শিরোনাম
প্রকাশ : ৪ ডিসেম্বর, ২০২০ ১৫:৫৯
প্রিন্ট করুন printer

করিমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ককে প্রতিহত করার ঘোষণা

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি

করিমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের
আহ্বায়ককে প্রতিহত করার ঘোষণা

কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক নাসিরুল ইসলাম খান আওলাদের বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতা, দুর্নীতি, সংগঠনবিরোধী কর্মকান্ডসহ নানা অভিযোগে তাকে প্রতিহত করার ঘোষণা দিয়েছে কমিটির একাংশ। শুক্রবার করিমগঞ্জ উপজেলা পরিষদ হল ররুমে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেওয়া হয়। 

এতে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ওমর ফারুক তালুকদার। লিখিত বক্তব্যে উল্লেখ করা হয়, ২০০২ সালে ছয় মাস মেয়াদের জন্য নাসিরুল ইসলাম খান আওলাদ কেন্দ্র থেকে আহবায়ক কমিটি নিয়ে আসেন। কিন্তু ১৮ বছর অতিক্রম হলেও তিনি সম্মেলন করতে ব্যর্থ হন। বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে একাধিক চেয়ারম্যান প্রার্থীর কাছ থেকে ১৪ থেকে ২০ লক্ষ টাকা করে নিয়ে আওয়ামী লীগের অতীত ঐতিহ্য নষ্ট করে নেতাকর্মীদেরকে দ্বিধাবিভক্ত করে দলের সর্বনাশ করে যাচ্ছেন। শুধু তাই নয়, প্রতিটি ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন কমিটি গঠনের নামে সম্মেলন না করে চেম্বারে বসে টাকার বিনিময়ে কমিটি গঠনেরও অভিযোগ আনা হয়। 

সংবাদ সম্মেলনে নাসিরুল ইসলাম খান আওলাদ সংগঠনবিরোধী কর্মকান্ড থেকে বিরত না হলে যে কোন মূল্যে তাকে প্রতিহত করার ঘোষণা দেওয়া হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক এবিএম সিরাজুল ইসলাম, করিমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত আহবায়ক হাজী আব্বাস উদ্দিন আহম্মেদ, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট তারেক উদ্দিন আবাদ, আহবায়ক কমিটির সদস্য জিল্লুর রহমান ঠাকুর, ওমর ফারুক তালুকদার, মাহবুবুল বাশার শামীম, শাহ মাজহারুল ইসলাম, আব্দুল কাইয়ুম বাচ্চু, আইয়ুব উদ্দিন, মোয়াজ্জেম হোসেন কবির, আমজাদ হোসেন খান দিদার, ইবনে আব্দুল্লাহ শাহজাহান প্রমুখ।

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে নাসিরুল ইসলাম খান আওলাদ বলেন, তিনি এখনও বৈধ আহ্ায়ক। গঠনতান্ত্রিকভাবেই তিনি দলীয় কর্মকান্ড পরিচালনা করছেন বলে দাবি করেন।

বিডি প্রতিদিন/আল আমীন


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর