শিরোনাম
প্রকাশ : ১২ এপ্রিল, ২০২১ ১৯:৩৬
প্রিন্ট করুন printer

মোংলা বন্দরে লকডাউনে এক সপ্তাহে ২১টি জাহাজ এসেছে, চলেছে ২৪ ঘণ্টা স্বাভাবিক কার্যক্রম

বাগেরহাট প্রতিনিধি

মোংলা বন্দরে লকডাউনে এক সপ্তাহে ২১টি জাহাজ এসেছে, চলেছে ২৪ ঘণ্টা স্বাভাবিক কার্যক্রম

দেশের আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখতে সরকার ঘোষিত লকডাউনের মধ্যে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে বন্দরের অপারেশনাল কার্যক্রমসহ সকলকার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।

করোনার প্রার্দুভাব বৃদ্ধিতে রমজানে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম স্বাভাবিক রাখতে দেশে উৎপাদিত পণ্য ও কাচাঁমাল সরবরাহ ঠিক রাখতে মোংলা বন্দরে ২৪ ঘণ্টা স্বাভাবিক কার্যক্রম চলছে। লকডাউনে এক সপ্তাহে মোংলা বন্দরে জাহাজ আগমন করে ২১টি, গত বছর সমসাময়িক সময়ে জাহাজ আগমন করেছিল ১৮টি। কার্গো হ্যান্ডলিং হয়েছে ২৬ লাখ ৫৬৭ মেট্রিক টন, গত বছর সমসাময়িক সময়ে যা ছিল ২০০০০৩ মেট্রিকটন। কন্টেইনার হ্যান্ডলিং হয়েছে ৩৭৩ টিইইউজ এবং ৭ হাজার ১১৭  মেট্রিকটন। এছাড়াও এসময়ে বন্দর থেকে ২৭২টি গাড়ি ডেলিভারি করা হয়েছে। জাহাজ, কার্গো, গাড়ি ও কন্টেইনার হ্যান্ডলিং এর ক্ষেত্রে সকল সূচক উর্দ্ধমূখী হওয়ার ফলে মোংলা বন্দরের আয়ও স্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ এতথ্য নিশ্চিত করেছে।  

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের পরিচালক (ট্রাফিক) মো. মোস্তফা কামাল জানান, করোনাকালীন সময়ে লকডাউনের মধ্যে মোংলা বন্দরের যে সকল পণ্য আমদানি-রপ্তানি হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে, ডাল, ছোলা, ম্যাগনেসিয়াম সালফেট,কয়লা, হোয়াইট ক্লিংকার, পাথর, গ্যাস,কিচেন সিংক, ডাটা কেবল, ফেব্রিক্সস, এলইডিলাইট, ক্যালসিয়াম কার্বোনেট, অ্যালুমিনিয়াম সীট, এমএসি স্টীল, লেনটাইলস, মেশিনারিজ, চাল ও গাড়ি। 

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ মুসা জানান, ইতোমধ্যে মোংলা বন্দরের সকলকর্মকর্তা-কর্মচারীকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে অফিস করার নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাবের ফলে সর্তকতা হিসেবে মোংলা বন্দর নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে দর্শনার্থী অফিসে সীমিত প্রবেশের ক্ষেত্রে তাপমাত্রা পরীক্ষা, বন্দরের অফিস সমূহে এবং বন্দর এলাকায় করোনার সতর্কীকরণ মূলক বিভিন্ন ধরনের ব্যানার স্থাপন, বন্দরের মসজিদ সমূহে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নামাজ আদায় করা হচ্ছে। এছাড়াও লকডাউনের মধ্যে বন্দর কার্যক্রম সচল রাখতে মোংলা বন্দর কাস্টমস কর্তৃপক্ষ, ব্যাংক, শিপিং এজেন্ট, সিএনএফ এজেন্ট ও অন্যান্য বন্দর ব্যবহারকারীর সমন্বয়ে কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। যেহেতু বন্দরে সকল স্টেক হোল্ডারদের সমন্বয়ে কাজ করছি ফলে করোনার মধ্যে মোংলা বন্দরে কার্যক্রম ২৪ ঘণ্টা চলমান থাকবে। 

বিডি-প্রতিদিন/ সালাহ উদ্দীন