগঠনের ছোট বোন হিসেবে বিএম লিপিকে ‘বেয়াদব’ বলেছি। কারণ সে বেয়াদবি করেছে।’  

একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, পদবঞ্চিত নেতা-কর্মীদের সঙ্গে কথা বলতে রাত দেড়টার দিকে টিএসসিতে আসেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক শোভন এবং সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। তাদের সঙ্গে আলোচনার একপর্যায়ে গোলাম রাব্বানী রোকেয়া হল ছাত্রলীগের সভাপতি ও ডাকসুর কমনরুম ও ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক বিএম লিপি আক্তারকে ‘আপত্তিকর’ কথা বলেন। লিপি কেন তার সম্পর্কে মাদক নেওয়ার কথা মিডিয়ায় বলেছেন সে সম্পর্কে জানতে চান। লিপি পাল্টা জবাব দিয়ে বলেন, ‘আপনারাও তো সাবেক সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের বিষয়ে খারাপ কথা বলেছেন। এটা আপনাদের কাছ থেকে শিখেছি।’ ঘটনার এক পর্যায়ে গোলাম রাব্বানী লিপিকে বেয়াদব বলেন। লিপি প্রতিবাদ করেন এবং সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়েন। একপর্যায়ে গোলাম রাব্বানী লিপির গায়ে হাত তোলেন বলে পদবঞ্চিত নেতাদের অভিযোগ। অন্যদিকে গোলাম রাব্বানীর অনুসারীরা লিপি আক্তার ও বাংলাদেশ-কুয়েত মৈত্রী হলের সভাপতি শ্রাবণী শায়লা এবং সাধারণ সম্পাদক ফরিদা পারভীন, নতুন কমিটির উপ-সংস্কৃতি সম্পাদক তিলোত্তমা শিকদার, ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের গত কমিটির সহ-সম্পাদক শেখ আবদুল্লাহসহ অন্যদের ওপর হামলা চালান। বিক্ষুদ্ধ নেতা-কর্মীদের অভিযোগ, টিএসসির ভিতরে হামলায় নারীনেত্রীসহ ১৫-২০ জন নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন। নিজ দলের নেতা-কর্মীদের মারধরে আহত হয়ে কেঁদেছেন পদবঞ্চিত ছাত্রলীগ নেতা শেখ আবদুল্লাহ। সেই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ হয়েছে। এরপর রাতেই পদবঞ্চিতরা টিএসসি থেকে বেরিয়ে রাজু ভাস্কর্যের সামনে অবস্থান নেন। পরে ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকও রাজু ভাস্কর্যের সামনে আসেন। এ সময় টিএসসির ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে গোলাম রাব্বানী ক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীদের হলে চলে যাওয়ার নির্দেশ দেন। তবে হামলার শিকার নেতা-কর্মীরা এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত তাদের অবস্থান কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছেন। প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাস ছাড়া তারা কর্মসূচি চালিয়ে যাবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন। কর্মসূচিতে উপস্থিত রয়েছেন, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সাবেক উপ-স্কুলছাত্র বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দ আরাফাত, বিএম লিপি আক্তার, আইন অনুষদের সভাপতি তরিকুল হাসান শুভ, উপ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ইমদাদ হোসেন সোহাগ, আলামিনসহ অনেকে।

গত কমিটির কর্মসূচি ও পরিকল্পনা সম্পাদক রাকিব হোসেন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে যেসব বিতর্কিত নেতা পদ পেয়েছেন তাদের সবাইকে বহিষ্কার করতে হবে। হামলা প্রসঙ্গে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, বিক্ষুব্ধরা আমাদেরকে ফোন করে আসার কথা বলেন। তারা আমাদের সঙ্গে কথা বলতে চান। রাতে আমরা কথা বলতে দুই ঘণ্টা অপেক্ষা করি। তবে পদপ্রত্যাশীদের আচরণ আক্রমণাত্মক ছিল। একপর্যায়ে উত্তেজনা তৈরি হয়। আমরা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক উভয় পক্ষকেই সরিয়ে দিই। কোনো হামলার ঘটনা ঘটেনি। তিনি জানান, বিতর্কিতদের বিরুদ্ধে আগামীকালের মধ্যে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।  

ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘আন্দোলনরত তিলোত্তমা শিকদারসহ বেশ কয়েকজন আমাকে রাত ৯টায় ফোন করে দেখা করতে চান। আমি তাদেরকে রবিবার বেলা ২টায় বসার জন্য বলি। তারা রাতেই দেখা করার কথা বলেন। এরপর খবর পেলাম রোকেয়া হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শ্রাবণী ইসলাম দিশাকে অপহরণ চেষ্টা হয়েছে। এ নিয়ে থানায় জিডি করতে যাই। সেখান থেকে রাত ১২টায় টিএসসিতে এসে তাদের পাইনি। দুই ঘণ্টা বসে ছিলাম। পরে তারা এসেই উগ্র আচরণ শুরু করে। বিশেষ করে লিপির উগ্র মেজাজ ছিল। সেক্রেটারি (রাব্বানী) জানতে চান, কেন তিনি টেলিভিশনে মিথ্যাচার করেছেন। এতে তো সংগঠন ও আপার (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) ক্ষতি হচ্ছে। জবাবে লিপি বাজে মন্তব্য করলে হট্টগোল শুরু হয়। আমরা উভয়কে সরিয়ে দিই। ঘটনা এতটুকুই।’ তাহলে লিপির ওপর হামলা হয়নি? জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘না এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি। তবে হট্টগোল পরিবেশ ছিল সত্যি।’ পদবঞ্চিতদের নেতৃত্বে থাকা গত কমিটির প্রচার সম্পাদক সাইফ বাবু বলেন, ‘বিতর্কিতদের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ উঠেছে তার প্রমাণ দিতে গেলে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আমাদের বোন বিএম লিপি আক্তারকে চড় দেন। পরে তার অনুসারীরা আমাদের ওপর হামলা চালান।’ তাদের সঙ্গে আলোচনায় কী কথা হয়েছে, জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের দাবি ছিল বিতর্কিত যে ১৭ জনের নাম প্রকাশ করা হয়েছে তাদের বহিষ্কার করতে হবে। যে ৯৯ জনের নাম আমরা প্রকাশ করেছি তাদের মধ্যে ৪০ জনের বিষয়ে আমাদের কাছে প্রমাণ রয়েছে। তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছি আমরা।’

উপমন্ত্রীর নাম ব্যবহার করে ছাত্রলীগ নেত্রীকে অপহরণ চেষ্টার অভিযোগ : শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের নাম ব্যবহার করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শ্রাবণী ইসলাম দিশাকে অপহরণ চেষ্টার অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ওই ছাত্রী। গতকাল দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতিতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন দিশা। তিনি জানান, এ ঘটনায় শাহবাগ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। মোতালেব প্লাজার একটি বাসা থেকে তাকে অপহরণের চেষ্টা করা হয়।

এদিকে ছাত্রলীগের পদবঞ্চিত আন্দোলনকারীদের নিয়ে গত রাতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার ধানম-ির কার্যালয়ে বৈঠক করেছেন দলের যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানকসহ শীর্ষ নেতারা। রাত ১টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বৈঠক চলছিল।


আপনার মন্তব্য