শিরোনাম
প্রকাশ : ২০ অক্টোবর, ২০২০ ১৬:৩৫
আপডেট : ২০ অক্টোবর, ২০২০ ১৬:৩৮

গুজরানওয়ালায় সরকারবিরোধী সমাবেশে দাবি

পাকিস্তানে জেনারেল ও জজের দুর্নীতিরও তদন্ত হতে হবে

অনলাইন ডেস্ক

পাকিস্তানে জেনারেল ও জজের দুর্নীতিরও তদন্ত হতে হবে

প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন সরকারের বিরুদ্ধে গুজরানওয়ালা শহরে শুক্রবার অনুষ্ঠিত ১১ দলীয় পিডিএম জোটের বিরাট সমাবেশে বক্তারা বলেন, দুর্নীতির অভিযোগ উঠলে শুধু রাজনীতিকদের বিরুদ্ধে তদন্ত হয়, তাদের সাজা দেওয়া হয়। 

জেনারেল বা জজদের বিরুদ্ধেও দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। তাদের ছাড় দেওয়া কেন? তাদের দুর্নীতিরও তদন্ত হতে হবে। আইন হতে হবে সবার জন্য সমান। 

আল জাজিরা জানায়, জেনারেলদের দুর্নীতি নিয়ে এরকম সরাসরি কথাবার্তা এর আগে কোনো জনসভায় শোনা যায়নি। ১১টি দল নিয়ে গঠিত মোর্চা পাকিস্তান ডেমোক্র্যাটিক মুভমেন্ট (পিডিএম) গঠিত হয় ২০ সেপ্টেম্বর। গঠনের পর এটাই তাদের প্রথম সমাবেশ। সমাবেশে জোটভুক্ত প্রত্যেক দলের একজন করে নেতা বক্তৃতা করেন। 

পিএমএলএন নেতা-সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ লন্ডন থেকে ভিডিও লিঙ্কের মাধ্যমে বক্তৃতাকালে বলেন, তাঁর সরকারকে হটিয়ে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল কমর জাভেদ বাজওয়া ২০১৮ সালে ইমরান খানকে ক্ষমতায় বসিয়েছেন।

নওয়াজ শরিফ বলেন, ‘জেনারেল বাজওয়া, ভালোভাবে শাসন করছিল যে সরকার তাকে উৎখাত করে আপনি সমগ্র দেশ ও জাতিকে আপনার মর্জির অধীনে নিয়ে গেছেন।’ টিভি চ্যানেলগুলো এই কথাগুলো বাদ দিয়ে নওয়াজের সংবাদ প্রচার করে। সরকারি নির্দেশেই এই সেন্সর। 

ইমরানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) ২০১৮ সালের সাধারণ নির্বাচনে জিতে সরকার গঠন করে। বিরোধী দলগুলোর অভিযোগ, নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপি করে ইমরানকে জেতানো হয়েছে। তার আগে ২০১৭ সালে সম্পদের মিথ্যা বিবরণ দেওয়ার দায়ে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে নওয়াজকে সরিয়ে দেওয়া হয় এবং ১০ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

পিডিএম সংগঠক মনে করেন নিত্য পণ্যের মূল্য অনেক বেড়ে যাওয়ায় এবং বেছে বেছে শুধু বিরোধী দলের লোকদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলা দেওয়ায় পিটিআই’র জনপ্রিয়তা কমে চলেছে। তাই, সরকারের পতন ঘটাতে গণআন্দোলনের সময় এসেছে।

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর