শিরোনাম
শুক্রবার, ১ মার্চ, ২০২৪ ০০:০০ টা

র‌্যাঙ্ক ব্যাজ না পাওয়ায় হতাশ পরিদর্শক ও এসআইরা

নিজস্ব প্রতিবেদক

র‌্যাঙ্ক ব্যাজ না পাওয়ায় হতাশ পরিদর্শক ও এসআইরা

পদমর্যাদা উন্নীত করার এক যুগ পরও র‌্যাঙ্ক ব্যাজ পাননি পুলিশের পরিদর্শক (ইন্সপেক্টর) ও উপ-পরিদর্শকরা (সাব-ইন্সপেক্টর/এসআই)। এ নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন পুলিশ সদস্যরা। এ হতাশার পরিপ্রেক্ষিতে নন-ক্যাডার পুলিশ কর্মকর্তাদের সংগঠন পুলিশ অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা গত বুধবার রাতে রাজধানীর নয়াপল্টনে পলওয়েল সুপার মার্কেটের কার্যালয়ে জরুরি বৈঠকে বসেন। ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ৫০টি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ (ওসি) আশপাশের বিভিন্ন থানার ওসিরা এতে অংশ নেন। বৈঠকে পুলিশ অ্যাসোসিয়েশনের নেতারা নিজেদের ন্যায়সংগত দাবি পূরণের জন্য প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছান। জানা যায়, ২০১২ সালে ইন্সপেক্টর পদটি প্রথম শ্রেণির এবং সাব-ইন্সপেক্টর ও ট্রাফিক সার্জেন্টের পদটি দ্বিতীয় শ্রেণির মর্যাদায় উন্নীত করা হয়। তখন থেকেই পরিদর্শকদের নির্ধারিত ব্যাজ পাওয়ার কথা। পরিদর্শকদের দুই কাঁধে দুটি করে মোট চারটি ‘পিপস’ এবং সাব-ইন্সপেক্টর/এসআই ও ট্রাফিক সার্জেন্টদের দুই কাঁধে একটি করে দুটি ‘পিপস’ পরার কথা। কিন্তু গত এক যুগেও তারা নির্ধারিত র‌্যাঙ্ক ব্যাজ পরতে পারেননি। বৈঠকে সংক্ষুব্ধ নন-ক্যাডার পুলিশ কর্মকর্তারা বলেন, প্রথম শ্রেণির পদমর্যাদায় উন্নীত হওয়ার এত বছর পরও পুলিশ পরিদর্শকরা এখনো নবম গ্রেডে বেতন-ভাতা পাচ্ছেন। অথচ ক্যাডারের নবম গ্রেডের কর্মকর্তারা ১০ বছর চাকরি করার পর সিলেকশন গ্রেড পেয়ে ষষ্ঠ গ্রেডে উন্নীত হন। নন-ক্যাডার পুলিশ পরিদর্শকরা তা থেকে বঞ্চিত। অন্যান্য ক্যাডারে প্রথম শ্রেণির পদমর্যাদার কর্মকর্তারা যে সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছেন, তার সঙ্গে তাদের সমন্বয় করা উচিত। পুলিশে বিসিএস ক্যাডার কর্মকর্তাদের নিয়মিত পদোন্নতি হয়। কনস্টেবল থেকে পরিদর্শক পদে সেই অনুপাতে পদোন্নতি হচ্ছে না। সারা দেশে পুলিশ পরিদর্শক পদমর্যাদার ৬ হাজার ৯১০ কর্মকর্তা এবং উপপরিদর্শক পদমর্যাদার ২৬ হাজার ৩৪৮ কর্মকর্তা আছেন। এ বিষয়ে পুলিশ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ও ডিএমপির গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম বলেন, র‌্যাঙ্ক ব্যাজ পাওয়াসহ বিভিন্ন দাবি নিয়ে একাধিকবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব, পুলিশ মহাপরিদর্শক ও অতিরিক্ত আইজিপির (প্রশাসন) সঙ্গে বৈঠক হয়েছে। দাবি পূরণের আশ্বাসও পাওয়া গেছে। কিন্তু সেগুলো কোনোটির বাস্তবায়ন ঘটেনি। কনস্টেবল থেকে পরিদর্শক পর্যন্ত আমরা সবাই হতাশ। এখন সরকারপ্রধানের সঙ্গে দেখা করে দাবি তুলে ধরার চেষ্টা করা হবে। আশা করা হচ্ছে, দাবি পূরণ হবে। না হলে হাই কোর্টের শরণাপন্ন হওয়া ছাড়া আর কোনো উপায় নেই। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেক ওসি বলেন, বিসিএস ক্যাডার কর্মকর্তাদের নিয়মিত ও সুপার নিউমারারির মাধ্যমে পদোন্নতি হয়। কিন্তু কনস্টেবল থেকে পরিদর্শক পর্যন্ত পদে থাকা কর্মকর্তাদের এভাবে পদোন্নতি হচ্ছে না। আরেক ওসি বলেন, পুলিশ সপ্তাহে ক্যাডার কর্মকর্তারা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে তাদের সব দাবি-দাওয়া তুলে ধরেছেন। অথচ নন-ক্যাডার পুলিশ কর্মকর্তাদের দাবি নিয়ে তারা কিছু বলছেন না।

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর