শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২১ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ আগস্ট, ২০১৯ ২৩:৪১

মৃত্যুদন্ড ১৯ জনের

অগ্রাধিকার মেলেনি ডেথ রেফারেন্স শুনানিতে

আরাফাত মুন্না

১৫ বছর আগে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশে চালানো হয়েছিল ভয়াবহ গ্রেনেড হামলা। এ ঘটনার দুই মামলায় গত বছর বিচারিক আদালতের রায়ের পর ডেথ রেফারেন্স ও আপিল নিষ্পত্তির জন্য সব নথি হাই কোর্টে পাঠানো হলেও এখনো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে শুনানির উদ্যোগ নেয়নি রাষ্ট্রপক্ষ। বহুল আলোচিত এ মামলার পেপারবুক প্রস্তুতের কাজও চলছে প্রচলিত নিয়মেই। সাধারণ মামলার মতো এই পেপারবুক বিজি প্রেসেই ছাপানো হবে, নাকি বিডিআর বিদ্রোহের মামলার মতো বিশেষ ব্যবস্থায় সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসনই ছাপাবে, সেই সিদ্ধান্ত এখনো হয়নি। গত বছর ১০ অক্টোবর দেওয়া রায়ে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর ও আবদুস সালাম পিন্টুসহ ১৯ আসামিকে মৃত্যুদ  দেয় ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১। একই অপরাধে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান, হারিছ চৌধুরীসহ ১৯ আসামিকে যাবজ্জীবন সাজা দেওয়া হয়। আরও ১১ আসামিকে দেওয়া হয় বিভিন্ন মেয়াদে সাজা। রায়ে বলা হয়, হরকাতুল জিহাদ (হুজি) নেতা মুফতি আবদুল হান্নান ও তার সহযোগীরা গ্রেনেড হামলার কিছু দিন আগে বনানীর হাওয়া ভবনে গিয়ে তারেক রহমানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। পরে এক বৈঠকে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগ নেতাদের হত্যা করার সহযোগিতা চায় জঙ্গিরা। তারেক রহমান উপস্থিত সবার সামনে জঙ্গিদের সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন। আর ওই হামলার মুখ্য উদ্দেশ্য ছিল শেখ হাসিনাকে হত্যা করে তার দলকে নেতৃত্বশূন্য করা। ২৭ নভেম্বর রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি ও যাবতীয় নথিপত্র ডেথ রেফারেন্স হিসেবে হাই কোর্টে পাঠানো হয়। মামলাটি জনগুরুত্বপূর্ণ ও চাঞ্চল্যকর বিবেচনায় নিয়ে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ডেথ রেফারেন্স ও আপিল নিষ্পত্তির দাবি অনেক আইনজীবীর।

তৎকালীন রাষ্ট্রযন্ত্রের গভীর ষড়যন্ত্র আর পৃষ্ঠপোষকতায় বিভীষিকাময় এ হামলার সঙ্গে জড়িত ছিল দুর্ধর্ষ জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদ আল ইসলামী বাংলাদেশ (হুজিবি)। ষড়যন্ত্র শুধু হামলায়ই শেষ হয়নি, বিচার ভিন্ন খাতে প্রভাবিত করতেও সাজানো হয়েছিল জজ মিয়া নাটক। সুপ্রিম কোর্টের নিয়ম অনুযায়ী, নিম্ন আদালত আসামিকে মৃত্যুদ  দিলে তা কার্যকরের জন্য হাই কোর্টের অনুমোদনের প্রয়োজন হয়। মৃত্যুদে র রায় ঘোষণার পর মামলার সব নথি হাই কোর্টে পাঠানো হয়, যা ডেথ রেফারেন্স মামলা হিসেবে হাই কোর্টে এন্ট্রি হয়। ওই নথি আসার পর হাই কোর্টের ডেথ রেফারেন্স শাখা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে পেপারবুক প্রস্তুত করে। পেপারবুক প্রস্তুত হলে মামলাটি শুনানির জন্য প্রস্তুত হয়েছে বলে ধরে নেওয়া হয়।

জানা গেছে, সাধারণত সব মামলার পেপারবুক টাইপিং শেষে ছাপার জন্য বিজি প্রেসে পাঠানো হলেও কিছু গুরুত্বপূর্ণ মামলার ক্ষেত্রে সুপ্রিম কোর্টেই পেপারবুক ছাপার নজির রয়েছে। যেমনটি হয়েছিল বিডিআর বিদ্রোহের মামলার ক্ষেত্রে। সুপ্রিম কোর্টের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় বিডিআর মামলার পেপারবুক (মামলার নথি, রায়, আপিলের যুক্তিসহ যাবতীয় কাগজপত্র) তৈরির জন্য জাপান থেকে তিনটি ডিজিটাল ডুপ্লিকেটিং মেশিনও আনা হয়েছিল। শুনানি হয়েছিল বিশেষ বেঞ্চে। তবে চাঞ্চল্যকর ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় এখন পর্যন্ত এ ধরনের কোনো উদ্যোগ লক্ষ্য করা যায়নি। জানতে চাইলে হাই কোর্ট বিভাগের স্পেশাল অফিসার মো. সাইফুর রহমান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ২১ আগস্ট মামলার পেপারবুক তৈরির জন্য মামলার সব নথি টাইপের কাজ চলছে। এটা সম্পন্ন হলেই পেপারবুক ছাপানোর জন্য ব্যবস্থা করা হবে। বিডিআর মামলার মতো এ মামলার পেপারবুকও সুপ্রিম কোর্টের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় ছাপানো হবে কিনা- এমন প্রশ্নে সাইফুর রহমান জানান, এ মামলার বিষয়ে এখনো এমন কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, বিডিআরের (হত্যাযজ্ঞ) মামলায় বিশেষ ব্যবস্থায় পেপারবুক তৈরি হয়েছিল। এ মামলাতেও যাতে বিশেষ ব্যবস্থায় পেপারবুক তৈরি করা হয়, সে জন্য সুপ্রিম কোর্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করব। পেপারবুক তৈরি হলেই শুনানির উদ্যোগ নেওয়া হবে। অন্য যারা আপিল ও জেল আপিল করেছে, সেগুলোও একসঙ্গে শুনানি করা হবে। জানতে চাইলে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোমতাজ উদ্দিন আহমেদ মেহেদী বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ২১ আগস্টের ওই হামলার মাধ্যমে বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বের ওপর আঘাত করা হয়েছিল। হত্যার চেষ্টা করা হয়েছিল জাতির জনকের কন্যাকে। ওই হামলায় অনেক মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। ফলে মামলাটি জনগুরুত্বপূর্ণ বিবেচনায় নিয়ে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে আপিল ও ডেথ রেফারেন্স শুনানি হওয়া উচিত।

মামলা থেকে রায় : হামলার দিন রাতেই এসআই শরীফ ফারুক আহমেদ বাদী হয়ে মতিঝিল থানায় একটি মামলা করেন। পরদিন আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে মামলা করতে গেলে তা নেওয়া হয়নি। মামলাকে ভিন্ন খাতে নিতে বিএনপির নীতিনির্ধারক অনেকে তৎকালীন একটি প্রভাবশালী গোয়েন্দা সংস্থাকে ব্যবহার করে। তারা জজ মিয়া নাটক মঞ্চায়নের সব আয়োজনও সম্পন্ন করে। এমনকি আওয়ামী লীগের দিকে সন্দেহের আঙ্গুল তুলে বিএনপি দিতে থাকে নানা বক্তৃতা-বিবৃতি।

২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার পুনঃতদন্ত শুরু হয়। তখন বেরিয়ে আসতে থাকে অনেক অজানা তথ্য। ২০০৮ সালের ১১ জুন সিআইডি কর্মকর্তা ফজলুল কবীর দুটি অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এতে বিএনপি নেতা আবদুস সালাম পিন্টু, তার ভাই মাওলানা তাজউদ্দিন, হুজিবি নেতা মুফতি হান্নানসহ ২২ জনকে আসামি করা হয়। ওই বছরই মামলা দুটি দ্রুত বিচার আদালতে স্থানান্তর করা হয়। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে হামলার বিচার কার্যক্রম শুরু হয়। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের পর অধিকতর তদন্তের নির্দেশ দেয় আদালত। দুই বছর তদন্তের পর ২০১১ সালের ৩ জুলাই তারেক রহমানসহ ৩০ জনকে আসামি করে সম্পূরক চার্জশিট দাখিল করা হয়। এ নিয়ে এ মামলায় মোট আসামির সংখ্যা হয় ৫২ জন। অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে ২০১২ সালের ১৮ মার্চ আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয় বিচার প্রক্রিয়া। গত বছর ১৮ সেপ্টেম্বর উভয় পক্ষের (রাষ্ট্র ও আসামি পক্ষ) যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে ঢাকার ১ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন রায়ের জন্য দিন ঠিক করেন। ১০ অক্টোবর রাজধানীর নাজিমুদ্দিন রোডে অবস্থিত পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারের পাশে স্থাপিত বিশেষ এজলাসে চাঞ্চল্যকর এ মামলা দুটির রায় ঘোষণা করে বিচারক।


আপনার মন্তব্য