শিরোনাম
প্রকাশ : ১০ আগস্ট, ২০২০ ০৫:০৯

ট্রাফিক বিভাগের মধ্যস্থতায় যৌথ সভায় সিদ্ধান্ত

বরিশাল মেট্রো অংশে থ্রি-হুইলার চলাচলে বাঁধা দিতে পারবে না বাস মালিকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল

বরিশাল মেট্রো অংশে থ্রি-হুইলার চলাচলে বাঁধা দিতে পারবে না বাস মালিকরা

ঢাকা-বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়কের বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের (বিএমপি) আওতাধীন এলাকায় থ্রি-হুইলার (টেম্পো-সিএনজি ও ইজিবাইক) যানবাহন চলাচল কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করবে ট্রাফিক বিভাগ। রূপাতলী বাস মালিক সমিতির ও শ্রমিক ইউনিয়ন নিয়োজিতরা উল্লেখিত এলাকায় থ্রি-হুইলার যানবহনে বাধা কিংবা চালক-শ্রমিকদের মারধর করতে পারবেন না। 

বিএমপি’র উপ-কমিশনার (ট্রাফিক) জাকির হোসেন মজুমদারের উপস্থিতিতে রবিবার রূপাতলী বাস মালিক সমিতি ও পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন এবং টেম্পো মালিক-শ্রমিক নেতৃবৃন্দের এক সভায় এই নির্দেশনা দেয়া হয়। 

বিএমপির আওতাভুক্ত মহাসড়কে থ্রি-হুইলার চলাচল নিয়ে বাস ও থ্রি-হুইলার মালিক-শ্রমিকদের মধ্যে দীর্ঘদিনের বিরোধ নিরসনে এই সিদ্ধান্ত দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন উপ-কমিশনার (ট্রাফিক) জাকির হোসেন মজুমদার। 

তিনি বলেন, অনুষ্ঠিত সভায় বরিশাল, পটুয়াখালী, বরগুনা ও ঝালকাঠী জেলা মালিক সমিতি এবং থ্রি-হুইলার মালিক-শ্রমিক সংগঠনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। সভার প্রধান আলোচ্য বিষয় ছিল বরিশাল-পটুয়াখালী-কুয়াকাটা মহাসড়কের বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় থ্রি-হুইলার যানবাহন চলাচলে বাস মালিকদের বাধা দেয়ার অভিযোগ প্রসঙ্গ। উভয়পক্ষ এনিয়ে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করেন। 

সভায় সিদ্ধান্ত হয়, মেট্রোর থ্রি-হুইলার জেলার মহাসড়কে এবং জেলার থ্রি-হুইলার মেট্রো এলাকায় প্রবেশ করছে কি-না এ বিষয়টি পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ দেখভাল করবে। কোন ব্যক্তি বা সংগঠনের কেউ আইন হাতে তুলে নিতে পারবেন না। 

উল্লেখ্য, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে বরিশাল-পটুয়াখালী বাস মালিক সমিতির চেক পয়েন্টের নামে থ্রি-হুইলার চালকদের মারধর ও যাত্রীদের লাঞ্ছিত করার অভিযোগ দীর্ঘদিনের। এ নিয়ে প্রায়ই টেম্পো শ্রমিক ও বাস শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘট। সব শেষ গত বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় উভয় পক্ষের সংঘর্ষ হয়। এ সময় বেশ কয়েকটি বাস ভাংচুরের ঘটনা ঘটে।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর