শিরোনাম
প্রকাশ : ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০৯:২৭
আপডেট : ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১০:০৪

যে ফলে প্রতিরোধ হবে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস!

অনলাইন ডেস্ক

যে ফলে প্রতিরোধ হবে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস!
প্রতীকী ছবি

করোনাভাইরাস মহামারী আকার নিয়েছে চীনে। এরই মধ্যে এই ভাইরাসে প্রাণ গেছে ১৪৮৩ জনের। আক্রান্ত হয়েছেন ৬৫ হাজার মানুষ। এর মধ্যে যেখান থেকে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে কেবল সেই উহানেই আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৫২ হাজার মানুষ। ভাইরাসটি ইতোমধ্যে বিশ্বের কমপক্ষে ২৬টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে।

এমন অবস্থায় করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বব্যাপী।

আপনিও হয়তো চিন্তা করছেন। তবে আর চিন্তা নয়, আপনার বাড়িতেই রয়েছে এক ভেষজ উপাদান, যা এই ভাইরাসকে প্রতিরোধ করতে সক্ষম। যার মাধ্যমে বিশ্বকে চিন্তিত করে তোলা এই ভাইরাসকে সহজেই প্রতিরোধ করা যাবে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ‘হু’এর নির্দেশ অনুযায়ী, ভিটামিন সি-সমৃদ্ধ খাবার খান। এবার প্রশ্ন উঠতে পারে- সব ভিটামিন সি যুক্ত খাবারই কি করোনা প্রতিরোধক? না, বিশেষ প্রতিরোধ ক্ষমতা রয়েছে আমলায় বা আমলকিতে, ইংরেজিতে এর নাম ‘Indian gooseberry’,  আর বৈজ্ঞানিক নাম ‘Phyllanthus embelica’।

ভারতীয় উপমহাদেশের‌ই ফল এটি। এটি ‘আয়ুর্বেদীর অন্যতম শ্রেষ্ঠ “রসায়ন”। কাঁচা অথবা শুকনা করে রাখা আমলকির টুকরো মুখে রাখলে বহুক্ষণ মুখ লালাসিক্ত থাকবে, এবং আমলকি ভিটামিন সি এর খনি। নিশ্চিন্তে আমলকি খান।

বন‍্যপশু, পাখি, সরিসৃপ ও কীটপতঙ্গের দেহে থাকা এই ভাইরাস মূলত চীনাদের বিকৃত খাদ্যমনস্কতার জন্য মানুষের দেহে ঢুকে ছড়িয়ে পড়েছে। ২০১৯ সালের শেষ ভাগে শুরু চীনে উদ্ভুত নোভেল করোণা ভাইরাসের।

ভয়ঙ্কর এই ছোঁয়াচে মারণরোগ নিয়ে সারাবিশ্ব এখন আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। নিশ্বাস, হাঁচি-কাশি থেকে ছড়ানো কফ-থুতু-লালাসিক্ত সংস্পর্শেও এ রোগের সংক্রমণ হতে পারে। বিশেষ করে শিশু, বৃদ্ধ এবং শ্বাসকষ্ট, কিডনি ও হার্টের রোগীরা এতে বেশি করে আক্রান্ত হ‌ওয়ার সম্ভাবনা আছে। এ কারণেই ভয়মিশ্রিত নানা গুজবে মানুষ দিশেহারা হচ্ছে।

হু’র নির্দেশ অনুযায়ী, সাবধানতা হিসেবে পথে-ঘাটে জনবহুল জায়গায় ভালো মানের মুখোশ/মাস্ক ব্যবহার করুন। বাইরে থেকে এলে হাত সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে নিন ও পোশাক পালটান। মাংস খাওয়া যতটা পারেন এড়িয়ে চলুন, বিশেষ করে কম সিদ্ধ ও অপরিচিত মাংস। কিছুক্ষণ পর পর নিয়মিতভাবে খুব অল্প পরিমাণে পানি পান করুন। এতে মুখের ভিতরটা ও খাদ্যনালী ভিজে থাকবে এবং সংক্রমণের ভয় অনেক কমে যাবে। সূত্র: কলকাতা২৪

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য