শিরোনাম
প্রকাশ : ১৭ এপ্রিল, ২০২১ ১৭:২১
প্রিন্ট করুন printer

পুলিশের মধ্যস্থতায় বাসায় ফিরল সেই পরিবারটি

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম

পুলিশের মধ্যস্থতায় বাসায় ফিরল সেই পরিবারটি
সংগৃহীত ছবি

তিন মাসের ঘরভাড়া বাকি থাকায় একরাত ফুটপাতে কাটিয়ে পুলিশের মধ্যস্থতায় ফের বাসায় ফেরার সুযোগ পেল নগরীর একটি পরিবার। লকডাউন ও করোনা পরিস্থিতির কারণে নিজের এবং বড় ভাইয়ের নিয়মিত আয়-রোজগার বন্ধ হয়ে পড়ায় তিন মাসের বাড়ি ভাড়া জমে যায় বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শ্রীধাম দেবনাথের।

টাকা না পেয়ে বাড়িওয়ালা গত শুক্রবার রাতে মা, ভাই আর ভাইয়ের পরিবারসহ তাকে ঘর থেকে বের করে দেন। সারা রাত ফুটপাতে কাটান পরিবার নিয়ে। নিদারুণ এই খবর পেয়ে এক পুলিশ কর্মকর্তার মধ্যস্থতায় সকালে ফের বাসায় ফেরেন শ্রীধাম। শুক্রবার নগরের লালখান বাজার দুবাই কলোনিতে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে।

শ্রীধাম দেবনাথ জানান, দুবাই কলোনির একটি বাসায় দীর্ঘদিন তারা বসবাস করে আসছেন। বড় ভাই চট্টগ্রাম ওয়াসায় চুক্তিভিত্তিক চাকরি করতেন। পরিচয়ের সূত্র ধরে কয়েকমাস আগে পানির মোটর বসাতে অনুমতির জন্য বাসার মালিক মো. মোস্তফা তার ভাইকে ৩০ হাজার টাকা দেন। ওয়াসার এক কর্মচারীকে টাকাটা দিয়ে মোটর বসানোর অনুমতি নেওয়ার চেষ্টা চালাতে থাকেন তার বড় ভাই। এর মধ্যে ওয়াসার চুক্তিভিত্তিক চাকরিটারও মেয়াদ শেষ হয়ে যায়। ফলে বাড়িওয়ালার মোটর বসানোর সেই কাজ করতে পারেননি। এতে বাসার মালিক ক্ষুব্ধ হন।

শ্রীধাম বলেন, ভাই বেকার হলেও আমি টিউশনি করে সংসার চালাতাম। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে টিউশনিও বন্ধ হয়ে যায়। আর তিন মাসের ২১ হাজার টাকা ভাড়াও অনাদায়ি রয়ে যায়। সময়মতো দিতে না পারায় বাড়ির মালিক শুক্রবার তালা মেরে আমাদের বাসা থেকে বের করে দেন। এ অবস্থায় রাতে বৃদ্ধা মা, ভাইয়ের স্ত্রী, দুই ভাতিজাকে নিয়ে ফুটপাতে বসে কাটিয়ে পরে পুলিশের সহায়তা শনিবার সকালে বাসায় ফিরি।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (উত্তর) আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, বিষয়টি জানার পরপরই পুলিশ পাঠিয়ে ফুটপাতে থাকা পরিবারটিকে ঘরে তুলে দেওয়া হয়। বকেয়া বাড়িভাড়াগুলো কিস্তিতে পরিশোধ করারও সুযোগ করে দেওয়া হয় বাড়ির মালিকের সঙ্গে আলাপ করে।  

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর

এই বিভাগের আরও খবর