শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২৩ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ জানুয়ারি, ২০১৯ ২২:৫৪

নীলফামারীতে স্বপ্নের এক ম্যাচ

বসুন্ধরা কিংস-আবাহনী মুখোমুখি

নীলফামারী প্রতিনিধি

নীলফামারীতে স্বপ্নের এক ম্যাচ
কলিন ড্রেস - সানডে

ঢাকার বাইরে ফুটবল অচলই বলা যায়। হাতে গোনা কয়েকটা জেলা ছাড়া লিগের দেখা নেই। তাই নতুন ফুটবলারের সন্ধান মিলছে না। তেমনভাবে বসুন্ধরা কিংস পেশাদার লিগে ওঠার পরই ঘোষণা দেয় দেশের ফুটবলে উন্নয়নে তারা ভূমিকা রাখবে। ক্লাব সভাপতি ইমরুল হাসান বলেন, ‘শুধু বসুন্ধরা কিংসের সাফল্য নয়, ঘুমিয়ে থাকা ফুটবল জাগিয়ে তুলতে চাই। ঢাকার বাইরেও এই খেলাকে ছড়িয়ে দিতে চাই।’

যেমন কথা তেমন কাজ। পেশাদার লিগের হোম ভেন্যু হিসেবে এমন একটা জেলাকে বেছে নেয় যেখানে ফুটবল ছিল বড্ড অবহেলায়। বৃহত্তর রংপুরের নীলফামারী জেলার শেখ কামাল স্টেডিয়াম আজ নতুন এক ইতিহাস লিখতে যাচ্ছে। এই প্রথম রংপুর বিভাগে ঘরোয়া ফুটবলের ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। তাও আবার অভিষেকে দুই জায়ান্টের লড়াই। কিংসের ঘরের মাঠে অতিথি ছয়বারের চ্যাম্পিয়ন ঢাকা আবাহনী। বিকাল ৩টায় রেফারি বাঁশি বাজার সঙ্গে সঙ্গে নতুন এক ইতিহাস লিখে ফেলবে নীলফামারী। দুই দলের তারকাভরা। বসুন্ধরা ও আবাহনী যেন স্বপ্নের ম্যাচে রূপ নিয়েছে তাই।

এমন দুদল আজ মুখোমুখি হচ্ছে যাদেরই লিগ জয়ের সম্ভাবনা বেশি। মৌসুমে প্রথম ফেডারেশন কাপে ট্রফি জিতে আবাহনী যেমন বুঝিয়ে দিয়েছে লিগ জেতার সামর্থ্য রয়েছে তেমনিভাবে স্বাধীনতাকাপে চ্যাম্পিয়ন হয়ে বসুন্ধরা কিংস প্রমাণ দিয়েছে তারা অভিষেকে আরও একটি ইতিহাস লিখতে প্রস্তুত। বাংলাদেশের ফুটবল ইতিহাসে কোনো দলের শিরোপা জয়ের কৃতিত্বতো বটেই ফাইনাল খেলার রেকর্ড ছিল না। সেই ইতিহাসটা গড়া হয়েছে ফেডারেশন কাপে রানার্সআপ হয়ে। স্বাধীনতা কাপ জিতেতো বসুন্ধরা কিংস ফুটবলে কিঙের খ্যাতি পেয়ে গেছে।

তবু মন ভরছে না কিংসের। এটাই স্বাভাবিক, কারণ পেশাদার লিগের সঙ্গে অন্য কোনো ট্রফির তুলনা চলে না। চ্যাম্পিয়ন হলেই দেশসেরার খেতাব পেয়ে যাবে। যে মানের দল তাতে বসুন্ধরা কিংসকেইকে এগিয়ে রাখা যায়। ঢাকায় উদ্বোধনী ম্যাচে কিংস ১-০ গোলে হারিয়েছে শক্তিশালী শেখ জামাল ধানমন্ডিকে। আবাহনী জিতে নবাগত নফেল স্পোর্টিংয়ের বিপক্ষে। মাত্র ১টি করে ম্যাচ গেছে। এ অবস্থায় শিরোপার সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনাটা বোকামির হবে। তবে আজকের ম্যাচতো খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

বসুন্ধরা কিংস ও ঢাকা আবাহনী দুরন্ত দল। যারা এই ম্যাচ জিতবে উজ্জীবিত হয়ে সামনের ম্যাচগুলোতে লড়তে পারবে। লিগের দ্বিতীয় ম্যাচে শক্তিশালী প্রতিপক্ষকে হারানোটা বাড়তি অনুপ্রেরণা জোগাবে। কে জিতবে আজকের ম্যাচে বসুন্ধরা কিংস না ঢাকা আবাহনী। চলতি মৌসুমে এটি দুদলের তৃতীয় সাক্ষাৎ। ফেডারেশন কাপ ফাইনালে কিংসকে হারায় আবাহনী। স্বাধীনতা কাপ সেমিফাইনালে জিতে সেই হারের প্রতিশোধও নিয়ে নেয় বসুন্ধরা কিংস।

দুদলে দেশি আর বিদেশি মিলিয়ে তারকার ঠাসাঠাসি। কিংসে রয়েছেন রাশিয়া বিশ্বকাপ খেলা কলিনড্রেস। সঙ্গে ব্রাজিলের মার্কোস, মতিন মিঞা। আবাহনীতে সানডে, বেলফোর্ড, ওয়ালী ফয়সাল। কেউ কারোর চেয়ে কম নয়। অনেকদিন পর ঢাকার বাইরে ফেভারিটরা মুখোমুখি হচ্ছে। দুদলই বলেছে দর্শকদের তারা উপভোগ্য ম্যাচ উপহার দেবে।

হোম ভেন্যুতে বসুন্ধরা কিংসের লিগে প্রথম ম্যাচ হলেও এর আগে মালদ্বীপ চ্যাম্পিয়ন নিউ রেডিয়্যান্টের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে। যেখানে কিংস জয় পেয়েছিল বড় ব্যবধানে। শুধু তাই নয় নীলফামারীতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশ জাতীয় দলও প্রীতিম্যাচ খেলেছে। দুই ম্যাচে উপচেপড়া দর্শকের সমাগম ঘটে। ফুটবলপ্রেমীদের প্রত্যাশা আজও তা দেখা যাবে। পেশাদার লিগের জন্য নীলফামারী সেজেছে নতুন রূপে।


আপনার মন্তব্য