শিরোনাম
প্রকাশ : ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১২:৫২
প্রিন্ট করুন printer

ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতে ছোট ছোট নেতাদের টোপ দিচ্ছে সেনাবাহিনী

অনলাইন ডেস্ক

ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতে ছোট ছোট নেতাদের টোপ দিচ্ছে সেনাবাহিনী

মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থানের পর দেশজুড়ে বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে। অন্যদিকে নিজেদের ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতে ‘বিভক্তি ও শাসন’ নীতি নিয়ে অগ্রসর হচ্ছে দেশটির সেনাবাহিনী তাতমাদো। বিভিন্ন দল ও ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর মধ্যে বিভক্তির জাল ফেলে সেনাবিরোধী প্রতিবাদ-বিক্ষোভ হ্রাস করতে বিভিন্ন মানুষকে পক্ষে টানছে সেনারা। দিচ্ছে নানা সুবিধার টোপ।

সরকারি সুযোগ-সুবিধা দিয়ে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর নেতাদের হাত করে ক্ষমতায় জেঁকে বসার এ চেষ্টায় নেতাদের সাড়াকে ভালোভাবে নিচ্ছে না নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠীর সদস্য ও রাজনৈতিক দলগুলোর কর্মী-সমর্থক। তারা একে বিশ্বাসঘাতকতা হিসাবে দেখছেন। আল-জাজিরা।

গত ১ ফেব্রুয়ারি জান্তা ক্ষমতা নেয়ার পর যেভাবে প্রতিবাদ-বিক্ষোভ ও অভ্যন্তরীণ চাপের মুখে পড়েছে, তা নজিরবিহীন। আগের প্রায় ৫০ বছরের সেনা শাসনের সময়ের চেয়ে এবারের পরিস্থিতি ভিন্ন। এ কারণে রাজনৈতিক দল, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর নেতা ও বিভিন্ন ক্ষেত্রের প্রভাবশালী মানুষকে নিজেদের পক্ষে ভেড়াতে চাচ্ছে সেনারা। অভ্যুত্থানের পর রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য স্টেট অ্যাডমিনিস্ট্রেশন কাউন্সিল (এসএসি) গঠন করে জান্তা। এর প্রধান জেনারেল মিন অং হ্লাইং।

সেনাবিরোধী বিক্ষোভ দমাতে এসএসিতে প্রভাবশালীদের পদ দেয়ার প্রস্তাব দিচ্ছে সেনাবাহিনী। অনেকে এতে যোগ দিচ্ছেন। আবার অনেকে প্রস্তাব ফিরিয়ে দিচ্ছেন। ফিরিয়ে দেয়া সাধারণ মানুষের বাহবা পাচ্ছেন এবং যোগ দেয়া ব্যক্তিরা বিশ্বাসঘাতকতার তকমা পাচ্ছেন।

আইইয়ারওয়াদি কেন্দ্রীয় এলাকার কারেন ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠীর যুবক সাও মু দাও বলেন, এক সময় যে দলকে সমর্থন করতেন সেটিকে এখন বিশ্বাসঘাতক মনে করছেন তিনি। গত নভেম্বরের নির্বাচনের আগে কেইন পিপলস পার্টির প্রার্থী মাহন নেইং মুংয়ের জন্য ভোট চেয়ে মানুষের দ্বারে দ্বারে গেছেন। মুং তখন জয়ী হতে পারেননি। কিন্তু তিনি এখন সামরিক বাহিনীর এসএসিতে যোগ দিয়েছেন। সামরিক প্রশাসনে (এসএসি) তার যোগ দেওয়া আমি ও আমার বন্ধু মেনে নিতে পারিনি বলেও জানান তিনি।

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৯:১৯
আপডেট : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৯:২১
প্রিন্ট করুন printer

