শিরোনাম
১১ অক্টোবর, ২০২১ ০৮:২৭

কোয়েল পাখি পালনে স্বাবলম্বী তরুণরা

মহিউদ্দিন মোল্লা, কুমিল্লা

কোয়েল পাখি পালনে স্বাবলম্বী তরুণরা

ছবি- বাংলাদেশ প্রতিদিন।

কুমিল্লায় কোয়েল পাখি পালনে স্বাবলম্বী হচ্ছেন তরুণরা। দিন দিন এ সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। জেলা প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মতে, কোয়েল পাখি পালনে মনোযোগী হলে তরুণরা বেকারত্ব ঘোচাতে পারে। এখানকার অনেকে নিজেদের পরিবারের ডিম ও মাংসের চাহিদা মেটাতে ক্ষুদ্র আকারে কোয়েল পাখি পালন করছেন। বড় খামারি রয়েছেন কুমিল্লা সদর, সদর দক্ষিণ, লালমাই, বরুড়া, বুড়িচং ও চান্দিনাসহ বিভিন্ন উপজেলায়। জেলায় খামারির সংখ্যা ৫০-এর বেশি হবে বলে জানিয়েছেন খামারিরা। 

কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলার কুন্দারঘোড়া গ্রাম। এ গ্রামে তরুণ আনোয়ার উল্লাহ কোয়েল পাখি পালন করছেন। তিন বছর ধরে তিনি পালন করছেন। ঘরসহ পুঁজি লেগেছে আড়াই লাখ টাকা। প্রথম বছরে তার পুঁজি উঠে গেছে। তার বর্তমানে ২০০০ কোয়েল পাখি রয়েছে। তিনি তা থেকে প্রতিদিন ১৫০০ ডিম সংগ্রহ করেন। স্থানীয় তরুণরা পরামর্শ চাইলেও তিনি সহযোগিতা করেন। কোয়েল পালনে তার পরিবারে সচ্ছলতা এসেছে। মনোযোগী হলে কোয়েল পালনে যে কেউ সফলতা পেতে পারে বলে তার দাবি। 

জেলার বড় খামারি চান্দিনার রূপসী বাংলা এগ্রো ফার্মের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. তাজুল ইসলাম বলেন, প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ নিয়ে কাজ করলে সফলতা আসবে। তাছাড়া স্থানীয়ভাবে বাজার তৈরির কাজও করতে হবে। 

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. নজরুল ইসলাম বলেন, কোয়েল পাখির মাংস ও ডিম পুষ্টিকর খাবার। জেলায় কোয়েল পাখির মাংস ও ডিমের চাহিদা বাড়ছে। কোয়েল পাখি পালনে স্বাবলম্বী হচ্ছে তরুণরা। জেলা প্রাণিসম্পদ অধিদফতর তাদের পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করছে। কোয়েল পাখি চাষে তরুণরা বেকারত্ব ঘোচাতে পারে।


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ আল সিফাত

এই রকম আরও টপিক

সর্বশেষ খবর