শিরোনাম
বুধবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

বৈষয়িক উন্নয়ন হয়েছে, অবনমন মানবিকতার

সৈয়দ আনোয়ার হোসেন

বৈষয়িক উন্নয়ন হয়েছে, অবনমন মানবিকতার

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার ৫০ বছরের মধ্যে প্রায় ২৫ বছর আমরা হারিয়েছি। কারণ ৭৫ থেকে ৯৬ সাল পর্যন্ত যারা দেশ পরিচালনা করেছে তাদের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ছিল না। তারা রাজাকারদের হাতে ক্ষমতা তুলে দিয়েছিল। বাকি ২৫ বছর আমরা সময় পেয়েছি। এই সময়ে বৈষয়িক সমৃদ্ধি অর্জন করেছি, কিন্তু মনুষ্যত্বের অবনমন হয়েছে প্রচ-ভাবে।

আমরা অনেক কিছু হারিয়েছি। ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হারিয়েছি, চার জাতীয় নেতাকে হারিয়েছি। অনেক হারিয়ে আমরা এখন পেতে শুরু করেছি। আমাদের প্রবৃদ্ধি হয়েছে অনেক, যা সারা বিশ্বে নজরকাড়া। তবে এই প্রবৃদ্ধিকে আমি এখনো উন্নয়ন বলব না। কারণ উন্নয়ন মানে হচ্ছে সমতা ভিত্তিক প্রবৃদ্ধি। বৈষম্য আছে আমাদের দেশে। গত ১২-১৩ বছরে প্রায় ৭০ ভাগ আয় বৈষম্য হয়েছে। করোনায় আরও বিপন্ন হয়েছি আমরা। উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ হচ্ছে আমাদের, জাতিসংঘ সর্বসম্মতিক্রমে প্রস্তাব করেছে। এগুলো পুঁজিবাদী পদ্ধতি। আমি চাই বাংলাদেশে তিনটি লক্ষ্য যেন বাস্তবায়িত হয়। একাত্তরের ১০ এপ্রিল মুজিবনগর সরকার স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রে বলেছিল সাম্য, মানবিক মর্যাদা এবং ন্যায় বিচার। এই তিনটি লক্ষ্য বাস্তবায়নের জন্য বঙ্গবন্ধু ১৯৭২ সালের সংবিধান করেছিলেন। সেই সংবিধান তো এখন ক্ষতবিক্ষত। সেই তিনটি লক্ষ্যের একটিও আমরা ৫০ বছরে অর্জন করতে পারিনি। আমরা বৈষয়িক সমৃদ্ধি অর্জন করেছি, কিন্তু মনুষ্যত্বের অবনমন হয়েছে প্রচ-ভাবে। ৭১ সালে কিছু রাজাকার ছাড়া বাংলাদেশের মানুষ ছিল বিশ্বের মধ্যে শ্রেষ্ঠ। এখন বাংলাদেশের মানুষ নিকৃষ্ট মানুষে পরিণত হয়েছে। সেজন্য অর্জন-বিয়োজন মিলিয়ে ৫০ বছরে আমরা এগিয়েছি অনেকটা; তবে যেতে হবে আরও বহুদূর। বিশেষ করে আদর্শিক বিচ্যুতির জায়গাটা অনেক বড়। আমাদের সংবিধানে বলা আছে রাষ্ট্রের মালিক জনগণ কিন্তু জনগণ এখনো রাষ্ট্রের মালিক হতে পারল না। লেখক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক, ইতিহাসবিদ। অনুলিখন : জয়শ্রী ভাদুড়ী।

সর্বশেষ খবর