ক্ষমতা গ্রহণের এক মাসেই বিমান হামলা চালানোর নির্দেশ বাইডেনের

অনলাইন ডেস্ক

ক্ষমতা গ্রহণের এক মাসেই বিমান হামলা চালানোর নির্দেশ বাইডেনের
জো বাইডেন

ক্ষমতা গ্রহণের এক মাস পরই বিমান হামলা পরিচালনার নির্দেশ দিলেন মার্কিন নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। গত ২০ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের মসনদে বসেন বাইডেন। সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে বিপুল ভোটে পরাজিত করে ক্ষমতায় আসেন এই ডেমোক্র্যাটিক নেতা। খবর সিএনএন’র।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সিরিয়ায় ইরান সমর্থিত দুটি মিলিশিয়া গ্রুপের ঘাঁটিতে বিমান হামলার নির্দেশ দিয়েছেন বাইডেন। মার্কিন মসনদে বসার পর যুদ্ধ পরিচালনার জন্য এটিই তার প্রথম নির্দেশ। 

জানা গেছে, নির্দেশের পর এরই মধ্যে ইরান সমর্থিত মিলিশিয়া গ্রুপের দুটি ঘাঁটিতে বিমান চালিয়েছে মার্কিন বাহিনী।

প্রতিবেদনে বলা  হয়েছে, গত সপ্তাহে মার্কিন বাহিনীর ওপর রকেট হামলার ঘটনা ঘটে। ওই হামলা ইরান সমর্থিত এই মিলিশিয়া গ্রুপ দুটি চালিয়েছে বলে দাবি মার্কিন বাহিনীর। তবে এর পক্ষে জোরালো কোনও প্রমাণ নেই তাদের।

পেন্টাগনের মুখপাত্র জন কির্বি বলেছেন, এই হামলাগুলো প্রেসিডেন্ট বাইডেনের নির্দেশেই হয়েছে। এটি শুধু আমেরিকান ও জোট বাহিনীর বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক হামলার প্রতিক্রিয়া জানাতে নয়। বরং এই ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে চলমান হুমকি মোকাবেলা করার জন্যও কর্তৃপক্ষ এই হামলার অনুমোদন দিয়েছে।

কির্বি বলেন, জোটের শরিকদের-সহ মার্কিন মিত্রদের সাথে পরামর্শ করে বাইডেন এই হামলা পরিচালনার নির্দেশ দিয়েছেন।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৮:০৫
আপডেট : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৮:১০
প্রিন্ট করুন printer

চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ, সৌদি যুবরাজ নিয়ন্ত্রণাধীন বিমানে উড়ে গিয়েছিল খাশোগির ঘাতকদল

অনলাইন ডেস্ক

চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ, সৌদি যুবরাজ নিয়ন্ত্রণাধীন বিমানে উড়ে গিয়েছিল খাশোগির ঘাতকদল

সৌদি আরবের প্রখ্যাত সাংবাদিক জামাল খাশোগির হত্যাকারী দল যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের নিয়ন্ত্রণাধীন একটি কোম্পানরি প্রাইভেট বিমানে করে তুরস্কের ইস্তাম্বুল শহর শহরে উড়ে গিয়েছিল। 

সৌদি সরকারের গোপন নথি থেকে এ তথ্য জানা গেছে। খবর সিএনএন’র।

‘টপ সিক্রেট’ শিরোনামের এ নথিতে সৌদি আরবের একজন মন্ত্রীর সই রয়েছে। 

জানা গেছে, স্কাই প্রাইম অ্যাভিয়েশনের মালিকানা ২০১৭ সালে সৌদি আরবের সরকারি বিনিয়োগ তহবিলের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে, যাতে সার্বভৌম ৪০০ কোটি ডলারের তহবিল রয়েছে। এই কোম্পানির বিমান ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে খাশোগি হত্যায় ব্যবহৃত হয়েছে। 

সার্বভৌম তহবিল নিয়ন্ত্রিত হয় সৌদি রাজ পরিবারের মাধ্যমে, যার সভাপতি হলেন ৩৫ বছর বয়সী যুবরাজ মোহাম্মাদ বিন সালমান। সিএনএন বলেছে, এসব তথ্য থেকে খাশোগি হত্যায় এমবিএস’র যুক্ত থাকার প্রমাণ মেলে। এমবিএস হচ্ছে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মাদ বিন সালমানের নামের সংক্ষিপ্ত রূপ।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৬:৩৮
প্রিন্ট করুন printer

উত্তাল মিয়ানমার, সেনাবাহিনীর ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বন্ধ

অনলাইন ডেস্ক

উত্তাল মিয়ানমার, সেনাবাহিনীর ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বন্ধ

সামরিক বাহিনী ক্ষমতা দখলের পর থেকেই উত্তাল মিয়ানমার। দেশটিতে গত কয়েক সপ্তাহের বিক্ষোভে এখন পর্যন্ত তিনজন আন্দোলনকারী এবং একজন পুলিশ সদস্য নিহত হয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিয়েছে সামাজিক মাধ্যম ফেসবুক। সংস্থাটির পক্ষ থেকে বৃহস্পতিবার নিশ্চিত করা হয়েছে।

ফেসবুকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আমরা বিশ্বাস করি মিয়ানমার সেনাবাহিনী ফেসবুক এবং ইনস্টাগ্রামে থাকার অনুমতি দেয়া হলে তা হবে বেশ ঝুঁকিপূর্ণ।

২০২০ সালের মিয়ানমার নির্বাচনে জালিয়াতির অভিযোগ ফেসবুকের মাধ্যমে ছড়িয়ে দিতে চেয়েছিলো মিয়ানমার সেনাবাহিনী।


বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৫:৫৭
প্রিন্ট করুন printer

এবার ধর্ষণ মামলায় বিপাকে ট্রাম্প!

অনলাইন ডেস্ক

এবার ধর্ষণ মামলায় বিপাকে ট্রাম্প!

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিপদ যেন পিছু ছাড়ছে না। সিনেটে অভিশংসনের হাত থেকে রক্ষা পেলেও সুপ্রিম কোর্টে আয়কর রিটার্নের মামলায় হেরে গেছেন। এবার ধর্ষণ মামলায়ও তাকে আদালতে যেতে হচ্ছে। লেখিকা ই জিন ক্যারোলের করা ধর্ষণ মামলায় ট্রাম্পকে আদালতে গিয়ে জবাব দিতে হবে। ব্রিটিশ পত্রিকা দ্য ইন্ডিপেনডেন্ট এমনটাই জানিয়েছে।

ক্যারোলের আইনজীবীরা মামলাটি পুনরায় সচল করতে জোর তত্পরতা শুরু করছেন। ১৯৯০-এর দশকে নিউ ইয়র্কের ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে ট্রাম্প কর্তৃক ধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন ক্যারোল। ২০১৯ সালের নভেম্বরে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে এ নিয়ে মানহানির মামলা করেছিলেন ক্যারোল।

তখন ট্রাম্প এই তথ্যকে মিথ্যা দাবি করেছিলেন। আর তার আইনজীবীরা দাবি করেছিলেন, প্রেসিডেন্ট হওয়ায় ট্রাম্প এসব অভিযোগ থেকে মুক্ত। কিন্তু এখন ট্রাম্প আর প্রেসিডেন্ট পদে নেই। তাই ক্যারোলের আইনজীবীরা জানিয়েছেন, তারা শিগগিরই এ নিয়ে জোর তত্পরতা শুরু করছেন। এমনকি ক্যারোলের সেই পোশাক ও ট্রাম্পের ডিএনএ পরীক্ষা করারও দাবি করেছেন আইনজীবীরা। ক্যারোল সেই পোশাক এখনো সংরক্ষিত রেখেছেন।

 

বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৫:৪৪
প্রিন্ট করুন printer

ভারত-চীন সীমান্ত পরিস্থিতিতে নজর রাখছে যুক্তরাষ্ট্র

অনলাইন ডেস্ক

ভারত-চীন সীমান্ত পরিস্থিতিতে নজর রাখছে যুক্তরাষ্ট্র
ফাইল ছবি

ভারত ও চীনের সীমান্ত পরিস্থিতি ওপর নজর রাখছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। লাদাখের প্যাংগং লেক এলাকা থেকে প্রতিবেশী দুই দেশ সরিয়ে নেওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর এ মন্তব্য করলো।

পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র নেড প্রাইস জানান, শান্তিপূর্ণ সমাধানে দুই দেশের কাজ নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করবে যুক্তরাষ্ট্র।

তিনি বলেন, ‘আমরা সেনা প্রত্যাহারের খবর নিবিড়ভাবে দেখছি এবং পরিস্থিতি প্রশমণের চলমান প্রচেষ্টাকে আমরা স্বাগত জানাই। উভয়পক্ষ শান্তিপূর্ণ সমাধানে কাজ করায় আমরা পরিস্থিতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ অব্যাহত রাখব।’


বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর