শিরোনাম
প্রকাশ : ২৫ নভেম্বর, ২০২০ ১৯:৩৬
আপডেট : ২৫ নভেম্বর, ২০২০ ১৯:৪২
প্রিন্ট করুন printer

চবিতে অসমাপ্ত পরীক্ষা নিতে কর্তৃপক্ষকে ৭২ ঘণ্টা সময় দিয়েছে শিক্ষার্থীরা

চবি প্রতিনিধি

চবিতে অসমাপ্ত পরীক্ষা নিতে কর্তৃপক্ষকে ৭২ ঘণ্টা সময় দিয়েছে শিক্ষার্থীরা
ফাইল ছবি

করোনাভাইরাসের কারণে আটকে থাকা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) বিভিন্ন বিভাগের চতুর্থ বর্ষের পরীক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে কর্তৃপক্ষকে ৭২ ঘণ্টার সময় দিয়েছে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা।

বুধবার দুপুরের এই বিষয়ে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, রেজিস্ট্রার, প্রক্টর ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বরাবর পৃথক চারটি স্মারকলিপি প্রদান করে। এসময়ের মধ্যে পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ না নিলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেন তারা।

স্মারকলিপিতে শিক্ষার্থীরা উল্লেখ করেন, কোভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাবে গত ১৮ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হওয়ার কারণে কয়েকটি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ফাইনাল পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর মাঝপথেই থেমে যায়। আবার কিছু বিভাগে শুধুমাত্র দুই-একটি পরীক্ষা সম্পন্ন হওয়া বাকি রয়েছে।

গত ১৫ নভেম্বরে অনুষ্ঠিত একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় স্থগিত পরীক্ষাগুলো নেওয়ার ব্যাপারে নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও, প্রতিটি বিভাগে প্রশাসনের পক্ষ থেকে এখনো পর্যন্ত কোনো ধরনের অফিসিয়াল নোটিশ পাঠানো হয়নি। প্রশাসনের তরফ থেকে এ ব্যাপারে নোটিশ পৌঁছানোর পরেই বিভাগগুলো স্থগিত পরীক্ষাগুলো নেবে বলে শিক্ষার্থীদের আশ্বস্ত করেছে।

তারা আরো উল্লেখ করেন, ইতিমধ্যে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি চাকরির প্রজ্ঞাপন জারি হয়েছে এবং অনেক ক্ষেত্রে পরীক্ষা হয়ে নিয়োগ প্রক্রিয়াও সম্পন্ন হয়ে গেছে। গত সোমবারে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পিএসসিতে ৪৩তম সাধারণ বিসিএস-এর চাহিদাপত্র পাঠিয়েছে। সামনের সপ্তাহে ৪৩ তম বিসিএস পরীক্ষা সংক্রান্ত পিএসসির একটি সভা হওয়ারও কথা রয়েছে।

এই আটকে থাকা পরীক্ষাগুলোর কারণে আমরা এসব চাকরিতে আবেদন করার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছি। ফলে নিম্নবিত্ত, নিম্ন-মধ্যবিত্ত, মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে উঠে আসা আমাদের বেশিরভাগ শিক্ষার্থীকেই চরম হতাশা ও মানসিক অশান্তির মধ্য দিয়ে প্রতিটি দিন পার করতে হচ্ছে।

আমরা সাধারণ শিক্ষার্থীরা আশা করছি, আপনার মাধ্যমে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলোতে স্থগিত পরীক্ষাগুলো সরাসরি বা অনলাইনে বা অন্য যে কোনো উপায়ে নেওয়ার ব্যাপারে আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে নোটিশ পাঠানো হবে। আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে এই নোটিশ পাঠানো না হলে আমরা সামনের দিনগুলোতে আরো কঠোর পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হবো।

বিষয়টি নিশ্চিত করে আইন বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী ফোরকানুল আলম বলেন, অসমাপ্ত পরীক্ষাগুলো নিতে আমরা প্রশাসনের নিকট দ্বিতীয় দফা স্মারকলিপি দিয়েছি। স্মারকলিপিতে ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেওয়া হয়েছে। এসময়ের মধ্যে পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ না নিলে আমরা কঠোর আন্দোলনে যাব।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর ড. আতিকুর রহমান জানান, শিক্ষার্থীরা একটি স্মারকলিপি দিয়েছে বলে শুনেছি। ওই সময় আমি অফিসে ছিলাম না।

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর