শিরোনাম
প্রকাশ : ৬ এপ্রিল, ২০২০ ১৮:২৯
আপডেট : ৬ এপ্রিল, ২০২০ ১৯:২২

যশোর হাসপাতালে কমে গেছে সাধারণ রোগী ভর্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর:

যশোর হাসপাতালে কমে গেছে সাধারণ রোগী ভর্তি
ফাইল ছবি

২৫০ শয্যবিশিষ্ট যশোর জেনারেল হাসপাতালে রোগী ভর্তি আগের তুলনায় অনেক কমে গেছে। আউটডোরেও রোগী আসছে কম। এখনও এ জেলায় কোন করোনা রোগী সনাক্ত না হলেও হাসপাতালটিতে যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করে রাখা হয়েছে। ডাক্তার, নার্সসহ সংশ্লিষ্ট অন্যদের জন্য পর্যাপ্ত নিরাপত্তা সরঞ্জামও রয়েছে বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, বর্তমানে এ হাসপাতালটিতে চিকিৎসকের ৫৩টি পদ রয়েছে, যার মধ্যে ৯টি পদ খালি। বাকি ৪৩ চিকিৎসকের মধ্যে দুইজন অসুস্থতার কারণে ছুটিতে আছেন। অন্যরা নিয়মিত দায়িত্ব পালন করছেন। 

এর বাইরে যেহেতু এ হাসপাতালটি যশোর মেডিকেল কলেজের ক্যাম্পাস হিসেবে ব্যবহৃত হয়, সে কারণে এই মেডিকেল কলেজের অধ্যাপক, সহযোগী ও সহকারী অধ্যাপক, লেকচারার মিলিয়ে মোট ৯০ জন চিকিৎসক হাসপাতালটিতে ক্লিনিক্যাল প্রাকটিস করেন। সবমিলিয়ে এখানে এখন চিকিৎসক সংকট নেই। বরং করোনা পরিস্থিতি আরও খারাপ হলে সেনাবাহিনী যশোরে যে অস্থায়ী হাসপাতাল নির্মাণের প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে, সেখানেও এ হাসপাতাল থেকে চিকিৎসক পাঠানো হবে বলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন।

যশোর জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক দিলিপ কুমার রায় বলেন, গতকাল রবিবারও বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত ৬৫ জন রোগি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। আউটডোরেও নিয়মিত রোগীরা চিকিৎসা নিচ্ছেন। তবে এ সংখ্যা স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় কয়েক গুণ কম। গত ১ এপ্রিল করোনা সিম্পটম নিয়ে সর্বশেষ রোগী ভর্তি হয়েছিল। এখানে যেহেতু করোনা পরীক্ষার উপায় নেই, তাই তাকে খুলনায় রেফার করা হয়েছিল। বর্তমানে এ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ড ফাঁকা রয়েছে। 
তিনি আরও বলেন, যে সরঞ্জাম দরকার, তা পর্যাপ্ত আছে। ফলে করোনা সিম্পটম নিয়ে কোন রোগী আসলে তাদের চিকিৎসা দিতে এখন কোন সমস্যা নেই। করোনা পরিস্থিতির কারণে অনেকেই হাসপাতালে ভর্তি থাকতে আগ্রহ দেখাচ্ছেন না। যানবাহন বন্ধ থাকায় দূর-দূরান্ত থেকে রোগী আসতে পারছেন না। আবার যেসব রোগীদের বাড়িতে রেখেই চিকিৎসা করানো সম্ভব তাদের এই মুহূর্তে হাসপাতালে ভর্তি হতে অনুৎসাহিতও করা হচ্ছে। সবমিলিয়ে এখন হাসপাতালে রোগী ভর্তি আগের চেয়ে অনেক কমে গেছে। 

করোনা পরিস্থিতিতে কিছু জায়গায় ডাক্তারা রোগী দেখতে অনীহা প্রকাশ করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে-এ ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে দিলিপ কুমার রায় বলেন, যশোর জেনারেল হাসপাতালে এরকম একটি ঘটনাও নেই। তবে বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে যারা প্রাকটিস করেন, তারা যদি রোগী না দেখেন তাহলে তো আমাদের সেখানে কিছু বলার এখতিয়ার নেই।

 

বিডি-প্রতিদিন/সিফাত আব্দুল্লাহ


আপনার মন্তব্য