শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১০ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ আগস্ট, ২০২০ ০০:১৪

সহযোগী সংগঠনগুলোয় অনুপ্রবেশকারী মুক্ত কমিটি চায় তৃণমূল

ফরিদপুরে আওয়ামী লীগ

কামরুজ্জামান সোহেল, ফরিদপুর

দীর্ঘদিন ধরে নানাভাবে নির্যাতিত ছিলেন ফরিদপুর আওয়ামী লীগের ত্যাগী ও রাজপথের সক্রিয় নেতা-কর্মীরা। জেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলো থেকে একে একে সরিয়ে দেওয়া হয় তাদের। বিএনপি-জামায়াত থেকে আসা ব্যক্তিরা ক্রমেই দলের গুরুত্বপূর্ণ পদে অধিষ্ঠিত হয়ে প্রভাব-প্রতিপত্তি চালাতে থাকেন। নব্যদের দাপট এবং ক্ষমতার প্রভাবে দলের কর্মকান্ড থেকে পুরনোদের অনেকেই সরে যেতে বাধ্য হন। কেউ কেউ নব্যদের বিরুদ্ধে কথা বললে তাকে নির্যাতনের মুখে পড়তে হয়েছে। বিএনপি-জামায়াত থেকে আসা অনুপ্রবেশকারীদের সমর্থনে গঠিত ‘হেলমেট বাহিনী’, ‘হাতুড়ি বাহিনী’র হামলায় মারাত্মকভাবে আহত হন প্রবীণ নেতা নুর মোহাম্মদ বাবুল। এই বাহিনীর কবল থেকে রক্ষা পাননি রাজেন্দ্র কলেজের সাবেক ভিপি ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মনিরুজ্জামান মনির, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি শওকত আলী জাহিদ, আওয়ামী লীগ নেতা বদিউজ্জামান বাবুল, ছাত্রলীগ নেতা তাওফিক হোসেন পুচ্ছিসহ অনেকেই। নব্যদের দাপটে আওয়ামী লীগের কোনো অনুষ্ঠানে দাওয়াত পর্যন্ত পাননি বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মাসুদ হোসেন। কেবল প্রভাবশালী এক নেতার বিরোধিতা করার কারণেই তাকে দলীয় কর্মকান্ড থেকে শুরু করে সব জায়গা থেকে ‘আউট’ করা হয়। ফলে দীর্ঘদিন ধরে ফুঁসে ওঠা ক্ষোভ বর্তমানে ব্যাপক আকার ধারণ করেছে। সাম্প্রতিক সময়ে আওয়ামী লীগে দুর্নীতিবিরোধী শুদ্ধি অভিযানে দলে আসা নব্য নেতাদের কয়েকজন গ্রেফতার হলে ফের রাজনীতি করার স্বপ্ন দেখছেন একসময়ের জাঁদরেল নেতারা। ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের প্রবীণ কয়েকজন নেতা জানান, আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোকে বিএনপি-জামায়াত নিয়ে এক ব্যক্তির দলে পরিণত করা হয়েছিল। দলের নেতাদের বাদ দিয়ে ফরিদপুরে আওয়ামী লীগকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। বিগত দিনে যারা জাতির পিতাকে নিয়ে কটূক্তি করেছে, তাদের দলে এনে পদ-পদবি দিয়ে আসল আওয়ামী লীগ নেতাদের রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

শনিবার কোতোয়ালি আওয়ামী লীগের এক সভায় এসব বিষয় নিয়ে উপস্থিত নেতারা ছিলেন বেশ সোচ্চার। দলে অনুপ্রবেশকারীদের বহিষ্কারের পাশাপাশি বর্তমান কমিটি বাদ দিয়ে সম্মেলন না হওয়া পর্যন্ত ফরিদপুর জেলার সদর উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের পূর্বের কমিটি বহাল রাখার পক্ষে জোরালো দাবি ওঠে। উপস্থিত নেতাদের অভিযোগ, বর্তমানে ১২টি ইউনিয়নে যাদের দিয়ে কমিটি গঠন করা হয়েছে তাদের বেশির ভাগই বিএনপি-জামায়াত থেকে আসা। অন্যায় এবং অবৈধভাবে পূর্বের কমিটি বাতিল করে লোক-দেখানো সম্মেলন করে ‘পকেট কমিটি’ করা হয়েছে। বঞ্চিত করা হয়েছে দলের পরীক্ষিত নেতাদের। অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, নব্যদের দাপটে এবং তাদের সন্ত্রাসী কার্যকলাপের কারণে ত্যাগী নেতারা এলাকায় পর্যন্ত থাকতে পারেননি। সভা থেকে  কেন্দ্রীয় নেতাদের বিষয়টি অবহিত করার পাশাপাশি ১৫ আগস্টের পর সম্মেলন নিয়ে সভা করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে সূত্র জানায়। তবে শনিবারের সভা শেষ হওয়ার পর সদর উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের মধ্যে খবর ছড়িয়ে পড়ে বর্তমান কমিটি বাতিল করে পূর্বের কমিটি বহাল রাখা হয়েছে। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে এ বিষয়টি ব্যাপকভাবে আলোচনার সৃষ্টি করে। পূর্বে যারা সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক ছিলেন তাদের অনেকেই নড়েচড়ে বসেন। তাদের অনুসারীরা সভাপতি-সম্পাদকের ছবি দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করতে থাকেন। এ ব্যাপারে কোতোয়ালি আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুর রাজ্জাক মোল্লার দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, সভায় অনেকেই বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন। ফলে দ্রুতই কেন্দ্রীয় নেতাদের মাধ্যমে নতুন কমিটি করার চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। অনেকেই পূর্বের কমিটি বহাল রাখা হয়েছে এমন কথা বলছেন। কিন্তু দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ীই সবকিছু করতে হবে। ১৫ আগস্টের পর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। জেলা আওয়ামী লীগের প্রবীণ তিন নেতা জানান, ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগে ত্যাগীদের হটিয়ে নব্য আওয়ামী লীগারদের স্থান দেওয়া হয়েছে। সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি গঠন করার কথা থাকলেও সেটি হয়নি। কেন্দ্র থেকে সভাপতি হিসেবে সুবল চন্দ্র সাহাকে এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে সৈয়দ মাসুদ হোসেনের নাম ঘোষণা করা হয়। পরবর্তীতে জেলার প্রভাবশালী এক নেতার ইচ্ছায় ত্যাগীদের বাদ দিয়ে অনুপ্রবেশকারীদের পদে আনা হয়। সহসভাপতি হিসেবে রাখা হয় থানা বিএনপির প্রভাবশালী এক নেতাকে। একইভাবে বিভিন্ন পদে অনুপ্রবেশকারীদের গুরুত্বপূর্ণ পদ দিয়ে একটি ‘পকেট কমিটি’ করা হয়। সাধারণ সম্পাদককে সব কাজের বাইরে রেখে তারা একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করে দল চালাতে থাকে।

এদিকে শুধু ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগই নয়, সহযোগী সংগঠনগুলোর কমিটি বিলুপ্ত করে নতুন কমিটি গঠন করার দাবি ক্রমেই জোরালো হচ্ছে। অন্য দল থেকে অনুপ্রবেশকারীদের নিয়ে কমিটি করা নিয়ে সবচেয়ে বেশি সমালোচনার মুখে রয়েছে শহর আওয়ামী লীগ ও শহর যুবলীগ। শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক যথাক্রমে নাজমুল হাসান খন্দকার লেভী ও সাজ্জাদ হোসেন বরকত বর্তমানে কারাগারে রয়েছেন। তাছাড়া শহর আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা রয়েছেন গ্রেফতারের তালিকায়। ফলে গ্রেফতার এড়াতে তাদের অনেকেই পালিয়ে আছেন। শহর যুবলীগের অবস্থাও একই। বিভিন্ন দল থেকে আসা ব্যক্তিদের টাকার বিনিময়ে গুরুত্বপূর্ণ পদ দিয়ে পুরস্কৃত করা হয়েছে। বর্তমানে যুবলীগের আহ্বায়ক এ এইচ এম ফোয়াদ পলাতক রয়েছেন। কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকা নেতারা ফরিদপুর ছাড়া। পালিয়ে থাকা নেতাদের গ্রেফতারে পুলিশ হন্যে হয়ে খুঁজছে তাদের। দীর্ঘদিন ধরে সম্মেলন হয় না জেলা শ্রমিক লীগে। নেই কোনো কর্মকান্ডও। জেলা শ্রমিক লীগের কতিপয় নেতার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজিরও অভিযোগ রয়েছে। একই সঙ্গে দলে পদ-পদবি দিয়ে অনেকের কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা নেওয়ারও অভিযোগ করেছেন কেউ কেউ। একই অবস্থা জেলা ছাত্রলীগের। দীর্ঘদিন ধরে নেই কোনো সম্মেলন। দলের সভাপতি নিশান মাহমুদ শামীম ও সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে রয়েছে দুর্নীতি ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের অভিযোগ। এসব অভিযোগ মাথায় নিয়ে পুলিশের গ্রেফতার এড়াতে বর্তমানে তারা পলাতক রয়েছেন। স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক ফাহাদ বিন ওয়াজেদ ফাইনের বিরুদ্ধে বিস্তর অভিযোগ রয়েছে। তিনিও পলাতক।

জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনগুলোতে অনুপ্রবেশকারীদের বিষয়ে কেন্দ্রীয় নেতারা সঠিক সিদ্ধান্ত নেবেন বলে মনে করেন তৃণমূল নেতা-কর্মীরা। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মাসুদ হোসেন বলেন, আওয়ামী লীগে আর কোনো অনুপ্রবেশকারীকে ঠাঁই দেওয়া হবে না। যারা অনুপ্রবেশ করে দলের ক্ষতি করেছেন, তাদের বিষয়ে কঠোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। এদিকে, দুর্নীতিবিরোধী শুদ্ধি অভিযানে আটক এবং ২ হাজার কোটি টাকার মানি লন্ডারিং মামলার আসামি শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি নাজমুল হাসান খন্দকার লেভী, সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন বরকত, জেলা শ্রমিক লীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক বিল্লাল হোসেন, শহর যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসিবুর রহমান ফারহান পুলিশ ও সিআইডির জিজ্ঞাসাবাদে দলের অনেক নেতার নাম প্রকাশ করেছেন বলে জানা গেছে। পুলিশের কাছে প্রায় ৬০ জন নেতার নাম রয়েছে গ্রেফতারের তালিকায়। এ বিষয়ে ফরিদপুরের পুলিশ সুপার মো. আলিমুজ্জামান বলেন, বিগত দিনে যারা সন্ত্রাস ও বিভিন্ন বাহিনীর নাম ব্যবহার করে অরাজকতা করেছে তাদের বিষয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। সন্ত্রাসী কেউই ছাড় পাবে না। তারা যত শক্তিশালী ও ক্ষমতাবান হোক না কেন। অনুসন্ধানে যাদের নাম আসছে আমরা তাদের মধ্যে ১৭ জনকে আটক করতে সক্ষম হয়েছি। বাকিদের আটকে অভিযান চলছে। দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে আওয়ামী লীগের বিতর্কিত ও প্রভাবশালী নেতাদের আটক করায় ফরিদপুরের পুলিশ সুপার আলিমুজ্জামান সর্বমহলের প্রশংসা কুড়িয়েছেন।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর