Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:১৭

কূটনৈতিক অঙ্গন চষে বেড়াচ্ছে বিএনপিও

শফিউল আলম দোলন

কূটনৈতিক অঙ্গন চষে বেড়াচ্ছে বিএনপিও

আন্তর্জাতিক বিশ্বে কূটনৈতিক তৎপরতা বাড়িয়েছে বিএনপি। দিল্লি থেকে জাতিসংঘ, ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে শুরু করে বহির্বিশ্বের সব অঙ্গনেই বিএনপির প্রতিনিধিরা বৈঠক করেছেন। রাজধানী ঢাকায়ও বিভিন্ন দেশের দূতাবাস ও হাইকমিশনের সঙ্গে বিএনপির একটি শক্তিশালী প্রতিনিধি দল সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখার পাশাপাশি কূটনৈতিক দুনিয়া চষে বেড়াচ্ছে। তাদের সঙ্গে নিয়মিত বৈঠক করে পরিস্থিতির ব্যাখ্যা করছেন তারা। আগামী সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে অবাধ ও সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করতেই এ কাজগুলো করছে দলটি।

জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেন ও যুক্তফ্রন্টের সভাপতি অধ্যাপক ড. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী যুক্ত হওয়ার কারণে তাদের কাজে লাগিয়েও নির্বাচনে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ পরিবেশ নিশ্চিত করতে চান বিএনপি নেতারা। বিএনপির একজন সিনিয়র নেতা এ প্রসঙ্গে বলেন, এর মাধ্যমে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সরকারের অগণতান্ত্রিক কাজগুলো তুলে ধরছে বিএনপি। নির্বাচনে জনগণের ভোটাধিকার নিশ্চিত করতেই বিএনপির এই তৎপরতা। তার মতে, আগের মতো আওয়ামী লীগকে ভোটের মাঠে একা ছেড়ে দিতে রাজি নয় বিএনপি। ভোটের অধিকার এবং গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যেই বিএনপি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন নিশ্চিত করতে চায়।

এ প্রসঙ্গে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টু বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, দেশের মানুষ যাতে তাদের ভোটাধিকার ফিরে পায় এবং একটি অবাধ, সুষ্ঠু জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়, সে জন্যই আমরা জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। বিএনপির এই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, ১৯৯৬ সালের নির্বাচনের সময় আমি আওয়ামী লীগের সঙ্গে যুক্ত ছিলাম। তখনো একটি অবাধ, সুষ্ঠু জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য একই কাজ করেছিলাম। ঢাকায় নিযুক্ত প্রতিটি দূতাবাসে চিঠি আদান-প্রদান থেকে  শুরু করে যোগাযোগ রক্ষার দায়িত্ব পালন করেছিলাম। এখনো সেটিই করছি। কারণ বাংলাদেশের মানুষ এখন তাদের ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত। তিনি বলেন, একটি রাজনৈতিক দল সে অধিকার দিতে ইচ্ছুক নয়। এজন্যই আমরা মানুষের সেই মৌলিক তথা প্রাকৃতিক অধিকারটিকে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে প্রচেষ্টা চালাচ্ছি। আমি এ ব্যাপারে শুধু আশাবাদীই নই, বরং আমি নিশ্চিত যে, এবার বাংলাদেশের মানুষ তাদের ভোটাধিকার ফিরে পাবে। আর সে জন্য বিএনপির পক্ষ থেকে যা যা করা দরকার, তার সবই আমরা করব।  বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, সামনে জাতীয় নির্বাচন। এ অবস্থায় দেশের রাজনীতি, আইনশৃঙ্খলা ও মানবাধিকার পরিস্থিতি অত্যন্ত আশঙ্কাজনক অবস্থায় আছে। দেশের জনগণ থেকে শুরু করে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সবাই এ ব্যাপারে অবগত রয়েছেন। জাতীয় কিংবা আন্তর্জাতিক যাদের কথাই বলেন, কেউ-ই আর আগামীতে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো একতরফা কিংবা প্রহসনের কোনো নির্বাচন দেখতে চায় না। তারা সবাই নিরপেক্ষ পরিবেশে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, অংশগ্রহণমূলক ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন দেখতে চান। আর সেটি নিশ্চিত করতেই আমাদের এই প্রচেষ্টা। আমার বিশ্বাস এবার দেশবাসী তাদের ভোটাধিকার এবং অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন আদায় করে নিতে সক্ষম হবে।


আপনার মন্তব্য