শিরোনাম
প্রকাশ : ১৫ নভেম্বর, ২০২০ ১৪:৫৪
আপডেট : ১৫ নভেম্বর, ২০২০ ১৫:০১

বাংলার আজ বড় দুঃখের দিন: মমতা ব্যনার্জি

দীপক দেবনাথ, কলকাতা

বাংলার আজ বড় দুঃখের দিন: মমতা ব্যনার্জি

বাংলার আজ বড় দুঃখের দিন, বিশ্ববাংলার আজ দুঃখের দিন। বিশিষ্ট অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যুকে এভাবেই ব্যখ্যা করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যনার্জি।

কলকাতার স্থানীয় সময় রবিবার দুপুর ১২টা ১৫ মিনিট নাগাদ তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। এরপর ১টা নাগাদ বেলভিউ হাসপাতালে যান মমতা ব্যনার্জি। হাসপাতালে সৌমিত্র কন্যা পৌলমী বসুসহ পরিবারের সাথে সাক্ষাৎ করেন মমতা, তাকে সমবেদনা জানান। এসময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন পশ্চিমবঙ্গের যুবকল্যাণ মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস, তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেন, রাজ্যের মুখ্য সচিব আলাপন ব্যানার্জি, কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা। সৌমিত্রের পরিবারের পাশাপাশি চিকিৎসকদের সাথেও কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী। 
পরে মমতা জানান, আমরা চলচ্চিত্র জগতের এক মহান ব্যক্তিকে হারালাম। যার সিনেমা, নাটক, কবিতা এবং সর্বোপরি গণআন্দোলনেও সৌমিত্রদার অসামান্য অবদান ছিল।

তিনি আরও বলেন, সৌমিত্র দার কোভিড হলেও তিনি কোভিডের কাছে হারেননি। কিন্তু অন্য নানারকম শারীরিক উপসর্গ থাকায় চিকিৎসকরা চেষ্টা করেও তাকে বাঁচাতে পারলেন না। আমরা তাকে ধরে রাখতে পারিনি। তার মৃত্যু অত্যন্ত বেদনাদায়ক, মর্মস্পর্শী। বাংলার আজ বড় দুঃখের দিন। বিশ্ববাংলার দুঃখের দিন। চলচ্চিত্র নাট্য জগতের দুঃখের দিন।

মুখ্যমন্ত্রীর অভিমত, সৌমিত্র দা হয়তো পার্থিবভাবে চলে গেছেন। কিন্তু তার কাজ, প্রাণ, ভালবাসা, জীবন, প্রাণের স্পন্দন আমাদের মধ্যে থাকবে। তার বিকল্প তিনি নিজেই। অন্য কেউ নতুন করে আসবেন না।
 
সৌমিত্রের মৃত্যুর খবর পেয়ে হাসপাতালে যান পরিচালক রাজ চক্রবর্তী, অভিনেতা কৌশিক সেন, ঋদ্ধিমান সেন প্রমুখ।

দক্ষিণ কলকাতার গল্ফ গ্রিনের বাড়িতে স্ত্রী দীপা চট্টোপাধ্যায়কে দেখানোর পর বেলা তিনটা নাগাদ সৌমিত্রের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে টালিগঞ্জের টেকনিশিয়ান স্টুডিওতে। সেখানে একপ্রস্থ শ্রদ্ধা জানাবেন অভিনয় জগতের কুশীলবরা। এরপর তাঁকে শেষ শ্রদ্ধা জ্ঞাপনের জন্য তার মরদেহ শায়িত রাখা হবে রবীন্দ্রসদনে। সেখান থেকে পদযাত্রা করে সন্ধ্যা ৬টা ৩০ মিনিট নাগাদ কেওড়াতলা মহাশ্মশানে নিয়ে যাওয়া হবে প্রয়াত সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়কে। সেখানেই গান শ্যালুটের মাধ্যমে তার শেষকৃত্য সম্পন্ন করা হবে।

অন্যদিকে পরিবারের পাশে থাকার জন্য রাজ্য সরকারকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন প্রয়াত সৌমিত্রের কন্যা পৌলমী বসু। তিনি বলেন, হয়তো আমার বাবা শেষ পর্যন্ত হেরে গেলেন। কিন্তু উনি আমাদের মধ্যে চিরকাল থেকে যাবেন। ওনার আত্মা, প্রাণ আমাদের মধ্যে থাকবে। আমরা উনার জীবনটাকে উদযাপন করবো। আপনারা কেউ দুঃখ পাবেন না। ওনার জীবনটাকে আদর্শ মেনে চলবো।

সৌমিত্রের প্রয়াণে শোকপ্রকাশ জানিয়েছেন অভিনেত্রী শর্মিলা ঠাকুর, অপর্ণা সেন, মনোজ বাজপেয়ী, দেবশঙ্কর হালদার, কৌশিক সেন। 
এক শোকবার্তায় শর্মিলা জানান, তিনি দীর্ঘদিন ধরে হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। আমরা ভাবছিলাম তিনি হয়তো ঠিক হয়ে যাবেন। কিন্তু খুবই দুঃখের যে আজকে আমি একজন পুরনো, যত্নশীল, বিশ্বস্ত বন্ধুকে হারালাম।

অপর্ণা সেন জানান, একজন অভিভাবককে হারালাম। উনি ছিলেন আমার পারিবারিক বন্ধু। উনার মৃত্যু আমি মেনে নিতে পারছি না।

টুইট করে মনোজ বাজপেয়ী জানান, স্যার আপনি শান্তিতে বিশ্রাম নিন। ভারতীয় সিনেমায় আপনার অবদান সবসময় স্মরণ করা হবে এবং পরবর্তী প্রজন্মের কাছে অনুপ্রেরণা জোগাবে।

কৌশিক সেন জানান, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের সাথে আলাপ না হলে আমি পেশাদার অভিনেতাই হতে পারতাম না। অভিনয়ের জন্য তার প্রথম ফোন পাওয়াটা আমার হাতে চাঁদ পাওয়ার মতো ছিল।

সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায় জানান, উনার মৃত্যু হবে না। উনি মানুষের মাঝেই বেঁচে থাকবেন।

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর