শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১১ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১১ মার্চ, ২০২১ ০০:০৩

উৎকণ্ঠা নতুন করোনাভাইরাস নিয়ে

শনাক্ত বাড়ছেই ফের হাজার ছাড়াল

জয়শ্রী ভাদুড়ী

উৎকণ্ঠা নতুন করোনাভাইরাস নিয়ে

যুক্তরাজ্যে শনাক্ত হওয়া করোনাভাইরাসের নতুন ধরনে আক্রান্ত হওয়া ছয়জনের খোঁজ মিলেছে দেশে। এ নিয়ে দেখা দিয়েছে উৎকণ্ঠা। গত জানুয়ারিতে ঢাকা ও সিলেটে যুক্তরাজ্য-ফেরত করোনা আক্রান্ত ছয় ব্যক্তির শরীরে ভাইরাসটির নতুন ধরন পাওয়া গেছে। গতকাল সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এ এস এম আলমগীর এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে ছয়জনের মধ্যে যুক্তরাজ্যের করোনার নতুন স্টেইন (পরিবর্তিত রূপ) পাওয়া গেছে। এই স্টেইনের সংক্রমণক্ষমতা বেশি। আমরা এটা নিয়ে পর্যবেক্ষণ করছি।’ তবে দেশে সংক্রমণ বাড়ার জন্য যুক্তরাজ্যের স্টেইনের প্রভাব নেই বলে জানান তিনি। এ এস এম আলমগীর বলেন, ‘যুক্তরাজ্য-ফেরত ব্যক্তিদের কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করা হচ্ছে। আক্রান্তদের আইসোলেশন করে তারা যাদের কাছাকাছি এসেছেন, শনাক্ত করা হচ্ছে তাদেরও। অনেকে হোটেলে থেকেছেন, আত্মীয়-পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মেলামেশা করেছেন। তবে কন্ট্রাক ট্রেসিং করে এখনো নতুন কারও মধ্যে এই স্টেইন ছড়ানোর প্রমাণ মেলেনি।’ আইইডিসিআরের পরিচালক অধ্যাপক তাহমিনা শিরিন বলেন, জানুয়ারির শুরুতেই যুক্তরাজ্য-ফেরত যাত্রীদের মধ্য থেকে প্রথম এই ধরন শনাক্ত হয়। প্রথম যে যাত্রীর শরীরে নতুন এই ধরন শনাক্ত হয়, তিনি যুক্তরাজ্য থেকে ঢাকায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেন। সেখানে তার শরীর থেকে সংগৃহীত নমুনার জিনোম সিকোয়েন্সিং করে আইইডিসিআর করোনাভাইরাসের যুক্তরাজ্যের নতুন ধরন শনাক্ত করে। এরপর সিলেটে ওসমানী বিমানবন্দরে নামা যাত্রীদের মধ্য থেকেও ভাইরাসের নতুন ধরনবাহী ব্যক্তি শনাক্ত হয়েছেন। এ পর্যন্ত মোট ছয়জন শনাক্ত হয়েছেন। যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাসের নতুন ধরন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার পরই দেশটি থেকে বাংলাদেশে আসা যাত্রীদের ব্যাপারে নানা সতর্কতা নেওয়া হয়। ডিসেম্বরের শেষ দিক থেকেই যুক্তরাজ্য থেকে বাংলাদেশে আসা যাত্রীদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। তবে সতর্কতার অংশ হিসেবে অনেক দেশ যুক্তরাজ্যের সঙ্গে উড়োজাহাজ চলাচল বন্ধ করলেও বাংলাদেশ তা করেনি। নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের নতুন আরও একটি ধরন শনাক্ত হয়। বাংলাদেশের বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ ১৭টি নতুন জিনোম সিকোয়েন্স পরীক্ষা করে পাঁচটিতেই করোনাভাইরাসের নতুন স্টেইন পায়। যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাসের নতুন যে ধরন পাওয়া গেছে, সেটি আগের স্টেইনের তুলনায় ৭০ শতাংশ বেশি গতিতে ছড়ায় বলে বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন।

শনাক্ত ফের হাজার ছাড়াল : আবারও হু হু করে বাড়ছে করোনাভাইরাস সংক্রমণ। গত ২৪ ঘণ্টার নমুনা পরীক্ষায় রোগী শনাক্তের হার ছিল ৫ দশমিক ৯৮ শতাংশ, যা গত ৫৮ দিনের মধ্যে সর্বোচ্চ। স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্যানুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় ১৭ হাজার ৩২টি নমুনা পরীক্ষায় ১ হাজার ১৮ জনের দেহে সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৫ দশমিক ৯৮ শতাংশ। দুই মাস আগে ১০ জানুয়ারি এক দিনে এর চেয়ে বেশি ১ হাজার ৭১ জন নতুন রোগী শনাক্তের তথ্য জানানো হয়। গত এক দিনে মৃত্যু হয়েছে সাতজনের।

 

টিকার কার্যকারিতাকে সমস্যায় ফেলতে পারে

 

স্বাস্থ্যবিধি মানার বিকল্প নেই

 

সতর্কতা বাড়াতে হবে