Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ২২ জানুয়ারি, ২০১৯ ১০:০৭
আপডেট : ২২ জানুয়ারি, ২০১৯ ১০:২০

যেভাবে রাগবি খেলোয়াড় থেকে ক্রিকেটার বনে যান লরি ইভান্স

অনলাইন ডেস্ক

যেভাবে রাগবি খেলোয়াড় থেকে ক্রিকেটার বনে যান লরি ইভান্স
লরি ইভান্স

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ষষ্ঠ আসরের প্রথম সেঞ্চুরিয়ান ইংলিশ ক্রিকেটার লরি ইভান্স।

মিরপুরে সোমবার রাজশাহী কিংসের হয়ে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে ৬১ সেঞ্চুরি হাঁকান তিনি। ৩১ বছর বয়সি ব্যাটসম্যান মাত্র ৬২ বলে ৯ চার ও ৬ ছক্কায় খেলেছেন অপরাজিত ১০৪ রানের বিস্ফোরক এক ইনিংস।

তবে এই ইভান্সের খেলোয়াড়ি জীবন ক্রিকেট দিয়ে শুরু হয়নি। শুরুর দিকে ইভান্স ছিলেন ইংল্যান্ডের একজন সম্ভাবনাময় ও সুপরিচিত রাগবি খেলোয়াড়। তার স্বপ্ন ছিল একজন জনপ্রিয় রাগবি খেলোয়াড় হিসেবে জীবন গড়ার। তার সহপাঠী ছিলেন ড্যানি সিপরিয়ানি, বর্তমানে ইংল্যান্ডের অন্যতম জনপ্রিয় রাগবি তারকা। ড্যানি চেয়েছিলেন ইভান্স কখনোই রাগবি ছেড়ে ক্রিকেটে চলে না যাক। 

কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা আর হলো না। ক্রমাগত কাঁধের ইনজুরির কারণে বাধ্য হয়ে রাগবি ছেড়ে দিলেন ইভান্স। বাগবি ছাড়লেও হাল ছাড়েননি তিনি। পেশাদারি ক্যারিয়ার গড়তে হাতে তুলে নিলেন ব্যাট-বল।

প্রথম দিকে তিনি ছিলেন ডানহাতি মিডিয়াম পেস বোলার, যিনি ব্যাটও করতে পারেন। ডুরহাম ইউনিভার্সিটিতে সাবেক ইংলিশ ক্রিকেটার গ্রায়েম ফোলারের কাছে প্রশিক্ষণ নেন ইভান্স। এই ফোলারই ইভান্সকে তার শক্তি ও সামর্থের বিষয়ে সচেতন করে তোলেন। তার তত্ত্বাবধানে অল্প কিছু দিনের মধ্যেই বিধ্বংসী ব্যাটসম্যান হিসেবে আবির্ভূত হন ইভান্স। 

ডুরহাম ইউনিভার্সিটিতে জীবনের দ্বিতীয় ম্যাচেই অসাধারণ সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে দৃষ্টি কারেন স্থানীয় ক্রিকেট ক্লাবগুলোর। এরপরই সারে কাউন্টি ক্রিকেট ক্রিকেট ক্লাব তাকে লুফে নেয়। কিন্তু সেখানে অনেক যুদ্ধ করেও নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি ইভান্স। ২০১০ সালে সারে তাকে ছেড়ে দেয়।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য