শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ এপ্রিল, ২০২০ ০০:১২

হু যা বলছে, অনেক আগেই ইসলাম তা-ই বলেছে

অধ্যাপক ডা. এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী

হু যা বলছে, অনেক আগেই ইসলাম তা-ই বলেছে

কভিড-১৯ সংক্রমণ দ্রুতগতিতে যেভাবে ছড়িয়ে যাচ্ছে তা অবশ্যই পশ্চিমা অগ্রগামী দেশ নিয়ন্ত্রণে আনতে পারেনি। তবে তারা নিরলসভাবে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। হতাশ হয়নি। এটাই আজকের দিনে বড় সুসংবাদ। পরাক্রমশালী যুক্তরাষ্ট্র, ইতালি ও স্পেনের মতো দেশ কভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে যেভাবে যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে তা আশার কথা। অন্যদিকে বাংলাদেশের জন্যও সুসংবাদ যে, আমাদের এখন অনেক টেস্টিং কিট আছে বলে সরকার নিশ্চিত করেছে। এ ছাড়া কয়েক দিন আগে যেখানে এক ল্যাবরেটরির মাধ্যমে কভিড-১৯ টেস্ট পরীক্ষা করানো হতো, সেখানে ওই টেস্টের সুযোগ আরও ৯/১০টি জায়গায় ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এতে আগের চেয়ে অনেক বেশি করোনাভাইরাস পরীক্ষা করার সুযোগ-সুবিধা বেড়েছে।

আমাদের চিকিৎসক, নার্স এবং অন্য কর্মীদের জন্য পিপিই বাড়ানো হয়েছে। বড় বড় ওষুধ কোম্পানি, অনেক দাতব্য সংস্থা এমনকি চীন থেকেও আমরা পিপিই ও অন্যান্য সামগ্রী পেয়েছি। অনেক বড় বড় প্রতিষ্ঠান মানবিক সহযোগিতার জন্য সরকারকে হাসপাতালের জায়গা দিতে সম্মত হয়েছে। এটা সহযোগিতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। মনে রাখতে হবে স্পেনে করোনাভাইরাসে মারা যাওয়া ১৪ শতাংশ মানুষ চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী। আমাদেরও সেই বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনায় নিতে হবে। বাংলাদেশে পিপিই নিশ্চিত করায় চিকিৎসাসেবা বেড়ে গেছে। বাংলাদেশের মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে সরকারের আহ্বানে সাড়া দিয়ে ‘লকডাউন’ কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছে। এটা ধরে রাখতে হবে। এ জন্য সরকার ও দেশের জনগণকে ধন্যবাদ জানাই। একই সঙ্গে যারা দিন আনে দিন খায়-এমন শ্রমিক, নিঃস্ব ও হতদরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য সরকারের খাদ্যসামগ্রীসহ অন্যান্য উপকরণ নিশ্চিত করতে হবে। সরকার যে পরিমাণ সামগ্রী বিতরণ করছে, তার পরিমাণ যথেষ্ট কিনা, আবার সঠিকভাবে সমবণ্টন হয় কিনা এবং নিশ্চিতভাবেই দরিদ্র জনগোষ্ঠী পায় কিনা তাও সরকারকে নিশ্চিত করতে হবে। বিবিসি সিএনএন নিউজে দেখতে পেলাম, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প বলছেন, ১০ লাখ মানুষের কভিড-১৯ পরীক্ষা করিয়েছেন। তারপরও তিনি আগামী ৩০ দিন আমেরিকায় কভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে ‘ঝুঁকিপূর্ণ সময়’ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন। ভারতেও কভিড-১৯ এ আক্রান্তের হার ক্রমেই বাড়ছে। দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি প্রথম ধাক্কায় ঝুঁকি এড়াতে তিন সপ্তাহের ‘লকডাউন’ দিয়েছেন। জনগণের কাছে সাময়িক অসুবিধার জন্য ক্ষমাও চেয়েছেন। আমাদের সরকারপ্রধানকে বিবেচনা করতে হবে, প্রথম ধাক্কায় তিন সপ্তাহ লকডাউন করা যায় কিনা। এতে কষ্ট হবে, কিন্তু দেশকেও তো বাঁচাতে হবে। জনগণের যে কষ্ট হবে তাও সরকারকে বিবেচনায় নিতে হবে। বিশ্বব্যাপী কভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে সবচেয়ে বড় স্লোগান ‘সামাজিক দূরত্ব’ বজায় রাখা ও ‘স্টে হোম’ (বাড়িতে থাকো)। এটাই মূলত করোনাভাইরাস থেকে মুক্তির উপায়। বাংলাদেশে যাদের বয়স ৫৫ থেকে ৬০ এর বেশি এবং যারা ডায়াবেটিস, কিডনি, ফুসফুস, শ্বাসকষ্ট, হার্ট ও ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন, তারা দয়া করে কিছুতেই ঘরের বাইরে বেরুবেন না। প্লিজ, স্টে হোম। আপনারা দয়া করে চিকিৎসকদের সঙ্গে যথাসম্ভব কথা বলুন। জরুরি কোনো কারণে বাইরে যেতে হলে অবশ্যই সার্জিক্যাল মাস্ক ব্যবহার করুন। রাবার গ্লাভস ব্যবহার করুন। লোকজনের সঙ্গে কথা বলতে হলে অন্তত ৬ ফুট দূরত্বে কথা বলুন। প্রয়োজনীয় কাজ সেরে বাড়ি ফিরে এসে সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে ফেলুন। মাস্ক পরিবর্তন করুন বা ধুতে দিন। আমরা যারা মুসলমান, আমাদের নামাজের সময় অজু করতে প্রথমেই হাত ধুতে হয়। গড়গড়া করে কুলি করতে হয় এবং নাকের ভিতর পানি দিয়ে পরিষ্কার করতে হয়। আজকের চিকিৎসা বিজ্ঞান ও ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন (ডাব্লিউএইচও) কভিড-১৯ মোকাবিলায় প্রধান অস্ত্র হিসেবে হাত ধোয়ার পরামর্শ দিচ্ছে। গড়গড়ার সঙ্গে কুলি করতে বলছে। পানি দিয়ে নাক পরিষ্কার করতে বলছে। মুখ ধুতে বলেছে। যা ১৪০০ বছর আগে ইসলাম অর্থাৎ আমাদের নবীজি এই শিক্ষা দিয়ে গেছেন। আমরা এখনো দেখতে পাচ্ছি নন টেকনিক্যাল বিভ্রান্তিকর বক্তব্য গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা মিডিয়াতে দিচ্ছেন। যে বক্তব্যগুলো ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশনের (ডাব্লিউএইচও) সঙ্গে কোনোভাবেই মেলে না। এসব বক্তব্য পরিহার করা উচিত। যেমন উদাহরণস্বরূপ, ঘাতক ভাইরাসের নাম স্পষ্টভাবে ডাব্লিউএইচও নামকরণ করেছেন। অনেকে নভেল করোনাভাইরাস নামে বলছেন। এর নাম হচ্ছে কভিড-১৯। অর্থাৎ করোনাভাইরাস ডিটেকটেড-২০১৯। আরেকটি বিষয় মনে রাখতে হবে, টাকার মাধ্যমেও কিন্তু কভিড-১৯ ছড়াতে পারে। এক্ষেত্রে আমাদের সতর্ক হতে হবে। সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। তবে ডাব্লিউএইচওর মতে, সংবাদপত্রের মাধ্যমে এই ভাইরাস ছড়ায় না। এটা সাধারণত নিরাপদ। তবে আমাদের খেয়াল রাখতে হবে, ব্যবহৃত যে কোনো কাগজপত্রই বেশি ধরা উচিত নয়। লেখক : সাবেক রাষ্ট্রপতি ও রোগ বিজ্ঞানের বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক। অনুলেখক : মাহমুদ আজহার


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর