শিরোনাম
প্রকাশ : ২৯ জুন, ২০২০ ১৯:৪১

চট্টগ্রামে ক্ষতিকর সুরক্ষা সামগ্রী তৈরির কারখানার সন্ধান

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম:

চট্টগ্রামে ক্ষতিকর সুরক্ষা সামগ্রী তৈরির কারখানার সন্ধান

এ আর চট্টলা কেমিক্যাল। সুরক্ষা সামগ্রী তৈরির কারখানা। এখানে নেই কোনো ল্যাব, নেই কেমিস্ট, নেই সরকারি অনুমোদন। কারখানার মালিক মো. রাশেদ নিজেই ক্যামিস্ট হয়ে নিজ হাতে প্রস্তুত করে বোতলজাত করছেন। লাগানো হচ্ছে কোম্পানির মোড়ক। সরবরাহ করা হচ্ছে চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন জেলায়। কারখানায় রাখা হয়েছে প্রায় একশত ড্রাম ভর্তি ক্ষতিকর ক্যামিকেল।

সোমবার দুপুর ১২টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত নগরের দেওয়ান হাট এলাকার মধ্যম সুপারিওয়ালা পাড়া এলাকার এ. আর চট্টলা কেমিক্যাল অভিযান পরিচালনা করে এমন দৃশ্য দেখতে পান চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উমর ফারুক। অভিযানে প্রায় ২০ লাখ টাকার ক্ষতিকর নকল ও ভেজাল দ্রব্য জব্দ, কারখানা সিলগালা, মালিক মো. রাশেদকে ৬ মাসের কারাদন্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।    

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উমর ফারুক বলেন, ‘এ. আর চট্টলা কেমিক্যাল নামের প্রতিষ্ঠানটি দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন নামী ব্র্যান্ডের হ্যাক্সিসল নকল করে তৈরি করে আসছিল। প্রতিষ্ঠানটির খোঁজ করলেও সাইনবোর্ড ও ঠিকানা না থাকায় অবস্থান জানতে বেগ পেতে হয়। ছদ্মবেশে এলাকায় খোঁজ নিয়ে নকল হ্যান্ড সানিটাইজারের মূল কারখানার সন্ধান পাই। গলির ভেতরে বড় একটি টিনশেডের বদ্ধঘরে সকল মালামাল একত্রে রেখে নিজেদের তৈরিকৃত স্যানিটাইজার, স্যাভলন, হারপিকসহ বিভিন্ন সুরক্ষা সামগ্রী বোতলজাত করে বাজারজাত করে আসছে। এর আগে রিয়াজউদ্দিন বাজার ও হাজারী লেইনে অভিযানে এ প্রতিষ্ঠানের ক্ষতিকর ও নকল সুরক্ষা সামগ্রী জব্দ ও ধ্বংস করা হয়েছিল।’

ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক হোসাইন মোহাম্মদ ইমরান বলেন, ‘ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের কোনো অনুমোদন ছাড়াই নকল হ্যান্ডরাব, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, স্যাভলন ও হারপিক তৈরি করা হচ্ছিল। ল্যাব টেস্টের ব্যবস্থা নেই। খালি বোতলে লেবেল কার্টুন করে নিজেরাই বাজার থেকে কিনে রং, ফ্লেভার, স্পিরিট ইত্যাদি মিশিয়ে নামিদামি কোম্পানির মত হুবহু নকল করে বাজারজাত করে আসছিল।’ 

বিডি প্রতিদিন/মজুমদার


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর