শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩০ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:১৮

টেন্ডারের নামে কাটা হচ্ছে কোটি টাকার সরকারি গাছ

টাঙ্গাইলে সামাজিক বনায়নের গাছ কেটে নিলেন চেয়ারম্যান

টাঙ্গাইল ও ভাঙ্গা প্রতিনিধি

টেন্ডারের নামে কাটা হচ্ছে কোটি টাকার সরকারি গাছ
পড়ে আছে কেটে নেওয়া গাছের গোড়া ও ডালপালা। টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী থেকে তোলা ছবি -বাংলাদেশ প্রতিদিন
Google News

টেন্ডারের নামে বিধি বহির্ভূতভাবে শত শত সরকারি গাছ কেটে কোটি টাকা হরিলুটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফরিদপুর-ভাঙ্গা-বরিশাল মহাসড়কের ভাঙ্গা থেকে মাদারীপুরের টেকেরহাট পর্যন্ত ১৮ কিলোমিটার সড়কের দুই পাশের গাছ প্রকাশ্য কেটে ট্রাকে ভরে নিয়ে যাচ্ছে নামধারী ঠিকাদারের লোকজন। এতে সরকার রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। পাশাপাশি মারাত্মক বিপর্যয়ের সম্মুখীন হচ্ছে পরিবেশ।  সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, মহাসড়কের দুই পাশে বড় বড় মেহেগনি, রেনট্রি, খৈয়া, বাবলা, শিশু গাছের খ- ও গোড়া পড়ে আছে। কয়েকদিন ধরে সরকারি সিলবিহীন সড়কের দুই পাশের গাছ কেটে নেওয়া হচ্ছে। জানা যায়, ভাঙ্গা থেকে বরিশালের ভুরঘাটা পর্যন্ত ৫০ কিলোমিটার সড়কের দুই পাশে ২৮৩টি গাছের টেন্ডার ৭-৮ ভাগে মাত্র ২ লাখ ৫০ হাজার টাকায় দেওয়া হয়। এরমধ্যে ভাঙ্গা থেকে টেকেরহাট পর্যন্ত ১৭০টি গাছে টেন্ডার হয়েছে ১ লাখ টাকায়। এতে দেখা যায়, ১৭০টি গাছের পরিবর্তে ঠিকাদারের লোকজন সিলবিহীন শত শত গাছ কেটে নিয়ে যাচ্ছেন। যেখানে একেকটি গাছের মূল্য রয়েছে লক্ষাধিক টাকা। ভাঙ্গার চুমুরদী ইউপির ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মান্নান শেখ বলেন, গত রবিবার চুমুরদী ইউপি ভবনের সামনে মহাসড়কের বড় একটি তাজা বটগাছ কাটতে দেখেছি। ভাঙ্গা-টেকেরহাট সড়কের অটোচালক নুরুল ইসলাম বলেন, গত কয়েকদিনে সড়কের দুই পাশের তাজা অনেক গাছ কাটতে দেখেছি। গাছ কাটার সময়ে শ্রমিক মনির মিয়া জানান, আমরা গাছভর্তি প্রতি ট্রাকের জন্য ৫ হাজার টাকায় ঠিকাদারের কাছ থেকে কন্ট্রাক নিয়েছি। প্রতিদিন ১২-১৫ ট্রাক গাছ যশোর, কুষ্টিয়াসহ বিভিন্ন স্থানে পাঠাচ্ছি। এ পর্যন্ত আমরা কয়েকশ গাছ কেটেছি। সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার সুমন মিয়া জানান, আমি কিছুই জানি না। আপনারা ঠিকাদার আব্দুল খালেকের সঙ্গে কথা বলেন। এ বিষয় জানতে আব্দুল খালেকের মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তা বন্ধ পাওয়া যায়। ভাঙ্গা সড়ক বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আনিচ জানান, আমি গাছ কাটার বিষয়ে কিছু জানি না। গাছকাটা ও রোপণ আলাদা দফতরের কাজ। বৃহত্তর ফরিদপুর ও বরিশালের সড়ক বিভাগের বনায়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারী প্রকৌশলী আব্দুল আজিজ জানান, ভাঙ্গা থেকে মাদারীপুরের টেকেরহাট পর্যন্ত ১৭০টি মরা ও অর্ধেক ভেঙে যাওয়া শিশু গাছ এবং টেকেরহাট থেকে বরিশালের ভুরঘাটা পর্যন্ত ১১৩টি মরা গাছ  কাটার টেন্ডার হয়েছে। এর বাইরে গাছ কাটার সুযোগ নেই। অনিয়মের কথা শুনেছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এদিকে টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলায় সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির রাস্তার গাছ অবৈধভাবে কাটার অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার বলিভদ্র ইউপি চেয়ারম্যান সুরুজ্জামান মিন্টু তার ইউনিয়নের ৪ ও ৫ নং ওয়ার্ডের দুই পাশের রাস্তার বড় বড় ৮ থেকে ৯টি আকাশমনি (একাশি) গাছ কর্তন করেন।  এ ব্যাপারে প্রতিকার চেয়ে এলাকাবাসীর পক্ষে স্থানীয় আ. কাদের, ফারুক হোসেন, শরাফত আলী ও কামরুজ্জামান ধনবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন। ধনবাড়ী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) হাসান হাফিজুর রহমান টুটুল গত বুধবার ঘটনাস্থলে গিয়ে কিছু গাছের গুঁড়ি উদ্ধার করে জব্দ করে উপজেলা পরিষদ চত্বরে নিয়ে আসেন। গাছ কাটার বিষয়টি বলিভদ্র ইউপি চেয়ারম্যান সরুজ্জামান মিন্টুর কাছে জানতে চাইতে তিনি বলেন, গাছ কাটার বিষয়ে ইউএনও স্যার আমাকে মৌখিকভাবে অনুমতি দিয়েছেন। ধনবাড়ীর ইউএনও শেখ শামছুল আরেফীন জানান, গাছ কাটার ব্যাপারে চেয়ারম্যানকে কোনো অনুমতি দেওয়া হয়নি।

উপজেলা প্রশাসন এলাকাবাসীর কাছে থেকে সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে কিছু গাছের গুঁড়ি উদ্ধার করেছি। গাছগুলো সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির। তিনি এগুলো কর্তন করতে পারেন না। তার বিরুদ্ধে দ্রুতই আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই বিভাগের আরও খবর