Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২২ মে, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২১ মে, ২০১৯ ২২:৩৯

কৃষকের মাথায় হাত

♦ মণপ্রতি লোকসান ৩০০-৪০০ টাকা ♦ ধান কাটায় দৈনিক ৬০০ টাকায়ও মিলছে না শ্রমিক ♦ সরকার ২৬ টাকা কেজি ধান কেনার ঘোষণা দিলেও মিলছে ১২-১৬ টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক

কৃষকের মাথায় হাত

চলছে ধানের ভরা মৌসুম। ফলনও হয়েছে বাম্পার। কিন্তু ধান গোলায় তুলতে শ্রমিক খুঁজতেই ঘাম ঝরছে কৃষকের। উচ্চমূল্যের শ্রমিক সংগ্রহের জন্য দিতে হচ্ছে সিরিয়াল। ধান কাটা-মাড়াইয়ের পর বিক্রি করতে গিয়ে কৃষককে মণপ্রতি ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা লোকসান দিতে হচ্ছে। আবার অনেক জায়গায় ক্রেতার এতই অভাব যে, লোকসান দিয়েও ধান বিক্রি সম্ভব হচ্ছে না। সব মিলিয়ে চতুর্মুখী সংকটের

মধ্যে পড়ে দিশাহারা অবস্থায় কৃষক। বাম্পার ফলনের পরও তাদের মুখে নেই এক চিলতে হাসি। গাইবান্ধা সদর উপজেলার ঘাগোয়া ইউনিয়নের তালতলা গ্রামের কৃষক শফিকুর রহমান বলেন, এবার বীজ, সার, পানি, কীটনাশক, শ্রমিক ও ধান কাটার খরচ মিলিয়ে মণপ্রতি মোটা ধানের উৎপাদন খরচ হয় ৮০০ টাকা যা চিকন ধানের ক্ষেত্রে মণপ্রতি ৯০০ টাকা। কিন্তু সেই ধান এখন স্থানীয় দারিয়াপুর হাটে বিক্রি করতে হয়েছে প্রতি মণ মোটা ধান ৪৪০ টাকা এবং চিকন ধান ৫০০ টাকায়। সাদুল্যাপুর উপজেলার হবিবুল্লাহপুরের কৃষক আ. জব্বার জানান, বাজারে নেই ধানের ক্রেতা। অনেকেই ধান বিক্রি করতে পারছে না। বসনিয়া গ্রামের কৃষক তারা মিয়া বলেন, সমস্যার শুরু ধান কাটা নিয়েই। যেখানে আগে শ্রমিকের মজুরি ছিল ৩৫০ টাকা এখন তা ৬০০ টাকায় দাঁড়িয়েছে। আবার পাওয়া যায় না শ্রমিক। রাজশাহী জেলার তানোর উপজেলার কৃষক আবদুল কাদের বলেন, রোদে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে, অনাহারে-অর্ধাহারে পরিশ্রম করে তার বিনিময়ে কী পাচ্ছি? ১ মণ ধানে ১ কেজি গরুর মাংসও মিলছে না। সরকার ২৬ টাকা কেজি দরে ধান ক্রয়ের ঘোষণা দিলেও বর্তমানে তা আমরা বিক্রি করছি ১২ থেকে ১৬ টাকা কেজি দরে। কৃষক মোকলেসুর রহমান জানান, বিঘাপ্রতি ক্ষতি হচ্ছে এক হাজার থেকে দেড় হাজার টাকা। বর্গাচাষি ইমাম হোসেন জানান, বর্গাচাষিরা ৫ থেকে ৬ হাজার টাকার বিনিময়ে ১ বিঘা জমি বর্গা নিই। শ্রমিক, স্ত্রী ও পরিবার-পরিজন নিয়ে নিজেরাই জমি চাষ করি। নিজেদের শ্রমের হিসাব বাদ দেওয়ার পরও আমাদের ক্ষতি হচ্ছে বিঘাপ্রতি ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা। সুনামগঞ্জ জেলায় প্রায় চার লাখ কৃষক পরিবার বোরো চাষের প্রক্রিয়ায় জড়িত। বেশির ভাগেরই বছরের একটিমাত্র ফসল এটি। কিন্তু উৎপাদন খরচ আর ধানের বর্তমান বাজারমূল্যের ব্যবধান আকাশ-পাতাল হওয়ায় মাথায় হাত পড়েছে কৃষকদের। প্রতি মণ ধানের উৎপাদন খরচ পড়েছে ৬৫০ টাকার ওপরে আর বিক্রি হচ্ছে ৫৫০ টাকায়।

কুষ্টিয়ায় এবার রেকর্ড পরিমাণ বোরো ধান উৎপাদন হলেও দাম নিয়ে হতাশ কৃষক। ধানের ন্যায্য মূল্য না পাওয়ায় ক্ষুব্ধ তারা। বিঘাপ্রতি ৩ থেকে সাড়ে ৩ হাজার টাকা লোকসান গুনতে হচ্ছে তাদের। তবে কৃষক ন্যায্য মূল্য না পেলেও কৃষকের উৎপাদিত ধানে লাভবান হচ্ছেন চালকল মালিক ও মধ্যস্বত্ত্বভোগীরা। কারণ সরকার সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে ধান কিনছে মাত্র ১ হাজার মেট্রিক টন। আর বিপুল পরিমাণ ধান কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরাসরি চালকল মালিকদের কাছ থেকে। চাষিরা সরকারের এ ‘হঠকারী’ সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে বরাদ্দের সিংহভাগ ধান কেনার দাবি জানিয়েছেন।

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে ধান উৎপাদন হয়েছে ৯৯ হাজার মেট্রিক টন, সেখানে সরকার কিনবে মাত্র ২২৫ মেট্রিক টন। এই সিদ্ধান্তকে কৃষকের সঙ্গে তামাশা ছাড়া আর কিছুই নয় উল্লেখ করে কৃষক আফছার আলী বলেন, ‘আর ধান আবাদ করমো না বাহে, ধান আবাদ করি এখন মাতাত হাত পইছে, ধান ব্যাচে যে টাকা হইছে, তাতে আবাদ করার দামও হছে না, হারা খামো কী? আবাদ করমো কী দিয়া। কৃষকরা জানান, প্রান্তিক চাষিরা এনজিও কিংবা মহাজনদের কাছ থেকে টাকা ঋণ নিয়ে ধান চাষ করে, এখন সেই ঋণের টাকা পরিশোধ করতে পারছে না, আমন চাষ করব কীভাবে। শস্যভা ার খ্যাত চলনবিলে চলতি মৌসুমে ঘটেনি বড় ধরনের কোনো ফসলহানির ঘটনা। প্রায় দুই বছর পর নির্বিঘেœ বোরো ধান ঘরে তুললেও আনন্দ নেই কৃষকদের চোখেমুখে। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে চলনবিলে বোরো ধান কাটতে আসা শ্রমিকরা না আসার কারণে ধান নিয়ে দুশ্চিন্তা বেড়েছে তাদের। মণপ্রতি ১০ থেকে ১২ কেজি করে ধান শ্রমিকদের দিয়ে ধান কাটতে হচ্ছে জমির মালিকদের। আগামীতে ধান চাষে কৃষকরা তাদের অনাগ্রহের কথা জানান। ধানের বদলে তামাক বা ভুট্টার মতো ফসল চাষে আগ্রহের কথা জানান তারা। ধানের দাম প্রতি মণ ১২০০ টাকা করার দাবি জানান। শরীয়তপুরে বোরো ধানের আবাদ ভালো হলেও ধান কাটা-মাড়াই করা নিয়ে কৃষক পড়েছে বিপাকে। সরকারিভাবে ধান কেনার কথা থাকলেও এই মুহূর্তে ধান কিনছে না। এর ফলে ব্যবসায়ীদের কাছে ধান কম দামে বিক্রি করছে কৃষক। নড়িয়া উপজেলার বিঝারি ইউনিয়নের কন্ডা গ্রামের বকসু মাতবর বলেন, সারা বছরের খাদ্য নিশ্চয়তার জন্য লোকসান দিয়ে ধানের আবাদ করি। বাজারে ৫২০ টাকা হতে ৫৫০ টাকা দামে প্রতি মণ ধান বিক্রি করতে হচ্ছে। প্রতি কেজি ধানে চার টাকা লোকসান দিচ্ছি। অথচ এই জমি ভাড়া দিলেও বিঘাপ্রতি বছরে ১০ হাজার টাকা পেতাম।

নেত্রকোনার কৃষক মোতালেব ও তারা মিয়া জানান, ধানের দর সরকার দিলেও নানা অজুহাতে গুদামে আমাদের ধান চাল নিচ্ছে না। যাদের থেকে নিচ্ছে তাদের কোনো কৃষক চেনেও না। আমরা জমি কাটাচ্ছি ৯০০ টাকায়। ধান বিক্রি হচ্ছে ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকায়। তাহলে কৃষক বাঁচবে কী করে? তিনি ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, ‘দুর্ভিক্ষ আসতেছে দেশে বাইচ্যা থাকলে দেখবেন আমরা বলে গেলাম।’

ধান-চাল উৎপাদনের বৃহত্তর জেলা নওগাঁয় ধানের দাম কম হওয়ার পেছনে অটো রাইস মিলারদের সিন্ডিকেটকে দুষছেন কৃষক, হাসকিং মিলার ও ব্যবসায়ীরা। মাতাসাগর হাটের ইজারাদার উজ্জ্বল হোসেন বলেন, বাজারে ধানের ক্রেতা নাই। ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করার কারণে বাজারের অবস্থা। নওগাঁর ফারিহা রাইস মিলের মালিক শেখ ফরিদ এবং বিসমিল্লাহ মিলের মালিক শাহাদত হোসেন বলেন, ধানের দাম কম হওয়ার পেছনে হাসকিং ও অটোমেটিক রাইস মিলের বরাদ্দের সমন্বয়হীনতায় মূল কারণ। হাসকিং মিলারদের বরাদ্দ কম হওয়ায় তারা বাজারে ধান কিনছেন না। ফলে বাজারে ক্রেতা কম হওয়ায় ধানের দাম কম। হাসকিং মিলারদের বরাদ্দ যদি সঠিকভাবে দেওয়া হতো তাহলে গুটিকয়েক অটোমেটিক মিলার এ সিন্ডিকেট তৈরি করতে পারত না। অটোমেটিক রাইস মিলারদের বরাদ্দ বেশি হওয়ায় ও গত মৌসুমের ধান-চাল মজুদ থাকায় ধান কিনছেন না তারা। ফলে তৈরি হয়েছে সিন্ডিকেট। ব্রাহ্মণবাড়িয়া চাতালকল ও হাসকিং মিল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. ওয়ায়দুল্লাহ বলেন, চাতালে পর্যাপ্ত পরিমাণে ধান ও চাল মজুদ থাকায় ব্যবসায়ীরা ধান ক্রয় করছে কম। তবে সরকার যদি রপ্তানির অনুমতি দিত তাহলে চালের দাম বেড়ে যেত। তাই ধানের দাম বৃদ্ধির জন্য সরকারের কাছে আমাদের দাবি অনতিবিলম্বে বাংলাদেশের চাল রপ্তানির অনুমতি দিলে ব্যবসায়ীরা যেমন উপকৃত হবে পাশাপাশি কৃষকরাও ধানের ন্যায্য মূল্য পাবে।

(প্রতিবেদনে তথ্য দিয়েছেন বাংলাদেশ প্রতিদিনের গাইবান্ধা, দিনাজপুর, নাটোর, নওগাঁ, কুষ্টিয়া, শরীয়তপুর, নেত্রকোনা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি ও রাজশাহীর নিজস্ব প্রতিবেদক)


আপনার মন্তব্য