শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৭ ডিসেম্বর, ২০১৯ ২৩:২০

বিচার বিভাগীয় সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী

সবাই যেন ন্যায়বিচার ও আইনের আশ্রয় পায়

নিজস্ব প্রতিবেদক

সবাই যেন ন্যায়বিচার ও আইনের আশ্রয় পায়
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় বিচার বিভাগীয় সম্মেলনে বক্তব্য দেন -বাংলাদেশ প্রতিদিন

পিতা হত্যার ন্যায়বিচারের দাবিতে নিজেদের অপেক্ষার কথা স্মরণ করে বিচারকদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সবারই ন্যায়বিচার পাওয়ার অধিকার আছে। আমরা চাই না স্বজন হারানোর বেদনা নিয়ে আর কেউ বছরের পর বছর অতিবাহিত করুক। দেশ ও জনগণ এবং সংবিধানের প্রতি দায়বদ্ধ থেকে আপনারা আপনাদের মেধা, মনন ও প্রজ্ঞার মাধ্যমে আইনের শাসন ও ন্যায়বিচার নিশ্চিত করবেন। প্রধানমন্ত্রী গতকাল সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আয়োজিত জাতীয় বিচার বিভাগীয় সম্মেলন-২০১৯ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভাষণ দিচ্ছিলেন।

১৫ আগস্ট জাতির পিতার খুনিদের বিচার বন্ধ করার লক্ষ্যে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করে তৎকালীন সেনাসমর্থিত স্বৈরশাসক সরকারের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমি আমার বাবা-মার হত্যার বিচারের জন্য মামলা করতে চেয়েছি। মামলা করতে পারিনি। কারণ মামলা করার কোনো অধিকার আমার ছিল না। খুনিদের বিচার না করে বিভিন্ন দূতাবাসে চাকরি দিয়ে পুরস্কৃত করা হয়েছিল। তাদেরকে রাজনীতি করার সুযোগ দেওয়া হয়েছিল। রাষ্ট্রপতি প্রার্থীও করা হয়েছিল এক খুনিকে। পরবর্তীতে ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে এই খুনিদের ভোট চুরি করে জাতীয় সংসদের সদস্য করে বিরোধীদলীয় নেতার চেয়ারেও বসানো হয়েছিল। এমনিভাবে খুনিদের মদদ দিতে দেখেছি। তিনি বলেন, আমি যখন সেই সময় সুপ্রিম কোর্টে বা কোনো অনুষ্ঠানে গেছি, আমার খালি এটাই মনে হয়েছে যে, বিচারের বাণী নীরবে নিভৃতে কাঁদে। বিচারকদের ইংরেজি ভাষার পাশাপাশি বাংলা ভাষায় রায় লেখারও আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের মামলার রায় লেখা হয় শুধু ইংরেজি ভাষায়। তাতে সাধারণ মানুষ যারা হয়তো ইংরেজি ভালো বোঝেও না, তারা সঠিকটা জানতে পারে না, রায়টা কী হলো! সেজন্য ইংরেজিতেও লেখা হোক, সঙ্গে সঙ্গে তার একটা বাংলা থাকা উচিত।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, অনেকগুলো সাহসী পদক্ষেপের ফলে বিচার বিভাগের প্রতি মানুষের আস্থা বেড়েছে। জাতির পিতার হত্যাকারীদের বিচারের রায় দেওয়ার পথে অনেক বাধা ছিল। সেই বাধা অতিক্রম করে এই রায় দেওয়া হয়েছে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করা  হয়েছে এবং এরকম বহু ঘটনা। শিক্ষার্থী নুসরাত হত্যার রায় একটা দৃষ্টান্ত। অনেকগুলো রায় খুব দ্রুত দেওয়ার ফলে আমি বলব বিচার বিভাগের প্রতি মানুষের আস্থা বিশ্বাস অনেক বেড়ে গেছে। 

রাষ্ট্র পরিচালনায় আইন বিভাগ, বিচার বিভাগ ও নির্বাহী বিভাগের মধ্যে সমন্বয়ের ওপর গুরুত্ব দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তিনটি অঙ্গ তাদের নিজস্ব আইন ও নীতি দ্বারা চলবে, এটা ঠিক, আবার তিনটি অঙ্গের মধ্যে সমন্বয় থাকতে হবে, যা দেশকে শান্তি ও উন্নয়নের পথে এগিয়ে নিয়ে যাবে। মানুষের ন্যায়বিচার পাওয়া এবং উন্নয়নের জন্য এটা একান্ত অপরিহার্য বলে আমি বিশ্বাস করি। শিগগিরই স্বতন্ত্র আইন বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার প্রতিশ্রুতি দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, মাননীয় প্রধান বিচারপতি একটি আইন বিশ্ববিদ্যালয়ের কথা বলেছেন। আসলে এই ধারণাটা কখনো আমাদের চিন্তায় আসেনি বা কেউ বলেনওনি। আমি তো আর আইন পড়িনি। আমি নিরেট একেবারে সাদামাটা বাংলার ছাত্রী। আমি মনে করি যে, এটা অত্যন্ত উত্তম একটা প্রস্তাব, এটা হওয়া একান্তভাবে প্রয়োজন। প্রস্তাব নিয়ে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে আলাপ করে খুব দ্রুত যাতে হয়, সেই ব্যবস্থা করে দেব। পৃথিবীর সব দেশে আছে, আমাদের দেশে কেন থাকবে না! বিচারকদের নিরাপত্তা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা বিভিন্ন সন্ত্রাসী বা অপরাধীদের বিচার করেন, রায় দেন তাদের নিরাপত্তা আর বসবাসের ভালো ব্যবস্থা করা, যাতায়াতের সুব্যবস্থা করা এটা অবশ্যই সরকারের কর্তব্য। কাজেই এর জন্য যা করণীয়, সেটা অবশ্যই সরকার করবে। এর আগে সভাপতির ভাষণে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন দেশে একটি স্বতন্ত্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবি করেন। তিনি বলেন, আমি বিশ্বাস করি আমাদের প্রতিবেশী রাষ্ট্রের মতো আইন শিক্ষার গুণগত মান উন্নয়নে একটি স্বতন্ত্র আইন বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা এখন সময়ের দাবি। মুজিববর্ষে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তিনি তো বলেই গেছেন, বাংলাদেশের মানুষকেই বেশি ভালোবাসেন। আর সেই পিতার ভালোবাসার মানুষগুলোর জীবনটা উন্নত হোক, সমৃদ্ধশালী হোক, মানসম্মত হোক। বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের জনগণ মাথা উঁচু করে মর্যাদার সঙ্গে চলবে। সেভাবেই দেশটাকে আমরা গড়ে তুলতে চাই। সভাপতির বক্তব্যে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেন, প্রধানমন্ত্রী বিচার বিভাগের সমস্যা সম্পর্কে সম্পূর্ণ অবহিত। তাঁর বিশ্বাস সমস্যার সমাধানে প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিক প্রয়াস অব্যাহত থাকবে এবং দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য সরকার পর্যায়ক্রমিক বিচারক সংখ্যা দ্বিগুণ করা হবে। তিনি বলেন, এটা অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক যে, সরকারের নতুন উদ্যোগে নতুন আদালত ভবন নির্মাণ, জনবল নিয়োগ, যানবাহন, আসবাবপত্র, আইটি সরঞ্জাম সরবরাহ, নতুন বিচারক নিয়োগ এবং বিচারকদের নিরাপত্তা বিধান ইত্যাদি কার্যক্রমে বিচার বিভাগে একটি উন্নত কর্মপরিবেশ তৈরি হয়েছে। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব গোলাম সারওয়ার, সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল মো. আলী আকবর, মুন্সীগঞ্জের সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ হোসনে আরা বেগম। এ ছাড়াও জাতীয় বিচার বিভাগীয় সম্মেলন উপলক্ষে একটি প্রামাণ্যচিত্র দেখানো হয়। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন প্রধান বিচারপতি।

বিচারিক কর্মঘণ্টার পূর্ণ ব্যবহার চান প্রধান বিচারপতি : জাতীয় বিচার বিভাগীয় সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে অধস্তন আদালতের বিচারকদের উদ্দেশ্যে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেছেন, আমরা আপিল বিভাগের বিচারপতিরা ঠিক সকাল ৯টায়ই কোর্টে উঠি। এক মিনিট সময়ও নষ্ট করি না। প্রধান বিচারপতি এবং আপিল বিভাগের বিচারপতিরা যদি সময়মতো কোর্টে ওঠেন তাহলে অধস্তন আদালতের বিচারকরা কেন সময়মতো এজলাসে উঠবেন না। তাই এজলাসে ওঠা ও নামার বিষয়টি কঠোরভাবে লক্ষ্য করা হবে বলে জানান প্রধান বিচারপতি।

বিচারকদের উদ্দেশ্যে প্রধান বিচারপতি আরও বলেন, আমাদের বিচারের (নিম্ন আদালতের ট্রায়াল) অবস্থা সবচেয়ে খারাপ। ট্রায়াল হচ্ছে না কোথাও। হাজার হাজার মামলা জমে যাচ্ছে। এ জন্য বিচারের সিস্টেমে পরিবর্তন আনতে হবে। সকালে ট্রায়াল হবে, বিকালে মিসলেনিয়াস মেটার, বেইল মেটার হবে এবং বেইল মেটার যদি রাত ১০টায়ও শুনানি করেন, দেখবেন যে কোর্ট ভর্তি আইনজীবী। একজনও অনুপস্থিত থাকবেন না। এ বিষয়গুলো অনুসরণ না করলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান প্রধান বিচারপতি। দিনব্যাপী জাতীয় বিচার বিভাগীয় সম্মেলনের পর সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের আমন্ত্রণে নৈশভোজে অংশ নেন প্রধান বিচারপতি, আপিল বিভাগ ও হাই কোর্ট বিভাগের বিচারপতি এবং অধস্তন আদালতের বিচারকরা।


আপনার মন্তব্য