শিরোনাম
প্রকাশ : ১৫ নভেম্বর, ২০১৯ ১৭:১৩

বাংলা ভাষার প্রেমে হাবিপ্রবির বিদেশি শিক্ষার্থীরা

রিয়াজুল ইসলাম, দিনাজপুর থেকে


বাংলা ভাষার প্রেমে হাবিপ্রবির বিদেশি শিক্ষার্থীরা

ভালবেসে অনেকেই নিজের মাতৃভাষা ও  ইংরেজিতে কথা বলতে পারলেও এখন কথা বলছেন বাংলায়, পড়ছেন বাংলায়। নিজের ভাষাটা জানেন, তারপরেও বাংলা ভাষা জানা ও বলতে পারাটাকে গৌরবের মনে করেন। কারণ তারা শুনেছেন, এই বাংলা ভাষার জন্য রক্ত দিতে হয়েছে বাংলাদেশিদের। ৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ এবং ৩০ লাখ শহীদের বিনিময়ে বাংলাদেশিরা তাদের স্বাধীনতা পেয়েছে। এজন্য  তারা বাংলা ভাষায় কথা বলাকে সম্মানের মনে করেন।

এমনটাই বললেন নেপাল থেকে পড়তে আসা নীতি লামি ছানে, সুধির কুমার দাস, দিপেন্দ্র কুমার, সন্তোস রায়, কৃষ্ণা ইয়াদভ, মহেশ পন্ডিপসহ শিক্ষার্থীরা।

হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (হাবিপ্রবি)তে পড়তে এসে বিদেশি এসব শিক্ষার্থীরা ভালোবেসে ফেলেছেন এ দেশের মাটি, মানুষ আর বাংলা ভাষাকে। শুধু কথা বলাই নয়, বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের সাথে তাল মিলিয়ে কাজ করছেন বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে।

নেপালি শিক্ষার্থীরা প্রায় সবাই বাংলায় কথা বলেন। বাংলা এত দ্রুত শেখার রহস্য জানতে চাইলে তারা জানান, আমাদের নেপালে মৈতালি নামে ভাষা আছে যার সাথে প্রায় ৫০ ভাগ বাংলা ভাষার মিল রয়েছে। যে কারণে আমরা সহজেই বাংলা বুঝতে এবং বলতে পারছি। আর এখানে তো সবাই বাংলা বলে তাই আরও সহজ হয়ে গেছে।

শিক্ষার পরিবেশ ও শিক্ষকদের আন্তরিকতার প্রতি আকৃষ্ট হয়ে দিনাজপুরের হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (হাবিপ্রবি) পড়তে এসেছেন নেপাল ছাড়াও ভুটান, ভারত, নাইজেরিয়া, সোমালিয়া ও ইথিওপিয়াসহ বিভিন্ন দেশ থেকে। দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি বিদেশি শিক্ষার্থী এখন হাবিপ্রবিতে। বিদেশি এসব শিক্ষার্থীর মধ্যে বর্তমানে স্নাতক পর্যায়ে ১৪৮জন এবং স্নাতকোত্তর ৬৫ জনের মতো শিক্ষার্থী রয়েছে।

বিবিএ শিক্ষার্থী ভুটান থেকে আসা ইউগেন জানায়, বাংলাদেশের মানুষ অনেক আন্তরিক এবং ভালো, আমার বন্ধুরা অনেক সাহায্য করে, এখন আমি বাংলা বলতে পারি, তাই এখানে চলতে আমার কোন সমস্যা হয় না। 

২য় বর্ষের অধ্যায়নরত মুকেশ যাদব ও অঙ্কিত ঠাকুর বলেন, এই বিশ্ববিদ্যালয়ে নেপালের ১৩০জন শিক্ষার্থী পড়ালেখা করছেন।

নীতি লামি ছানে অত্যন্ত সাবলীল ভাবে বাংলাদেশিদের সাথে কথা বলেন বাংলায়। আর্কিটেকচারে পড়েন। তিনি জানান, আগে ৪-৫ জন শিক্ষার্থী ছিলাম। আমরা দেশি-বিদেশি শিক্ষার্থী একসাথে পড়তাম। সেখান থেকেই ধীরে ধীরে আমি বাংলা ভাষায় কথা বলা, শিখি বন্ধুদের কাছ থেকে।

নীতি লামি ছানে আরও জানান, বাংলাদেশের সাংস্কৃতিকে আরও জানার জন্য জাতীয় সকল অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার চেষ্টা করেন বলে জানান। অনুষ্ঠানগুলোতেও অংশ নেয়াসহ ভিনদেশি শিক্ষার্থীদের অনেকেই। কথা বলতে গিয়ে বারবার তিনি দিনাজপুরের মানুষদের ‘ভালো মানুষ’ বলে আখ্যায়িত করেন। শুধু এসবেই নয় নাচ গানেও আছে তার সরব বিচরণ।  

উল্লেখ্য, দিনাজপুর শহর হতে ১০ কি.মি. উত্তরে এবং ঢাকা-দিনাজপুর মহাসড়কের পশ্চিমে অবস্থিত ৮০ একর জায়গায় প্রতিষ্ঠিত হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। দিনাজপুরের কৃতি সন্তান, ঐতিহাসিক তেভাগা আন্দোলনের অন্যতম ব্যক্তিত্ব হাজী মোহাম্মদ দানেশ এর নামে বিশ্ববিদ্যালয়ের নামকরণ করা হয়েছে। বর্তমানে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ছাত্র-ছাত্রী ১২ হাজারের অধিক। এর মধ্যে বিদেশি শিক্ষার্থীর সংখ্যা দুই শতাধিক। 

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য