Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ২৬ মার্চ, ২০১৯ ১৫:৩৯

পুনরায় নির্বাচনের দাবিতে গোসাইরহাটে বিক্ষোভ মিছিল

শরীয়তপুর প্রতিনিধি:

পুনরায় নির্বাচনের দাবিতে গোসাইরহাটে বিক্ষোভ মিছিল

প্রিসাইডিং অফিসার কর্তৃক ভোট গ্রহণে অনিয়ম ও পক্ষপাতিত্ব  করার অভিযোগ এনে শরীয়তপুরের গেসাইরহাট উপজেলায় সংবাদ সম্মেলন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকরা।

রবিবার শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। বাকি ৫টি উপজেলার চেয়ারম্যান বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নৌকা প্রতিক নিয়ে বেসরকারী ভাবে নির্বাচিত হন। কিন্তু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়া গোসাইরহাট উপজেলায় ঘটে ভিন্ন চিত্র।

এখানে আওয়ামী লীগ প্রার্থী নৌকা প্রতিকের সৈয়দ নাসির উদ্দিনকে পরাজিত করে স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী ফজলুর রহমান আনারস মার্কা নিয়ে বিজয়ী হন।

কিন্তু এই ভোটের ফলাফল মেনে নিতে পারেনি পরাজিত প্রার্থী ও তার সমর্থক ভোটাররা। গোসাইরহাট উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় পুনরায় নির্বাচনের দাবিতে বিক্ষোভ করেন হাজার হাজার নারী-পুরুষ। তাদের অভিযোগ প্রিসাইডিং অফিসারসহ ভোটগ্রহণে সম্পৃক্তরা ৪০টি কেন্দ্রের মধ্যে ১১টি কেন্দ্রে অনিয়ম করেছেন। ৯টি কেন্দ্রে নৌকার এজেন্ট বের করে দিয়ে ভোট গণনায় অনিয়ম করেছে। আর তিনটি কেন্দ্রে প্রিজাইডিং অফিসারের যোগসাজে  ভোট কেটে নিয়েছে স্বতন্ত্র পার্থীর সমর্থকরা। ফলে ভোট চুরির নির্বাচন মেনে নিতে পারছেন না আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীসহ প্রার্থী সৈয়দ নাছির উদ্দিনের সমর্থকরা। মঙ্গলবার সকালে কোদালপুর বাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় তারা ভোট পুনরায় নেওয়ার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেন।

একই অভিযোগে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সৈয়দ নাসির উদ্দিন সংবাদ সম্মেলন করেন তার বাড়িতে।  তার দাবি অনিয়মের বিষয়টি সহকারী রিটার্নিং অফিসারকে জানিয়েও কোন ফল পাইনি। তিনি বিষয়টি আমলে নেননি। তিনি আদালতে মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

তিনি বলেন, তার এজেন্টদের বের করে দিয়ে ভোট গণনায় কারচুপি এবং নৌকার ব্যালটে ডাবল সিল দিয়ে  ষড়যন্ত্রমূলকভাবে তাকে নির্বাচনে হারানো হয়। তিনি ৯টি কেন্দ্রের ভোট পুনরায় গননা এবং আরো তিনটি কেন্দ্রের নির্বাচন পুনরায় করার দাবি জানান।

গোসাইরহাট উপজেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও গোসাইরহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আলমগীর হুসাইন বলেন, পুনরায় নির্বাচনের  দাবিতে পরাজিত প্রার্থী সৈয়দ নাসির উদ্দিন আমার কাছে একটি দরখাস্ত দিয়েছে। কিন্তু এ বিষয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তার কিছু করার নেই।

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য